1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
শিরোনাম :
হ্নীলায় টেকনাফ সাংবাদিক সমিতি (টেসাস) এর কার্যালয় উদ্বোধন আমি মরে গেলে আমার সব সৃষ্টি ধ্বংস করো- কবীর সুমন রাত ৮টায় এল ক্লাসিকো যুদ্ধে বার্সা-রিয়াল করোনায় আরও ১৯ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১০৯৪ সাংবাদিকনেতা গাজীর মুক্তির দাবিতে কক্সবাজারে মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ কক্সবাজার প্রধান সড়ক বিএস মতে সড়ক বিভাগের অধিগ্রহণকৃত জমিতেই নির্মিত হবে ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও প্রধান বিচারপতির শোক দুঃসময়ে আইনি লড়াইয়ে এগিয়ে আসেন ব্যারিস্টার রফিক-উল হক: প্রধানমন্ত্রী সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার রফিক-উল হক আর নেই টেকনাফ পৌর-ছাত্রলীগের বিশেষ জরুরী সভা অনুষ্ঠিত

অসাধারণ স্থাপত্যশৈলির জাদুঘর নির্মাণে দুবাই

  • আপডেটের সময় : শনিবার, ১ আগস্ট, ২০১৫
  • ১৪ দেখা হয়েছে

আরিফ সিকদার বাপ্পী, ইউএই থেকে :
Expo 2020 কে সামনে রেখে ‘মিউজিয়াম অব দি ফিউচার’ নামে অসাধারণ স্থাপত্যশৈলির একটি জাদুঘর নির্মাণ করতে যাচ্ছে দুবাই। তবে প্রচলিত অর্থে জাদুঘর বলতে যা বোঝায় তা এর সঙ্গে পুরোপুরি মিলবে না। কারণ এ জাদুঘরে থাকবে ভবিষ্যতের অসংখ্য প্রযুক্তি।
মরুভূমির বুকে সাধারণ একটি বন্দর থেকে দুবাইয়ের অত্যাধুনিক শহরে পরিণত হওয়ার গল্পটি যেন দুবাইকে না দেখলে বিশ্বাস করা কঠিন। এ শহরেই রয়েছে বুর্জ খলিফা নামে বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ভবন। এ ছাড়াও রয়েছে বহু অসাধারণ ল্যান্ডমার্ক। দুবাইয়ের মল ও পাম আইল্যান্ডের মতোই আরেকটি অসাধারণ উদ্ভাবন যোগ হতে যাচ্ছে শহরটিতে, যার নাম ‘মিউজিয়াম অব দি ফিউচার।’
সংযুক্ত আরব আমিরাতের ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং দুবাইয়ের শাসক শেখ মোহাম্মদ বিন রাশিদ আল মাখতুম  দুবাইয়ের এ ‘মিউজিয়াম অব দি ফিউচার’ প্রকল্পের উদ্বোধন করেছেন। ২০১৭ সাল নাগাদ এর নির্মাণকাজ শেষ হবে বলে আশা করা হচ্ছে। জাদুঘরটির উদ্বোধন করে তিনি জানান, ২০১৫ সালকে আবিষ্কারের বছর হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। দুবাইকে আন্তর্জাতিক উদ্ভাবনের অন্যতম গন্তব্য হিসেবে প্রমাণ করার বিষয়টিকে তারা খুবই গুরুত্বের সঙ্গে দেখছেন।
জাদুঘরটিতে কী প্রদর্শন করা হবে? এ প্রসঙ্গে আয়োজকরা জানিয়েছেন জাদুঘরটির মূলমন্ত্র হবে, ‘ভবিষ্যত দেখুন, ভবিষ্যত তৈরি করুন।’ এতে প্রদর্শিত হবে ভবিষ্যতের অসাধারণ সব প্রযুক্তি। জাদুঘরটিতে ডিজাইনার, গবেষক, বিজ্ঞানী, উদ্ভাবক, উদ্যোক্তা ও বিনিয়োগকারীদের আমন্ত্রণ জানানো হবে নতুন প্রযুক্তি উন্নয়নের জন্য। এতে প্রদর্শিত হবে নতুন বহু উদ্ভাবন।
জাদুঘরটির নির্মাণ ব্যয় হতে যাচ্ছে ১৩৬ মিলিয়ন ডলার। এর অনেক অংশ নির্মাণ করা হবে থ্রিডি প্রিন্টারের মাধ্যমে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com