1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :

অক্লান্ত পরিশ্রম এনে দিল সফলতার মুকুট

  • আপডেটের সময় : রবিবার, ৮ নভেম্বর, ২০২০
  • ২৭৭ দেখা হয়েছে

তারেকুর রহমান

চরম প্রতিবন্ধকতা কোনোভাবেই থামাতে পারে না কারো ইচ্ছা এবং মেধা শক্তি। ইচ্ছে থাকলে উপায় হয় সেই উক্তির বাস্তবতা প্রমাণ করে যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন বিশ^বিদ্যালয় থেকে সফলতার সাথে চার বিষয়ে ডিগ্রি অর্জনসহ ‘বার এট ল’ (ব্যারিস্টার) কোর্স সম্পন্ন করেন টেকনাফ বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর নয়াপাড়ার আব্দুল হক মেম্বারের বড় পুত্র মুহাম্মদ বেলাল। দীর্ঘ অনেক বছর যুক্তরাজ্যে থাকার পরেও সুখ বিলাসিতা যাকে ছুঁতে পারেনি সেই পরিশ্রমী বেলাল তাঁর জীবন সংগ্রামে কষ্টের ফল হাতে পেয়েছেন এবং পরবর্তী প্রজন্মদের উদ্দেশ্যে পরিশ্রমের গল্প বর্ণনা করে অঝর নয়নে কাঁদলেন। বললেন, হারিকেন জ্বালিয়ে পড়ালেখার কথা, বেশি রাত জেগে পড়তে না পারা ও সূর্য ওঠার আগে ঘুম থেকে উঠে পড়তে বসার গল্প। ‘বাবার টাকা বাঁচাতে ভালো খাবারের পরিবর্তে প্রতিদিন ডাল-ভাত খেয়েছি। কোচিংয়ের টাকা জমাতে শখের পোশাক পরিচ্ছেদের প্রতি খেয়াল ছিল না। এক প্যান্টে অনার্স শেষ করেছি। কলেজে গেছি হেঁটে। বাবাকে কষ্ট দেখাইনি কখনো। বাবার একক আয়ের টাকায় আমিসহ অন্যান্য ভাই-বোনদের লেখাপড়া আমাকে এখনো কাঁদায়। বাবার কষ্টে অর্জিত টাকা বাঁচুক সেটা চেয়ে পড়ালেখার পাশাপাশি নিজে আয় করার চিন্তায় মগ্ন থাকতাম সারাক্ষণ। বুকভরা কষ্ট আর চোখভরা স্বপ্ন নিয়ে নিয়ে সব প্রতিবন্ধকতাকে মোকাবেলা করতাম। কষ্টসাধ্য যেকোন পরিবেশকে মানিয়ে নিতাম সহজেই।’ কষ্টে অর্জিত টিউশনের টাকা জমিয়ে মাত্র ৩৫ হাজার টাকা পকেটে নিয়ে উচ্চতর ডিগ্রি অর্জনের লক্ষ্যে ২০১০ সালে যুক্তরাজ্যে পাড়ি জমান স্বপ্নবাজ বেলাল। যুক্তরাজ্যে গিয়ে থেমে থাকেন নি। অস্বচ্ছল পরিবারের ছেলে হিসেবে নিজেকে তৈরি করেছেন অনন্য রূপে। বিশ^বিদ্যালয়ের ফি দিতে সেখানে রেস্টেুরেন্টের ওয়েটারের কাজসহ ৩ টি চাকরিতে যুক্ত ছিলেন তিনি। তাঁর অক্লান্ত পরিশ্রমের মাধ্যমে ভাগ্য বদলের একবুক স্বপ্ন ও প্রবল ইচ্ছা নিয়ে চালিয়ে গেলেন পড়ালেখা।

২০১২ সালে যুক্তরাজ্যের ব্রিট কলেজ থেকে হেলথ্ কেয়ার ইন ম্যানেজমেন্টে ও ২০১৪ সালে গ্লাইন্ডর ইউনিভার্সিটি থেকে মার্কেটিং বিষয়ে ডিগ্রি অর্জন এবং ২০১৬ সালে নর্দামব্রিয়া ইউনিভার্সিটি থেকে ম্যানেজমেন্টের উপর মাস্টার্স, শেষে ২০১৮ সালে ‘দ্য ইউনিভার্সিটি অব ল’ থেকে মাস্টার্স অব ল’ শেষ করে সর্বশেষ ২০২০ সালে একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ‘বার এট ল’ (ব্যারিস্টারি) সম্পন্ন করে মা বাবা ও এলাকাবাসীর স্বপ্ন পূরণ করেন তিনি। মুহাম্মদ বেলাল শিক্ষা জীবনের শুরু থেকে স্বপ্নবাজ ছিলেন, মেধা মননে তাঁর প্রতি শিক্ষকদের আস্থা ছিল প্রবল। ২০০২ সালে টেকনাফের উপকূলীয় বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে নবম শ্রেণির ছাড়পত্র নিয়ে রামু খিজারী উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হন। সেখান থেকে ২০০৩ সালে এসএসসি, কক্সবাজার সরকারি কলেজ থেকে ২০০৫ সালে এইচএসসি এবং চট্টগ্রাম কলেজ থেকে দর্শন বিদ্যায় অনার্স (সম্মান) শেষ করে স্বপ্ন বাস্তবায়নে নিজের ইচ্ছা ও মেধা শক্তিকে কাজে লাগিয়ে আইইএলটিএস করেন। আইইএলটিএস-এ ৬.৫০ স্কোর পেয়ে উচ্চতর ডিগ্রি অর্জনের জন্য যুক্তরাজ্যে পাড়ি জমান। চলতি বছরের চলতি মাসে (নভেম্বর) অফিসিয়ালী ‘কল টু দ্য বার এট দ্য অনারেবল সোসাইটিজ অব লিনক্লন ইন’ প্রদান অনুষ্ঠানের আয়োজন নির্ধারিত থাকলে ও কোভিড-১৯ এর কারণে তা পিছিয়ে আগামী বছর (২০২১) এর মার্চে নির্ধারণ করা হয়েছে বলে জানান তিনি। বর্তমানে লন্ডনিয়াম সলিসিটর্সের আইনজীবী হিসেবে কর্মরত আছেন। তিনি বলেন ‘যুক্তরাজ্যে ব্যারিস্টারি করার জন্য দেশের নামি-দামী বিশ^বিদ্যালয় থেকে ভালো বিষয়ে পড়ে আসতে হবে তা নয়, যেকোনো বিষয়ে পড়ে শুধু আইইএলটিএস শেষ করে এর উপর অন্তত ৬ পয়েন্টের উপর স্কোর করে আগ্রহ থাকলে যুক্তরাজ্যে আইন বিষয়ে পড়ালেখা করা যায়।’ তাঁর এ সাফল্যের পেছনে বাবা-মা, শিক্ষক, এলাকাবাসীসহ সকল স্তরের মানুষ যারা তাঁর জন্য দোয়া করেছেন, সামনে এগিয়ে যাওয়ার প্রেরণা জুগিয়েছেন এবং নানাভাবে সহযোগিতা করেছেন; সংশ্লিষ্ট সকলের নিকট কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন ও দোয়া কামনা করেন।

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com