1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :

উখিয়া ১০ হাজার ভোটারের তথ্য যাচাই বাছাইয়ের কাজ শেষের পথে, বাদ পড়ছে অনেকে

  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৫
  • ১০ দেখা হয়েছে

উখিয়া প্রতিনিধি :
কক্সবাজারেরর উখিয়ায় সদ্য সমাপ্ত হওয়া ভোটার আগ্রহীদের সংগৃহীত তথ্যাবলি বিশেষ কমিটি কর্তৃক যাচাই বাছাই কাজ চলছে। চলবে ২০ আগষ্ট পর্যন্ত। যাচাই বাছাই কাজ সম্পন্ন হওয়ার পর শুরু হবে বাছাইকৃতদের ছবি উঠানোর কাজ। ছবি উঠানোর সময় চুড়ান্ত ভাবে আরেক দফা যাচাই করা হবে। ইতিমধ্যে উখিয়ার ৫টি ইউনিয়নের মধ্যে ৩টি ইউনিয়নের তথ্য ফরম যাচাই কালে প্রায় ২৫০ জন ভোটার আগ্রহী বাদ পড়েছে বলে নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে। উখিয়ায় অতিরিক্তে দায়িত্বপ্রাপ্ত টেকনাফ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা নুরুল ইসলাম বলেন, মিয়ানমার নাগরিক রোহিঙ্গা অধ্যুষিত হওয়ায় নির্বাচন কমিশন এখানকার ভোটার আগ্রহীদের জন্য বিশেষ ফরমের ব্যবস্থা নিয়েছে। কক্সবাজার জেলার ৮ উপজেলা সহ চট্টগ্রাম, ৩ পার্বত্য জেলার ৩৭ টি উপজেলাকে বিদেশী নাগরিক ভোটার মুক্ত রাখতে বিশেষ স্পর্শকাতর এলাকা হিসাবে বিবেচনা নিয়েছে। প্রথম পর্যায়ে কক্সবাজার সদর, মহেশখালী ও উখিয়া উপজেলার ভোটার তথ্য সংগ্রহের কাজ গত ২৫ জুলাই থেকে ৯ আগষ্ট পর্যন্ত চলে। এসময়ের মধ্যে এবার উখিয়ার জালিয়াপালং ইউনিয়নে ২০৮১ জন, রতœাপালং ইউনিয়নে ১৩০৫ জন, হলদিয়াপালং ২২৩৫ জন, রাজাপালং ইউনিয়নে ২৭৮৫ জন ও পালংখালী ইউনিয়নে ১৩৯০ জন সহ মোট ৯ হাজার ৭৯৬ জন ভোটার তথ্য ফরম পূরন করেছে। নির্বাচন কমিশন রোহিঙ্গাদের ভোটার তালিকার বাইরে রাখতে বিশেষ তথ্য ফরমে আগ্রহী ভোটারদের মা-বাবা, চাচা-ফুফু, ভাই-বোনের জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি, জায়গা জমি সংক্রান্ত কাগজপত্র, তা না থাকলে সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক প্রদত্ত ভূমিহীন সনদ, জন্ম নিবন্ধন ও জাতীয়তা সনদ সহ ১৩ প্রকারের কাগজপত্র সংযুক্ত করার বিধান রেখেছে। সে অনুযায়ী কোন রোহিঙ্গা বা বিদেশী নাগরিক ভোটার তালিকাভূক্ত হওয়ার সুযোগ নেই বলে নির্বাচন কর্মকর্তা জানান।
এত কিছুর পরও আরো অধিকতর যাচাই বাছাইয়ের জন্য নির্বাচন কমিশন বিশেষ স্পর্শকাতর ঘোষিত এসব এলাকার জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার, সহকারী কমিশনার (ভূমি), থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, ডিজিএফআই, এনএসআই, এসবি, আনসার ও ভিডিপি প্রতিনিধি, সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান ওয়ার্ড সদস্য ও গ্রাম পুলিশের প্রতিনিধি সমম্বয়ে গঠিত বিশেষ কমিটি কর্তৃক সংগৃহিত তথ্য ফরম সমূহ যাচাই বাছাইয়ের কাজ চালাচ্ছে। উক্ত কমিটি ইতি মধ্যে জালিয়াপালং, রতœাপালং ও হলদিয়াপালং ইউনিয়নের ভোটার যাচাই বাছাইয়ে কাজ সম্পন্ন করেছে। এ তিন ইউনিয়নে ৫ হাজার ৬২১ জন তথ্য ফরম পূরন করেছে। তম্মধ্যে যাচাই কালে প্রাথমিক ভাবে প্রায় আড়াই শত ভোটার ফরম বাতিল করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা নুরুল ইসলাম বলেন, যাচাই বাছাই কালে যে সব আবেদন ফরম অসম্পুর্ণ ও দাখিলকৃত কাগজপত্র সন্দেহ হয়েছে সে গুলো যাচাই করে প্রাথমকি ভাবে বাতিল করা হয়েছে। তবে এ গুলোর ব্যাপারে আপিলের সুযোগ রয়েছে। আপিলে যথাযথ কাগজপত্র দেখানোর সাপেক্ষে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com