1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
শিরোনাম :
ঈদগাঁওতে অবৈধ গ্যাস সিলিন্ডারের গুদামে ভয়াবহ বিস্ফোরণ : দগ্ধ ২ করোনার অ্যান্টিজেন পরীক্ষায় প্রস্তুত ১০ জেলা লালদিঘী পাড় মসজিদের শুভ উদ্বোধন ও ২৬ জন মুচিকে স্থায়ী দোকান দিলো কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ ইসলামাবাদে হাতির পালের বসতবাড়ী ভাংচুর: চরম আতংকে এলাকাবাসী হিমছড়ি পাহাড়ের সিঁড়ি থেকে পড়ে কিশোরের মৃত্যু প্রথম ধাপে ভাসানচরে পৌঁছেছে ১৬৪২ রোহিঙ্গা একদিনে আরও ২৪ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২২৫২ কর্ণফুলী নদী হতে রোহিঙ্গা ভর্তি ৭টি জাহাজ ভাসানচরের পথে করোনায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে আসাদুজ্জামান নূর করোনা ভ্যাকসিনকে ‌‘বিশ্ব জনপণ্য’ বিবেচনার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

‘কোমেন’র আঘাতে উখিয়ায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ৪ আগস্ট, ২০১৫
  • ১৫ দেখা হয়েছে

ওমর ফারুক ইমরান, উখিয়া প্রতিনিধি :
ঘুর্ণিঝড় কোমেনের প্রভাবে অবিরাম বর্ষন, পাহাড়ী ঢল, সামুদ্রিক জোয়ারে কক্সবাজারের উখিয়ার সর্বত্র গ্রামীণ অবকাঠামোর ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। আমন চাষাবাদের বীজতলা, মৌসুমীর তরি তরকারী, সবজি ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষয় ক্ষতি হয়েছে। বৃষ্টি কমে আসায় পানি নেমে যাওয়ায় এখানকার প্রকৃত বিধ্বস্তের চিত্র ফুটে উঠতে শুরু করেছে। সরকারী সংশ্লিষ্ট দপ্তর এখনো এসব ক্ষয় ক্ষতির সঠিক পরিমাপ করতে পারেনি। তবে ইতিমধ্যে যে পরিমাণের সরকারী সহায়তা মিলেছে তা তুলনামূলক নগন্য।
ঈদুল ফিতরের দিন থেকে শুরু হওয়া টানা অবিরাম বর্ষন, তন্মধ্যে সমুদ্রের সৃষ্ট লঘু চাপ নিম্ম চাপে পরিনত হওয়া ও পরবর্তীতে ঘুর্ণিঝড় কোমেনে রূপান্তরিত হওয়ায় প্রায় ১০ দিন উখিয়ার নিম্মাঞ্চল সমূহ প্লাবিত হয়ে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। শ্রাবণের স্বাভাবিকের চেয়ে অস্বাভাবিক অতি বর্ষন, ঘুর্ণিঝড়ের প্রভাবে আরো অধিকতর বর্ষণের ফলে এখানকার সর্বত্র নিন্মঞ্চল সমূহে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। উখিয়ার পালংখালী আঞ্জুমান পাড়া, নলবনিয়া, পশ্চিম পালংখালী, রাহামতের বিল, তাজনিমারখোলা, ধামনখালী, দক্ষিণ বালুখালী, রাজাপালং ইউনিয়নের মাছকারিয়া, মধ্য রাজাপালং, খালকাছা পাড়া, মালভিটা, ডিগলিয়াপালং, হিজলিয়া, রতœাপালং ইউনিয়নের কড়ই বনিয়া, চাকবৈঠা, গয়ালমারা, পশ্চিম রতœা, হলদিয়াপালং ইউনিয়নের কুমারপাড়া, চৌধুরীপাড়া, রুমখা, মহাজনপাড়া, পশ্চিম মরিচ্যা, পাগলিরবিল, জালিয়াপালং ইউনিয়নের পাইন্যাসিয়া, লম্বরিপাড়া, সোনাইছড়ি, ঘাটঘর, মনখালী, ডেলপাড়া সহ বিস্তীর্ণ এলাকার নিুাঞ্চল প্লাবিত হয়। এসব এলাকা ছাড়াও বিভিন্ন স্থানে গ্রামীণ সড়ক, রাস্তা, পথ, শতাধিক কাঁচা ঘর, বাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ হয়। অসংখ্য গাছপালা উপড়ে পড়ে স্বাভাবিক জন জীবন অচল হয়ে যায়। অতি বর্ষনে গ্রামীণ এলাকা মওসুমী সবজি ক্ষেত গুলোর ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ফলে হাট বাজার সমূহে তরি তরকারির সংকট বিরাজ থাকায় অস্বাভাবিক হারে মূল্য বৃদ্ধি ঘটছে। উখিয়া সর্বত্র জলবদ্ধতার সৃষ্টি হওয়ায় গো-খাদ্যের সংকট দেখা দিয়েছে।
এতে গবাদি পশুগুলোকে চরম খাদ্য সমস্যায় পড়তে হয়েছে। নাফ নদীর পাড় সংলগ্ন দক্ষিণ বালুখালী, ধামনখালী, রাহমতের বিল, নলবনিয়া, আঞ্জুমান পাড়া’র নদীর জোয়ার ও ঢলের পানিতে প্রায় ২০ হাজার একরের ৩শতাধিক চিংড়ি ঘের তলিয়ে গিয়ে ব্যাপক ক্ষয় ক্ষতি হয়েছে। প্রায় ২ সপ্তাহ টানা বর্ষনের কারণে খেটে খাওয়া, দিনমজুর শ্রেণীর লোকজনদের পড়তে হয়েছে আর্থিক টানা পোড়নে। এ দিকে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকার সঠিক পরিমাপ করা এখনও সংশ্লিষ্ট সরকারী অফিস গুলোর পক্ষে সম্ভব হয়নি। উখিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিল্লোল বিশ্বাস বলেন, উখিয়ায় সাম্প্রতিক প্রবল বর্ষন, পাহাড়ি ঢল ও ঘুর্ণিঝড় কোমেনের প্রভাবে প্রায় আড়াই শতাধিক পরিবারের সাড়ে ৬ হাজারের মতো লোকজন ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। তবে এ সংখ্যা আরো বাড়তে পারে। তিনি বলেন ইতিমধ্যে ক্ষতিগ্রস্থ লোকজনের সহায়তার জন্য ০৫ মেট্রিকটন চাউল ও নগদ ৩০ হাজার টাকা বরাদ্দ পাওয়া গিয়াছে। যা ক্ষতিগ্রস্থদের ক্ষতির তুলনায় অত্যান্ত অপ্রতুল। হিসাব করে দেখা গেছে, ক্ষতিগ্রস্থ লোকজন প্রতি যে পরিমাণের ত্রাণ বরাদ্দ ও সহায়তা এসেছে সে অনুযায়ী জনপ্রতি চাউল বরাদ্দের পরিমাণ সাড়ে ৭শ গ্রাম ও নগদ টাকার পরিমাণ সাড়ে ৪ টাকা। তবে তিনি বলেন, ক্ষতির পরিমাণ নিরূপন করার পর স্থানীয় ক্ষতিগ্রস্থ লোকজন, ঘর বাড়ী, রাস্তা ঘাট সহ গ্রামীন অবকাটামো উন্নয়নে বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে।

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com