1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :

ঈদগড়ে বন বিভাগের উচ্ছেদ অভিযান ঘর হারিয়ে খোলা আকাশের নিচে ১৫ পরিবার

  • আপডেটের সময় : রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬
  • ১৩ দেখা হয়েছে


রামু প্রতিনিধি ঃ
কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগের ঈদগড় রেঞ্জের উচ্ছেদ অভিযানে ঘর হারিয়ে বর্তমানে খোলা আকাশের নিচে মানবতার জীবন যাপন করতেছে ১৫ পরিবার । জানাযায় উচ্ছেদ কৃত পরিবারের মধ্যে ১০ পরিবার ১৯৯৭ সালের প্রলয়নকরী ঘুর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসের কবলে পড়ে সর্বস্ত হারিয়ে মহেশখালী উপজেলা ধলঘাটা ইউনিয়ন থেকে ঈদগড় উপরের খীল এলাকায় আসলে ভূমিদস্যু আবুল হোসেন (প্রকাশ আবু সদর)আশ্রয় দেওয়ার কথা বলে প্রতি পরিবাররের কাছ থেকে ২০/৩০ হাজার টাকা নিয়ে লিখিত ষ্টাম্পে চুক্তি নামা
দিয়ে তার অবৈধ দকল কৃত সরকারী রিজার্ভ বন ভূমিতে বস বাসের সুযোগ করে দেন। কিছু চুক্তি নামায় স্বাক্ষী হিসাবে স্থানীয় এক জনপ্রতিনিদির স্বাক্ষর ও রয়েছে। পরবর্তীতে উল্লেখিত পরিবারের কাছ থেকে মাসিক মাসোহারা নিতেন এক সময় পরিবার গুলো মাসোহারা দিতে অনিহা প্রকাশ করিলে ভূমিদস্যু (আবু সদর) ও স্থানীয় কিছু বন খেকো মিলে বন বিভাগ কে দিয়ে আমাদের মাথা গূজার শেষ সম্ভল টুকু কেড়ে নেন বলে জানান অলিউল ইসলাম,মো ইজাজুল হাসান,হাফেজ আহাং.ফাতেমা খাতুন সহ আর অনেকে। সরেজমিনে পরিদর্শনে দেখা যায় ১৫ পরিবারে প্রায় এক শত জনসংখ্যা রয়েছে তার মধ্যে অদিকাংশই কোমলমতি শিশু উচ্ছেদের কারনে ছোট ছোট শিশুদের আর্থনাদে আকাশ বাতাস ভারী হয়ে উঠছে ।
কান্না জড়িত কন্ঠে ঘর হারা দোস্ত মোহাম্মদ বলেন অনেক কষ্টে দিন মজুরি কাজ করে ছেলে মেয়েদের লেখা পড়া করাচ্ছিলাম ভাগ্যের নির্মম পরিহাস আমি সহ অনেকের ছেলে মেয়েদের লেখা পড়া বর্তমানে অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। দোস্ত মোহাম্মদের ৭ম শ্রেনী পড়–য়া মেয়ে রিয়া মনি বলেন উ”্ছদে অভিযানের সময় কতৃ পক্ষের পায়ে ধরে কান্না করেছি যাতে আমাদের বাড়ীর সৌর বিদ্যুৎটি নিয়ে না যায় অন্তত খোলা আকাশের নিচে হলেও পড়ালেখা করে আমার পিতার কষ্টে অর্জিত শ্রমের মুল্য দিতে পারি। আমরা আজ বড় অসহায় আমি ও এখানে যারা শিক্ষার্থী আছে তারা সরকারের কাছে আকুল আবেদন জানাচ্ছি আমাদের মাথা গূজার ঠাই টুকু যেন পাই।ভুক্তভোগী কামাল হোছেন জানান আমাদের পাশাপাশি (আবু সদরের)বাড়ি হলে ও রহস্য জনক কারনে বন বিভাগ তার বাড়িটি উচ্ছেদ করেনি। জাতীয় মানবাধিকার ইউনিটি ঈদগড় শাখার সভাপতি সাংবাদিক মোঃ আবুল কাসেম জানান এই বর্ষা মৌসুমে ঘর হারা কোমলমতি শিশুদের ভবিষ্যৎ চিন্তা করে পুর্নবাসনের প্রয়োজন অন্যতায় মানবাধিকার লঙ্ঘনের সামিল । সুত্র আরো জানায় ভূমিদস্যু (আবু সদর) পার্বত্য বাইশারীর ভোটার হলে ও ঈদগড় রেঞ্জের আওতায় প্রায় ১০০ একর বন ভূমি দখল করে বড়ই,লিচু ও কলা বাগান করলে ও বন বিভাগের কোন ভুমিকা চোখে পড়েনি। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত আবুল হোছন (আবু সদর) জানান উচ্ছেদের কবলে পড়া ২ টি বাড়ী ৬০ শতক জমি আমি বিক্রি করেছি। ঈদগড় রেঞ্জ কর্মকর্তা এমদাদুল হক জানান (আবু সদরের)বিষয়টা আমি জানিনা তবে সু নির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে আমি প্রয়োজনীয় ব্যাবস্তা নেব। ঘর হারা ১৫ টি পরিবার দাবি জানিয়ে বলেন সরকার যেন আমাদের পুর্নবাসনের ব্যবস্তা করে দেয় ও ভূমিদস্যু (আবু সদরের) কাছ থেকে ক্ষতিপুরনের ব্যাবস্তা করে দেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com