1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :

চকরিয়ায় ঈদের বদলে জেল ও ফেরারি জীবনে বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীরা

  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ১৭ জুলাই, ২০১৫
  • ১৮ দেখা হয়েছে

এ.এম হোবাইব সজীব : 
ঈদুল ফিতর আসন্ন। হয়ত আজকে চাঁদ দেখা গেলে রাত পোহালেই  আগামীকাল শনিবার মুসলিমদের  সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর উৎর্যাপিত হবে। কিন্তু  কক্সবাজারের চকরিয়ায় পৌর সভা ও উপজেলা পর্যায়ে বিএনপি-জামায়াতসহ ২০ দলের বেশির ভাগ নেতাকর্মী ঈদের খুশির পরিবর্তে ডজন ডজন মামলা নিয়ে পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন ফেরারি জীবনযাপন করছেন। কিছু আছেন কারাগারে বন্দী। ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করতে সবাই যখন নতুন জামাকাপড় কেনায় ব্যস্ত তখন এসব নেতাকর্মী ও তাদের পরিবারের বেশির ভাগ সময় কাটছে আদালতে মামলার তদবিরে। স্ত্রী ও সন্তানদের ঈদের আনন্দ বিষাদে পরিণত হচ্ছে। মামলার তদবিরে অনেক পরিবার দিশেহারা। যারা জামিনে আছেন তাদের মাসে কমপেক্ষ চার-পাঁচ দিন আদালতে হাজিরা দিতে হয়। পলাতক অবস্থায় অনেকে অসহায় জীবনযাপন করছেন। অনেকের ব্যবসায়-বাণিজ্য ইতোমধ্যে বন্ধ হয়ে গেছে। অনেকে চাকরি হারিয়েছেন। এর সাথে যোগ হয়েছে ঈদে পুলিশি গ্রেফতার আর অর্থ বাণিজ্য।
দলীয় ও পুলিশ সূত্র জানায়, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি জাতীয় নির্বাচনের আগে ও পরে রাজনৈতিক সহিংসতায় বিএনপি-জামায়াত নেতাকর্মীদের নামে ডজন খানিক মামলা দায়ের হয়। ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ, সরকারি কাজে বাধা, রাষ্ট্রদ্রোহিতা, নাশকতা সৃষ্টি ও নাশকতা সৃষ্টি চেষ্টার অভিযোগসহ বিভিন্ন অভিযোগে এসব মামলা দায়ের করা হয়। ইতোমধ্যে বেশির ভাগ মামলার চার্জশিট দাখিল করা হয়েছে। বাকি মামলার অভিযোগপত্র শিগগিরই দাখিল করা হবে বলে জানা গেছে।
২০ দলের নেতাদের অভিযোগ, একজন নেতার নামে একটি থানায় মামলা দায়ের হলে তাকে গ্রেফতার করার পর আরো ৫-৭টি মামলায় শ্যোন অ্যারেস্ট করা হয়। ফলে একটি মামলায় জামিন হলেও অন্যান্য মামলায় তাকে কারাগারে থাকতে হচ্ছে। এ পর্যন্ত একাধিক মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি হয়েছেন এবং বর্তমানে পলাতক রয়েছেন চকরিয়া পৌর বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব নুরুল ইসলাম হায়দার, উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এম মোবারক আলীসহ বিএনপির অঙ্গ সংঘটনের অর্ধশতাধিক পৌরসভাও উপজেলার পর্যায়ের নেতাকর্মী । ২০ দলের শরিক খেলাফত মজলিস ও বিজেপি নেতাকর্মীদের নামেও মামলা রয়েছে।
জামায়াতের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উপজেলা পর্যায়ের এক জন র্শীষ নেতা বলেন, সারা দেশকে সরকার একটি কারাগার বানিয়েছে। কারাগারে ২০ দলের নেতাকর্মী ছাড়া আর কেউ নেই। ভোটের অধিকার আদায় করতে গিয়ে সরকার আমাদের হাজার হাজার নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে আন্দোলনকে বন্ধ করার ষড়যন্ত্র করছে। এভাবে কোনো সরকারই টিকে থাকতে পারেনি। ইতিহাস স্বাক্ষী এ সরকারও পারবে না। এমনকি তারা পবিত্র রমজান মাসে এই জালিম সরকার রোজাদার মা-বোনদের গ্রেফতার করতেও দ্বিধা করেনি। তিনি বলেন, রিমান্ডের নামে নির্যাতনে অনেকে অসুস্থ ও অস্বাভাবিক জীবনযাপন করছেন। তাদের ঠিকমতো চিকিৎসারও সুযোগ দেয়া হচ্ছে না। মামলায় জর্জরিত এসব নেতাকর্মী অসহায় জীবনযাপন করছেন।
চকরিয়া পৌর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক শাহাজাহান মনির জানান, দমন নিপীড়ন করে অতীতে কেউ ক্ষমতায় থাকতে পারেনি। আমাদের নেতাকর্মীদের ওপর নির্যাতন মামলা হয়েছে। অনেক পরিবার নিঃস্ব হয়ে গিয়েছে। তারপরও দলের আদর্শ থেকে কেউ বিচ্যুত হয়নি। তিনি জানান, সবচেয়ে কষ্টের বিষয় হচ্ছে, দলের মধ্যে যারা গরিব, হতদরিদ্র বেছে বেছে গ্রেফতার ও মিথ্যা মামলা দিয়ে তাদের পরিবারকে নিঃস্ব করা হচ্ছে। এই প্রেক্ষাপটে জেলে থাকা অনেক নেতাকর্মীর পরিবারের ভরণপোষণ ও সন্তানদের লেখাপড়ার খরচ দলকেই বহন করতে হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com