1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
  4. bblythe20172018@mail.ru : traceyhowes586 :
শিরোনাম :
সাংবাদিক ও গবেষক আজাদ মনসুরের বাবার মৃত্যুতে সাংবাদিক ইউনিয়নের শোক পঞ্চম দফায় দুইদিনে ভাসানচর গেল আরো ৪০২১ রোহিঙ্গা কক্সবাজারে নিজের মেয়েকে ধর্ষণের দায়ে বাবার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৫ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ৬১৪ : স্বাস্থ্য অধিদপ্তর দুদকের নতুন চেয়ারম্যান মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ জুভেন্টাসের জয়ের ম্যাচে রোনালদোর ইতিহাস সোনার দাম ভরিতে কমল ১ হাজার ৫১৬ টাকা আফগানিস্তানে ৩ নারী সাংবাদিককে গুলি করে হত্যা বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হওয়ায় কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের আনন্দ র‍্যালি ঈদগাঁওতে মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের উদ্যোগে কলম বিরতি ও প্রতিবাদ সমাবেশ

আনুশকার মর্মান্তিক মৃত্যুর জন্য দায়ী কারা? 

  • আপডেটের সময় : রবিবার, ১০ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৩৩৬ দেখা হয়েছে
আবুল কাসেম আশরাফ :
সদ্য মৃত আনুশকা নূর ঢাকা কলাবাগান মাস্টারমাইন্ড ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের ১৭ বছরের শিক্ষার্থী।সে তার বয়ফ্রেন্ডের সাথে খালি বাসায় গ্রুপ স্টাডির নামে মূলত:কী করেছে তা তার মৃত্যুর মাধ্য‌মে জাতির কাছে পরিস্কার হয়ে গেছে । ফারদিন ইফতেখার দিহানের বিকৃত লালসার বলির দরুণ তার অস্বাভাবিক মৃত্যু আগামী প্রজন্মের বিবেকবান অভিভাবকদের হৃদয়ে সজোরে আঘাত হানছে। টনক নড়েছে সচেতন মহলে। সরব হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়া জগৎ। দৌড় – ঝাপ বাড়ছে সংবাদকর্মীদের। দিন শেষে কাউকে দোষারোপ করলে বা সুষ্ঠু বিচার করলেও কি কখনো তাকে আর কখনো  জীবন্ত ফিরে পাওয়া যাবে?
তার হৃদয় বিদারক মৃত্যুর জন্য শুধু কি তার বয়ফ্রেন্ড দায়ী? নাকি আধুনিকতার ছলনাময়ী চোরাবালিতে অনেক অজানা রহস্য তাতে  লুকায়িত আছে । আনুশকা নিজেই, তার মা -বাবা ও পরিবার, দিহান ও তার পারিবারিক পরিবেশ, সামাজিক সুশিক্ষার অপ্রতুলতা,ধর্মীয় শিক্ষার অভাব,নৈতিকতার অবক্ষয়,লিভ টুগেদার ও নারী পুরুষের অবাধ মেলামেশা এর জন্য কি দায়ী নয়? কেউ কি এসবগুলোর দায় এড়াতে পারবে?
আনুশকার গ্রুপ স্টাডির অন্তরালে যাবতীয় স্ট্যান্ডার্ড বাজির গোমর ফাঁস হল। উন্মোচিত হল নারী স্বাধীনতা নামে বুলি উড়ানো ধ্বজধারীদের নিকৃষ্টতম চরিত্র। পাশ্চাত্যের পঁচা উৎকট দূর্গন্ধময় থিওরি আবারও প্রমাণিত হল, তা সমাজের জন্য কতটা জঘন্যতম।
