1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
শিরোনাম :
আমি মরে গেলে আমার সব সৃষ্টি ধ্বংস করো- কবীর সুমন রাত ৮টায় এল ক্লাসিকো যুদ্ধে বার্সা-রিয়াল করোনায় আরও ১৯ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১০৯৪ সাংবাদিকনেতা গাজীর মুক্তির দাবিতে কক্সবাজারে মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ কক্সবাজার প্রধান সড়ক বিএস মতে সড়ক বিভাগের অধিগ্রহণকৃত জমিতেই নির্মিত হবে ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও প্রধান বিচারপতির শোক দুঃসময়ে আইনি লড়াইয়ে এগিয়ে আসেন ব্যারিস্টার রফিক-উল হক: প্রধানমন্ত্রী সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার রফিক-উল হক আর নেই টেকনাফ পৌর-ছাত্রলীগের বিশেষ জরুরী সভা অনুষ্ঠিত দ্রুত সময়ের মধ্যে সিনহা হত্যা মামলার নিষ্পত্তি: র‌্যাব ডিজি

কাঁচামরিচ আর পেঁয়াজের ঝাঁঝে বেহুঁশ!

  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
  • ৮ দেখা হয়েছে

কক্সবাজার আলো ডেস্ক :
অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি বাজারে আড়াই কেজি মুরগির দামে বিক্রি হচ্ছে এক কেজি কাঁচামরিচ। খুচরা বাজারে ব্রয়লার মুরগির দাম (প্রতি কেজি) ১শ’ ত্রিশ থেকে পয়ত্রিশ টাকা আর এক কেজি কাঁচামরিচের দাম ৩শ’ টাকা। পেঁয়াজের দামও শতকের ঘরে।  পেঁয়াজ আর কাঁচামরিচের ঝাঁঝে বেহুঁশ কাঁচা বাজারগামী কর্তারা।

আলোচিত এই দুই পণ্যের অব্যাহত দাম বৃদ্ধির জন্যে বিক্রেতারা দায়ি করছেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট আমদানিকারক ও উত্তরাঞ্চলের বন্যাকে। আর ভোক্তাদের আঙ্গুল অধিক মুনাফালোভী বিক্রেতা ও সিন্ডিকেটদের। রাজধানীর বাজারগুলোতে ঘুরে দেখা গেছে কেবল কাঁচামরিচ ও পেঁয়াজ নয় দুই মাসের ব্যবধানে আদারও দাম বেড়ে দ্বিগুন হয়েছে।
শুক্রবার রাজধানীর কচুক্ষেত, গুলশান, মহাখালিসহ বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, কাঁচাবাজারে পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকা সত্ত্বেও চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে বেশিরভাগ সবজি। শীতের আগে থেকে কাঁচা বাজার নিম্নমুখী হওয়ার কথা থাকলেও এক সপ্তাহের ব্যবধানে বন্যার অজুহাতে ফুলকপি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকায়। পেঁপে বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকায়। শিমের দামও বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকায়।
প্রতি কেজি সাদা আলু ২৫-৩০, বেগুন ৮০-১০০ টাকা, বাঁধাকপি ৪০-৫০ টাকা, শালগম ৬০-৭০ টাকা, করলা ৬০-৭০ টাকা, টমেটো ১০০-১২০ টাকা, গাজর ৮০ টাকা, মূলা ৪০-৫০ টাকা, শশা ৬০-৮০ টাকা, মিষ্টি কুমড়া ৩০-৪০ টাকা, বরবটি ৮০-১০০ টাকা, ঢেঁড়শ ৯০-১০০ টাকা, কচুরলতি ৬০-৭০ টাকা, প্রতি আঁটি লাউ শাক ৩০ টাকা, লাল শাক ও সবুজ শাক ২৫ টাকা, পালং শাক ৩০ টাকা, পুঁই শাক ২৫ টাকা ও ডাটা শাক ২০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। ব্রোকলি প্রতিটি ৫০-৬০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

গরুর মাংস প্রতি কেজি ৪০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া খাসি ৫৫০-৬০০ টাকা, কেজি প্রতি ব্রয়লার মুরগি ১৩০-১৪০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে।

রাজধানীর খুচরা মাছের বাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রতি কেজি রুই ২৫০-৩০০ টাকা, তেলাপিয়া ১৬০-২৫০, সিলভার কার্প ১২০-১৫০ টাকা, আইড় ৪০০-৫০০ টাকা, গলদা চিংড়ি ৫০০-১১০০ টাকা, পুঁটি ১৮০-২০০ টাকা, পোয়া ৪০০-৪৫০ টাকা, মলা ২২০-৩০০ টাকা, পাবদা ৫০০-৬০০ টাকা, বোয়াল ৩৫০-৫০০ টাকা, শিং ৫০০-৭০০, দেশি মাগুর ৬৫০-৭০০ টাকা, শোল মাছ ৪০০-৬০০ টাকা, পাঙ্গাস ১৪০-১৬০ টাকা, চাষের কৈ ১৫০-২২০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
সুগন্ধি চালের মধ্যে কাটারি ভোগ ৮৫ টাকা, কাল জিরার প্যাকেট পাওয়া যাচ্ছে প্রতি কেজি ১০০-১২০ টাকা। বিক্রেতারা প্রতি কেজি মোটা চাল বিক্রি করছে ৩৫-৪০ টাকা দরে। এছাড়া মিনিকেট ৫০-৫৫ টাকা বিক্রি হচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com