1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :

উপকূল অতিক্রম করেছে কোমেন : সারাদেশে নিহত ৪

  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ৩১ জুলাই, ২০১৫
  • ১৬ দেখা হয়েছে

বাংলাদেশের উপকূলবর্তী ৪ জেলায় ঘূর্ণিঝড় কোমেন-এর প্রভাবে চার জেলায় অন্তত চারজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। তবে ঘূর্ণিঝড়টিউপকূল অতিক্রম করে এখন অনেকটা দুর্বল হয়ে পড়েছে। বর্তমানে স্থলভাগ অতিক্রমের ফলে ঝড়ো হাওয়া বইছে উপকূলজুড়ে। কোমেন শুক্রবার সকাল ৬টায় সন্দ্বীপের কাছ দিয়ে চট্টগ্রাম উপকূল অতিক্রম করে। এ কারণে সমুদ্র বন্দরগুলো এবং উপকূলীয় অঞ্চলে বিপদ সংকেত নামিয়ে সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। উত্তর দিকে সরে গিয়ে ঘূর্ণিঝড়টি বর্তমানে দুর্বল হয়ে স্থল নিম্নচাপ হিসেবে নোয়াখালী ও তৎসংলগ্ন স্থলভাগ এলাকায় অবস্থান করছে। আবহাওয়া অধিদফতর এক বুলেটিনে এই তথ্য জানিয়েছে।ঘূর্ণিঝড় কোমেন-এর প্রভাবে শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের কোথাও কোথাও ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে। অতি ভারি বৃষ্টির কারণে চট্টগ্রাম বিভাগের পাহাড়ি এলাকায় কোথাও কোথাও ভূমিধসের সম্ভাবনা রয়েছে বলেছে আবহাওয়া অধিদফতর জানায়। এর আগে ঘূর্ণিঝড়টি উপকূল অতিক্রম করার পর আরও পশ্চিম উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে বৃষ্টি ঝরিয়ে ক্রমান্বয়ে দুর্বল হয়ে পড়ে। চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরগুলোকে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত নামিয়ে ৩ নম্বর বিপদ সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। উপকূলীয় জেলা কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর, ভোলা, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠী, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা ও এর অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরগুলোও ৩ নম্বর বিপদ সংকেতের আওতায় থাকবে। বৃহস্পতিবার সকালে সচিবালয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিষয়ক জরুরি আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা শেষে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জাল হোসেন চৌধুরী মায়া জানিয়েছেন, উপকূলের দিকে ধেয়ে আসা ঘূর্ণিঝড় ‘কোমেন’ মোকাবেলার জন্য সরকার সম্পূর্ণ প্রস্তুত। পর্যাপ্ত ত্রাণও রয়েছে।আবহাওয়া অফিস আরও জানিয়েছে, ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে উপকূলীয় জেলা কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর, ভোলা, বরিশাল, পটুয়াখালী, বরগুনা, ঝালকাঠী, পিরোজপুর, খুলনা, বাগেরহাট, সাতক্ষীরা ও এর অদূরবর্তী দ্বীপ, চরগুলোর নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৩ থেকে ৫ ফুট অধিক উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হতে পারে। দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার জন্য ইতোমধ্যে অভ্যন্তরীণ নৌ-রুটে যাত্রীবাহী নৌযান চালাচল বন্ধ করে দিয়েছে বিআইডব্লিউটিএ। সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদফতরের আওতাধীন উপকূলীয় জেলাগুলোতে ফেরি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা, ট্রলার ও সমুদ্রগামী জাহাজকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলেছে আবহাওয়া বিভাগ।

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com