1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :

ঈদগাঁও-ঈদগড়-বাইশারী সড়ক যোগাযোগ বিছিন্ন জনদুর্ভোগ চরমে।

  • আপডেটের সময় : রবিবার, ৫ জুলাই, ২০১৫
  • ৪০ দেখা হয়েছে

মো. আবুল কাশেম, ঈদগড় :
গেল টানা বৃষ্টিতে পাহাড় হতে নেমে আসা ঢলে ঈদগাঁও-ঈদগড়-বাইশারী সড়ক যোগাযোগ বিছিন্ন হয়ে গেছে ।যার ফলে ঈদগাঁও-ঈদগড়-বাইশারী-আলীকদম-গর্জনিয়া ৫টি ইউনিয়নের দুই লক্ষাদিক মানুষের জীবনে নেমে এসেছে চরম দুর্ভোগ।সরেজমিন পরিদর্শন করে দেখা গেছে, ঈদগাঁও -ঈদগড়-বাইশারী সড়কের একাদিক স্থান পানিতে তলিয়ে গিয়ে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে। ভোমরিয়াঘোনা এলাকার কিছু অসাধু ব্যক্তি সিন্ডিকেট করে একটি বাঁশের সাকু তৈরি করে লোকজনের কাছ হতে অযুক্তিক টাকা আদায় করছে রীতিমত।এমন কি প্রতিজন প্রতি হতে ১০ টাকা এবং মালের বস্তাপ্রতি ২০ টাকা হারে আদায় করছে।মিজানুর রহমান নামে ঈদগাঁও এলাকার এক ব্যক্তি প্রতি গাড়ী হতে ১০০-২০০ টাকা পর্যন্ত ভাঙ্গনের স্থান হতে আদায় করছে বলে অভিযোগ রয়েছে।এই সড়ক ভাঙ্গনকে কেন্দ্র করে ঈদগড়-বাইশারী বাজারে নিত্যপন্য দ্রব্যের বাজারে আগুন ধরেছে।প্রতিদিন লাফিয়ে বাড়ছে কাঁচা পন্যের মূল্য।কাঁচা মরিচ,বেগুন,টমেটো,শসা,পেঁয়াজ হতে শুরু করে প্রতিটি পন্যের মূল্য ১০-২০ টাকা পাশ্ববর্তী ঈদগাঁও বাজারের চেয়ে বেশী দামে বিক্রি হচ্ছে।পবিত্র রমজান মাসে লোকজন নিরুপায় হয়ে বেশী মূল্য দিয়ে কিনতে বাধ্য হচ্ছে বলে জানান একাদিক ক্রেতা।একাদিক ব্যবসায়ী জানান,আমারা ঈদগাঁও-চকরিয়া-কক্সবাজার জেলার বিভিন্ন এলাকা হতে কাঁচামাল নিয়ে ঈদগড় বাজারে এনে বিক্রি করি,ক্রয়কৃত মূল্য হতে কেজি প্রতি ১-২ টাকা পর্যন্ত লাভ করে বিক্রি করি। সড়ক ভাঙ্গনের আগে ঈদগাঁও থেকে ঈদগড় বাজারে আনতে বস্তা প্রতি ভাড়া দিতে হত ২০ টাকা কিন্তু ভাঙ্গনের পর হতে বস্তা প্রতি লেবার ও গাড়ীভাড়া দিতে হচ্ছে ১০০ টাকার বেশী।তাই আমরা কিছু টাকা ক্রেতাদের কাছ হতে বাড়িয়ে নিচ্ছি বলে জানান ব্যবসায়ীরা।একাদিক যাত্রীদের সাথে কথা বলে জানাগেছে, ঈদগড় থেকে ঈদগাঁও যেতে গাড়ীভাড়া দিতে হতে জনপ্রতি মাত্র ২০টাকা কিন্তু সড়ক বিছিন্ন হওয়ার পর হতে ঈদগড়-ঈদগাঁও যেতে গাড়ী ভাড়া গুনতে হচ্ছে ৬০ টাকা করে। এছাড়া ও পাঁয়ে ঁেহটে যেতে হচ্ছে অর্ধ কিলোমিটার রাস্তা।স্থানীয় এলাকাবাসীর অভিযোগ,প্রতিবছর ঈদগাঁও-ঈদগড় সড়কের ভোমরিয় ঘোনা এলাকার এই স্থানটি বর্ষাকাল আসলে ভেঙ্গে যায়, দুর্ভোগ পোহাতে হয় সাধারন লোকজনকে। এই ভাঙ্গনকে কেন্দ্র করে সাঁকু তৈরি করে কিছু লোক পথচারীদের কাছ হতে প্রতিবছর অন্যায় ভাবে টাকা আদায় করছে। সড়কটির এই স্থানটি বর্ষাকালে নদীর পানি সড়কের উপর দিয়ে প্লাবিত হয়ে ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়।এর অন্যতম কারন হচ্ছে গত ছয় বছরের অধিক সময় ধরে নদীর ভেরীবাঁধ ভেঙ্গে গেছে সেখান হতে পানি এসে এই অবস্থার সৃষ্টি হলে ও পানি উন্নয়ন বোর্ড এই পর্যন্ত কোন ধরনের সংস্কারের পদক্ষেপ নেইনি।বর্তমানে সড়কের এমন নাজুক অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে যে,ঈদগড় থেকে ঈদগাঁও যেতে ৩০ মিনিটের পথ এখন যেতে এক ঘন্টার অধিক সময় অতিবাহিত হচ্ছে।তাই সাধারন পথচারীদের দাবী সড়ক কতৃপক্ষ যাতে এই সড়ক সংস্কারের দ্রুত পদক্ষেপ নেই।

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com