1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :

আরাফ-ফাহাদ তেলাওয়াতে কোরআন প্রতিযোগিতা

  • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ৯ জুলাই, ২০১৫
  • ৩৩ দেখা হয়েছে
82980f541792121ec666b7d368779384_L আমিরাত প্রবাসীদের সন্তানদের নিয়ে আয়োজিত ‘আরাফ-ফাহাদ তেলাওয়াতে কোরআন প্রতিযোগিতা’ ২০১৫ এর গ্র্যান্ড ফাইনাল ৭ জুলাই শারজার রায়ান হোটেলের হলরুমে অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় হোটেল প্রাঙ্গণ মুখর ছিল উৎসুক অভিভাবক এবং কমিউনিটির বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার প্রবাসীদের পদচারণায়। বিচারকের আসনে ছিলেন আমিরাত এবং বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে আসা

স্বনামধন্যকারীরা। প্রায় ২শ প্রতিযোগীকে পেছনে ফেলে প্রথম স্থান অধিকার করেছে জামিল আহমেদ, দ্বিতীয় সাদিয়া আহলাম, তৃতীয় হাসান মহিবুর রহমান। বিজয়ীদের গোল্ড মেডেল, সার্টিফিকেট ও যথাক্রমে পাঁচ হাজার, তিন হাজার ও দুই হাজার দিরহাম পুরস্কার দেয়া হয়। সমাপনী অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন মোস্তফা মাহমুদ। প্রধান অতিথি ছিলেন কনসাল জেনারেল মাসুদুর রহমান, বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রথম সচিব (শ্রম) একেএম মিজানুর রহমান, বক্তব্য রাখেন মাজহারুল ইসলাম মাহবুব, সৈয়দ আবু আহাদ, এমএ বাশার। সত্যি বলতে আমাদের অভাব একটু উদ্যোগের। আড্ডার ছলে ছোট একটি উদ্যোগ এত বড় আয়োজনে পরিণত হবে তা আয়োজকরাও কল্পনা করতে পারেননি। আল্লাহর অপার মহিমায় প্রথমবারের মতো প্রবাসীদের সন্তানদের নিয়ে আল্লাহর কোরানের এ প্রতিযোগিতা সারা আমিরাতে এতটাই সাড়া ফেলেছে তা দেখে আয়োজকরাও বিস্মিত। সমস্ত আমিরাত প্রবাসী যেন এই একটি সুযোগের জন্যই অপেক্ষা করছিলেন। অন্যথায় এত অল্প সময়ের প্রচারণায় এত প্রতিযোগীর অংশগ্রহণ সম্ভব হতো না। আল্লাহ কিছু মানুষকে প্রাচুর্য দেন কিন্তু মন দেন না, আবার কাউকে মন দেন কিন্তু অর্থশূন্য রাখেন। পৃথিবীতে ভাগ্যবান খুব অল্প মানুষই আছেন যাদের আল্লাহ দুটোই দিয়েছেন। সেই কিছু সৌভাগ্যবানদের একজন হলেন আহাদ ফাউন্ডেশনের কর্ণধার ক্যাপ্টেন সৈয়দ আবু আহাদ এবং আল বোরাক গার্মেন্টসের স্বত্বাধিকারী মাজহারুল ইসলাম মাহবুব। আহাদ ফাউন্ডেশন  প্রায় ১০ বছর ধরে আমিরাতে সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ধর্মীয় এবং বিভিন্ন দাতব্য প্রতিষ্ঠানে সার্বিকভাবে সহযোগিতা করে আসছেন, যা আমিরাত প্রবাসীর অনেকেই অবগত। শুধু আমিরাতে নয়, দেশেও এই ফাউন্ডেশন ঠিক একইভাবে এতিমখানা, মসজিদ মাদ্রাসা এবং বিভিন্ন সামাজিক উন্নয়নমূলক কাজে সরাসরি সহযোগিতা করে আসছেন। আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করে ক্যাপ্টেন সৈয়দ আবু আহাদ বলেন, আগামীতে এ প্রতিযোগিতার প্রচার প্রচারণা লম্বা সময় নিয়ে চালানোসহ আমিরাতের প্রতিটি প্রদেশে অডিশন রাউন্ড এবং টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচারের ব্যবস্থা করা হবে।
পাশাপাশি আল বোরাক গার্মেন্টসের স্বত্বাধিকারী নিষ্কলুক চেহারার সহজ সরল মানুষ মাজারুল ইসলাম মাহবুব সাবলীল ভাষার ছোট্ট বক্তব্যের একটি কথা সবাইকে মুগ্ধ করে। তিনি বলেন, আল্লাহ যদি আমাদের হায়াত এবং তৌফিক দান করেন তাহলে এখন থেকে প্রতিমাসে কোরআনের এ আয়োজন আরো বড় পরিসরে করার জন্য প্রতিমাসে আমরা যেভাবে কর্মচারীদের বেতন দিই সে রকম একটা নির্দিষ্ট পরিমাণ অঙ্ক সঞ্চয় করে রাখব। আর আহ্বায়ক এমএ বাশার তার সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে এই আয়োজন সফলভাবে শেষ করতে পারার জন্য আল্লাহর কাছে শুকরিয়া জ্ঞাপন করছিলেন। তিনি বলেন, আসলে আল্লার কাজে এমনি হয়। কিছুদিন আগে শারজাহ স্টেডিয়ামে বিশাল এক আয়োজনে আহ্বায়ক হিসেবে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভ‚মিকা রেখেছিলেন। তিনি এই আয়োজন আরো বড় পরিসরে আগামী বছরগুলোয় করার জন্য আল্লাহর সাহায্য চান। আর যারা অক্লান্ত পরিশ্রম করে এই প্রতিযোগিতাকে যারা সফল করে তুলেছেন সবাইকে তিনি ধন্যবাদ জানান। এ সফল আয়োজনে মেধা এবং শ্রমের অংশীদার ছিলেন মোস্তফা মামুন, ইসমাইল গনি চৌধুরী, এমদাদ হোসেন, জহিরুল ইসলাম, ইঞ্জিনিয়ার সহিদ, মাহবুবুর রহমান, ইঞ্জিনিয়ার জাহাঙ্গীর আলম, শহিদুল ইসলাম সাচ্চু, শাহ মোহাম্মদ মাকসুদ, পারভেজ, রফিকুল্লাহ গাযালী, আফতাব, মেহেদী, সোহেল, ইসমাইলসহ অনেকেই।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com