টিনেজারদের নিয়ে বহু নাটক -সিনেমা, টিকটক, লাইকী, জীবন বিনাশী পর্ণ ভিডিও রয়েছে।  প্রায় সব গুলোতে উন্মাতাল, কামাতুর, অশ্লীল হওয়ার দীক্ষা দেওয়া হয় সুচতুরভাবে। এ গুলো দেখে সম্ভাবনাময় কলিগুলো ফুল হয়ে ফুটে ওঠার আগেই মন -মননে হয়ে উঠে অকাল পরিপক্ক । তারা উড়তে থাকে লোলুপ মানসিকতার মোহাচ্ছন্ন অপরাধের স্বর্গ রাজ্যে। হারিয়ে ফেলে লোক লজ্জা ও হিতাহিত জ্ঞানের অপূর্ব আধার। ফলে কলি থেকে ফুলে প্রস্ফুটিত হওয়ার আগেই পৌঁছে যায় অতল আস্তাকুঁড়ে। ইদানিং উঠতি বয়সী শিক্ষার্থীদের গ্রুপ স্টাডি, ক্লাস পার্টি এক স্বাভাবিক বিষয় হয়ে দাড়িয়েছে।
শিক্ষার্থীদের জন্য এই মুহুর্তটা অতীব গুরুত্বপূর্ণ। এই সময়টা তাদের সুপ্ত মেধা মন -মনন বিকাশের অনাবিল সুযোগ। এ মূল্যবান ক্ষণটি সঠিক পরিচর্যার অভাবে বহু মেধাবীকে ঝরে যেতে দেখা যায়, অনেক ভদ্র -নম্র, সৌম্য -কান্ত কিশোর -কিশোরীকেও হারিয়ে যেতে দেখা যায় পাপ রাজ্যের অভয়ারণ্যে। আবার দরদী মালীর চমৎকার তত্বাবধানে অনেককে আরোহণ করতে দেখা যায় সাফল্যের স্বপ্নচূড়ায়।
তাই তো বলা যায়, এটিতে নিজেকে সুন্দর সুশৃঙ্খল জীবনে জড়ানো কিংবা ঘৃণিত অপচ্ছায়ার গড্ডালিকা প্রবা‌হে হারিয়ে যাওয়ার মোক্ষম সময়।আবার এটি মহান প্রভুর সন্তুষ্টি অর্জন কিংবা অভিশপ্ত শয়তানের কৃপা প্রাপ্তির মাহেন্দ্রক্ষণও বটে।
এ সময়টাতে সন্তানের ব্যাপারে অভিভাবকদের সচেতনতা খুবই জরুরী। নিজেদের হৃদয়ে  লালিত প্রোজ্জ্বল স্বপ্ন বস্তবায়নের মহা উৎস প্রিয় সন্তানগুলো কোথায় যাচ্ছে? কি করছে? কার সাথে মিশছে? তথ্য প্রযুক্তিকে কিভাবে গ্রহণ করছে? তাদের যাতায়াত কোন পরিবেশে? ধর্মীয় ও নৈতিকতা শিক্ষা কতটুকু অর্জন করছে? এবং তা কতটুকু আমল করছে? শালীনতা বোধ জাগ্রত হচ্ছে কিনা? নাকি ধ্বংসের অতল গহ্বরে পতিত হচ্ছে?
এ সব কিছুর খবরাখবর রাখা অত্যন্ত আবশ্যক।
নারী পুরুষের অবাধ মেলামেশা, বিবাহ বহির্ভূত ফ্রেন্ডশিপ কখনো সভ্য সমাজের কালচার হতে পারে না। সে জন্য বিখ্যাত দার্শনিক সেক্সপিয়র সুন্দর বলেছিলেন,”একজন ছেলে কখনো একজন মেয়ের বন্ধু হতে পারে না,কারণ এখানে আবেগ আছে, দৈহিক আকাঙ্ক্ষা আছে। “
একটি আদর্শ জাতিকে সমূলে ধ্বংসের প্রকৃত দায়ী হল, যারা ইউটিউব চ্যানেল বা হরেক রকম প্রচার মাধ্যম দ্বারা  ফ্রী মিক্সিং এর প্রমোট করে। এবং যারা বিবাহ বহির্ভূত প্রেম -প্রীতিকে অব্যাহতভাবে স্বর্গীয় বন্ধুত্ব বলে প্রচার চালায়, আর যে সব বুদ্ধিজীবীরা অবাধ মেলামেশাকে ব্যাক্তি স্বাধীনতা বলে অবহিত করে।
প্রিয় অভিভাবকরা, আপনাদের সামান্য অবহেলায় নষ্ট হয়ে যেতে পারে তাদের উজ্জ্বল ভবিষ্যত, এমনকি বিপন্ন হতে পারে তাদের সুন্দর জীবন।
তাই, আদর, সোহাগ আর আহ্লাদের পাশাপাশি সন্তানকে যথাযথ শাসন এবং ধর্মীয় ও নৈতিক শিক্ষা দিন। আর তা নাহলে, পরম মমতায় আগলে রাখা আপনাদের আদরের সন্তানটিও সঙ্গদোষে হয়ে উঠতে পারে অন্ধকার পথের যাত্রী। আল্লাহ সবাইকে বুঝার তাওফীক দান করুক। আমীন।
সহকারী শিক্ষক, খরুলিয়া উচ্চ বিদ্যালয়,খরুলিয়া, সদর, কক্সবাজার।

এই বিভাগের আরও খবর

  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com