1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
  4. bblythe20172018@mail.ru : traceyhowes586 :

জেলা শ্রমিক লীগ সভাপতি জহির ও কুদরত মেম্বারকে গুলি

  • আপডেট : শনিবার, ৬ নভেম্বর, ২০২১
  • ২১২ দেখা হয়েছে
ছৈয়দ আলম, কক্সবাজার আলো : 
জাতীয় শ্রমিক লীগ কক্সবাজার জেলা শাখার সভাপতি জহিরুল ইসলাম সিকদার ও তার ছোট ভাই ঝিলংজা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বর্তমান মেম্বার ও প্রার্থী কুদরত উল্লাহ সিকদারকে গুলি করেছে অজ্ঞাত সন্ত্রাসীরা।
শুক্রবার (৫ নভেম্বর) রাত ১০টার দিকে শহরের প্রবেশদ্বার লিংকরোডস্থ কুদরত মেম্বারের অফিসে গিয়ে প্রথমে একটি ককটেল বিস্ফোরন করেন এরপর দুর্বৃত্তরা গুলি করে পালিয়ে যায়। তাৎক্ষণিক কারো পরিচয় শনাক্ত করা যায়নি।
স্থানীয়রা উদ্ধার করে আহত দুইজনকে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। তারা আশঙ্কাজনক হওয়ায় রাত ১২ টা ৫০ মিনিটে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে। এ ঘটনায় কুদরত মেম্বারের ড্রাইভার আবু বক্কর ছিদ্দিককেও সন্ত্রাসীরা আহত করেছে।
আহত আবু বক্কর জানান, সন্ত্রাসীরা মুখোশপড়া ছিল আমাকে প্রথমে বেধে অফিস থেকে বের করে আরেকটা জায়গায় নিয়ে গিয়েছিলেন। তিনি সেখান থেকে কোনরকম পালিয়ে রক্ষা পায়। এরপর দেখি ওরা দুইজন গুলিবিদ্ধ।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিউল্লাহ আনসারী জানান, নির্বাচনী আক্রোশে প্রতিপক্ষ লিংকরোড একই ওয়ার্ডের লিয়াকত আলী গং এ ঘটনা ঘটিয়েছে। তাৎক্ষনিক রাতে কক্সবাজার শহরে হামলাকারীদের সনাক্ত করে গ্রেপ্তারের দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে শ্রমিক লীগ। তিনি আরো জানান, কুদরত উল্লাহ সিকদার ঝিলংজা ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের বর্তমান মেম্বার। আগামী ১১ নভেম্বর অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনেও তিনি মেম্বার পদপ্রার্থী।
কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি শেখ মুনীর উল গীয়াস জানান, আহত দুইজনের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাদের চট্টগ্রাম পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ রয়েছে সিসিটিভির ফুটেজ সংগ্রহের কাজ চলছে। এ ঘটনায় জড়িতদের আইনের আওতায় আনা হবে। উল্লেখ্য, ভোটের আগে এমন কিছু ঘটনার আশঙ্কা প্রকাশ করে কয়েকদিন আগে নির্বাচন কর্মকর্তাকে লিখিত অভিযোগ দিয়েছিলেন কুদরত উল্লাহ সিকদার।
প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী লিয়াকত আলীও এমন ঘটনার আশঙ্কা প্রকাশ করে পাল্টা অভিযোগ দিয়েছিলেন। এরই প্রেক্ষিতে কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি তাদের নিয়ে থানায় বসেছিলেন সমাধান করার জন্য। এক পর্যায়ে লিয়াকত আলীর বেগতিক কথা দেখে ওসি চা না খেয়ে বসা থেকে উঠে গিয়েছিলেন বলে জানিয়েছেন ওই বৈঠকে থাকা ঝিলংজা ইউপির ১নং ওয়ার্ড মেম্বার।
জেলা শ্রমিক লীগের দপ্তর সম্পাদক এম ওসমান গণি জানান, এ ঘটনা পূর্ব পরিকল্পিত আমরা তাৎক্ষনিক শহরে বিক্ষোভ মিছিল করেছি। দ্রুত সন্ত্রাসীদের আটক না করলে জেলাব্যাপী শ্রমিকলীগের নেতাকর্মীদের দুর্বার আন্দোলন করা হবে।
এ রিপোর্ট লেখাকালিন রাত ১টায় কক্সবাজার সদর রামুর সাংসদ সাইমুম সরওয়ার কমল লিংকরােডস্থ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর
© ২০১৪ - ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত।
Site Customized By NewsTech.Com