কক্সবাজারলীড

অন্ধকারাচ্ছন্ন সমাজের আলো ও সফল নেতৃত্বের মডেল ছিলেন জিএম রহিমুল্লাহ-ড. হাসমত আলী

12views

একটি অন্ধকারাচ্ছন্ন সমাজের আলো ও সফল নেতৃত্বের মডেল ছিলেন কক্সবাজার সদর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম জিএম রহিমুল্লাহ। শিক্ষাজীবন, কর্মজীবন প্রতিটি ক্ষেত্রে তিনি সার্থক। লোভ-লালসার ঊর্ধ্বে উঠে জীবন কাটিয়েছেন, জনপ্রতিনিধিত্ব করেছেন। জিএম রহিমুল্লাহ ছিলেন একজন জীবন্ত আউলিয়া। আগামী শত বছরেও তার শূন্যতা পূরণ হবে কিনা, সন্দিহান।
মরহুম জিএম রহিমুল্লাহর স্মরণ সভা ও দোয়া মাহফিলে প্রধান বক্তার বক্তৃতায় কথাগুলো বলছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স বিভাগের অধ্যাপক কক্সবাজারের কৃতি সন্তান ডঃ হাসমত আলী।
জিএম রহিমুল্লাহ স্মৃতি ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে শুক্রবার (১৬ আগস্ট) বিকালে ভারুয়াখালী বাজার সংলগ্ন ঈদগাহ মাঠে সভা অনুষ্ঠিত হয়।
ডঃ হাসমত আলী বলেন, জিএম রহিমুল্লাহকে আমি একজন রাজনীতিবিদ হিসেবে বিশ্লেষণ করি না। মানুষ হিসাবে তিনি সফল, মুসলমান হিসেবে সার্থক। তার পুরো জীবনটা গেছে কোরআনের পথে, মানবতার উপকারে। তিনি ছিলেন একজন দক্ষ ও অভিজ্ঞ প্রশাসক। অন্যায়ের বিরুদ্ধে যেমন ছিলেন কঠোর, সত্যেরে পক্ষে তেমন নিবেদিত। একজন উঁচু মাপের নেতা হয়েও জীবনের অভাব বুঝতে দেননি কাউকে। মরহুম জিএম রহিমুল্লাহ শুধু কক্সবাজারের নয়, পুরো বাংলাদেশের গৌরব।
অধ্যাপক হাসমত আলী বলেন, জিএম রহিমুল্লাহ একটি রাজনৈতিক দল করলেও ছিলেন সার্বজনীন। দল-মতের ঊর্ধ্বে উঠে তিনি কাজ করতেন। সেজন্য তিনি সবার কাছে গ্রহণযোগ্য ছিলেন।
জিএম রহিমুল্লাহ স্মৃতি ফাউন্ডেশনের সভাপতি কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সিনিয়র আইনজীবী মোঃ নেজামুল হকের সভাপতিত্বে স্মরণ সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- ভারুয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মাওলানা আবুল বশর, কক্সবাজার সদর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এডভোকেট ছলিম উল্লাহ বাহাদুর, সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শহীদুল আলম বাহাদুর, ভারুয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান সিকদার, ভারুয়াখালী এসোসিয়েশানের সভাপতি ডাঃ মনজুর আলম আযাদ, কক্সবাজার নিউজ ডটকম (সিবিএন) এর বার্তা সম্পাদক ইমাম খাইর।
মাওলানা মোঃ সায়েমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন- ভারুয়াখালী দারুল উলুম আলিম মাদ্রাসা পরিচালনা পরিষদের সভাপতি নুরুল হুদা মেহেদী, মাওলানা সোলাইমান করিম, মাওলানা আব্দুল হাকিম সিদ্দিকী, মেম্বার ফজলুল হক, কক্সবাজার বিজিবি ক্যাম্প জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আব্দুর রহিম, সওয়ার করিম বাবুল, কামরুল ইসলাম, মাস্টার রশিদ আহমদ, মাস্টার মুহাম্মদ ইয়াকুব, মাস্টার শেফা উদ্দিন, ব্যাংকার মোস্তফা কামাল, রাজস্ব কর্মকর্তা শওকতুল ইসলাম রানা, এডভোকেট আবু হেনা মোস্তফা কামাল, এডভোকেট শওকত ওসমান, অধ্যাপক জহিরুল ইসলাম, রুহুল আমিন হেলালী প্রমুখ।
অনুষ্ঠানের শুরুতে কোরআন তেলাওয়াত করেন জিএম রহিমুল্লাহর প্রতিষ্ঠিত ভারুয়াখালী আয়েশা সিদ্দিকা বালিকা মাদ্রাসার সুপার মাস্টার হুমায়ুন কবির।
উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক মাস্টার আব্দুস সালাম।
স্মরণ সভা ও দোয়া অনুষ্ঠানে মাস্টার গোলাম কাদের, মাস্টার আবুল কালাম আজাদ, সাবেক মেম্বার বদিউল আলম আযাদ, মাস্টার মোজাফফর আহমদ সিকদার, মাস্টার জহিরুল ইসলাম, হাফেজ মাওলানা নুরুল আমিন, ব্যাংকার মোহাম্মদ নূরসহ ভারুয়াখালী ইউনিয়ন ও আশপাশের এলাকার অসংখ্য ব্যক্তি উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানে ইসলামি সঙ্গিত পরিবেশন করেন ফাউন্ডেশনের সদস্য ইয়াসির আরাফাত, আব্দুল আলিম, মোঃ তাহিন, হাফেজ মেহেদী, হাফেজ আবুল কাশেম।
সকাল ১০ টায় খতমে কুরআন এবং বাদে আছর মরহুম জিএম রহিমুল্লাহর কবর জিয়ারত শেষে মোনাজাত পরিচালনা করেন মাওলানা হাফেজ আবুবকর।
জননেতা জিএম রহিমুল্লাহ ২০১৮ সালের ২০ নভেম্বর হৃদক্রিয়া বন্ধ হয়ে শ্বশুরালয়ের মালিকানাধীন শহরের সাগরগাঁও হোটেলে মৃত্যুবরণ করেন। গ্রামের বাড়ি বানিয়াপাড়ায় নিজের প্রতিষ্ঠিত কবরস্থানে তিনি চিরশায়িত হয়ে আছেন।
২০১৪ সালের ৩ এপ্রিল অনুষ্ঠিত কক্সবাজার সদর উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে ৪০ হাজার ৬৪৫ ভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন জিএম রহিমুল্লাহ।
তিনি ইসলামী ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় ছাত্র আন্দোলন বিষয়ক সম্পাদক ও জামায়াতের কক্সবাজার জেলা সেক্রেটারি ছিলেন। প্রেস রিলিজ

Leave a Response