অপূর্বের গল্পের নায়ক আফরান নিশো

কক্সবাজার আলো ডেস্ক

জিয়াউল ফারুক অপূর্ব ও আফরান নিশো- টিভি নাটকে দুজনেই চলছেন পাল্লা দিয়ে। ব্যস্ততা আর জনপ্রিয়তা- প্রায় সমানে সমান। অনেকে দূর থেকে এ দুজনকে ভাবেন প্রতিদ্বন্দ্বীও!

তবে বাস্তবতা ভিন্ন। দুজনের সম্পর্ক বরাবরই বেশ উষ্ণ। যা টের পাওয়া যাবে এবার বিশেষ একটি নাটকের মাধ্যমে। না, খবরটি এ দুজন একসঙ্গে অভিনয় করা নিয়ে নয়। খবরটি হলো, অপূর্বের গল্পের নায়ক হলেন আফরান নিশো।
‘লাফিং হাদিউল’ নামের একটি বিশেষ নাটকের গল্প ভাবনা দেন অপূর্ব। সেটি লিখেন আরিয়ান। আর চিত্রনাট্য তৈরি করে নির্মাণ করলেন মাবরুর রশীদ বান্নাহ। এর প্রধান চরিত্রে অভিনয় করলেন আফরান নিশো।
আকবর হায়দার মুন্না প্রযোজিত বিশেষ এই নাটকটিতে আরও অভিনয় করেছেন শায়লা সাবি, রকি খান, সাদমান শারার জায়ান, জারিন খান রত্না প্রমুখ।
নির্মাতা বান্নাহ জানান, নাটকটি টেলিভিশনের জন্য নির্মাণ করেননি তিনি। এটি মুক্তি পাবে ৩১ জানুয়ারি, ক্লাব ১১ এন্টারটেইনমেন্ট-এর ইউটিউব চ্যানেলে।
অপূর্বর দেওয়া এই নাটকটির কনসেপ্ট প্রসঙ্গে বান্নাহ জানালেন এভাবে, এটি একটি ক্যারেক্টারের ওপর ভর করে তৈরি হয়েছে। যে চরিত্রটি কারণে-অকারণে সারাক্ষণ হাসে! মানে সে যেকোনও বিষয় নিয়ে হাসে। আমরা সাধারণত ধরে নিই, যে মানুষগুলো কম হাসে বা একটু গম্ভীর থাকে- তারা পারসোনালিটি সম্পন্ন। আর যারা বেশি হাসে, তারা বোকা না হয় সহজ-সরল। কিন্তু কারও হাসি যদি কোনও সিরিয়াস অথবা বিরহের মুহূর্তেও দেখা যায়, তাহলে কিন্তু সবারই মেজাজ খারাপ হওয়ার কথা।


বান্নাহ বললেন, ‘এই চরিত্রটিতে অভিনয় করেছেন আফরান নিশো। সে যে ইচ্ছা করেই সবসময় হাসেন, আসলে তা নয়। এটাই তার স্বভাব। কিন্তু মানুষ এটাকে পজিটিভলি নেয় না। বরং এই হাসির কারণে তাকে বিড়ম্বনায় পড়তে হয় নিয়মিত। হারাতে হয় প্রেমিকাকেও। কিন্তু কেন তিনি কথায় কথায় হাসেন- এমন প্রশ্নের জবাব মিলবে নাটকটির মাধ্যমে।’

উপদেষ্টা সম্পাদক : হাসানুর রশীদ
সম্পাদক ও প্রকাশক : মুহাম্মদ শাহজাহান

নির্বাহী সম্পাদক : ছৈয়দ আলম

যোগাযোগ : ইয়াছির ভিলা, ২য় তলা শহিদ সরণী, কক্সবাজার। মোবাইল নং : ০১৮১৯-০৩৬৪৬০

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য অধিদপ্তরে নিবন্ধনের জন্য আবেদিত

Email:coxsbazaralo@gmail.com