টেকনাফে আইনশৃংখলা ও চোরাচালান প্রতিরোধ টাস্কফোর্স কমিটির সভা

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ … টেকনাফ উপজেলা আইন শৃংখলা ও চোরাচালান প্রতিরোধ টাস্কফোর্স কমিটির সভায় বর্তমানে চলমান মাদক বিরোধী অভিযানে ইয়াবা গডফাদারদের তালিকা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছে। তবে সকল বক্তাই বর্তমানে চলমান মাদক বিরোধী অভিযানের জন্য সরকারকে সাধুবাদ জানিয়ে তা অব্যাহত রাখার দাবি করেছেন। ২৮ জুন সকাল ১১টায় টেকনাফ উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে এ সভা অনুষ্টিত হয়। সভা দু’টির সভাপতিত্ব করেন টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রবিউল হাসান।
সহকারী কমিশণার (ভুমি) প্রণয় চাকমা, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মিস তাহেরা আক্তার মিলি, হোয়াইক্যং ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ আলহাজ্ব মাওঃ নুর আহমদ আনোয়ারী, হ্নীলা ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এইচকে আনোয়ার সিআইপি, বাহারছড়া ইউপি’র চেয়ারম্যান প্যানেল-১ আবুল কাসেম মেম্বার, সেন্টমার্টিনদ্বীপ ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব নুর আহমদ, টেকনাফ সদর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ শাহজাহান মিয়া, মহিলা বিষয়ক অফিসার মোঃ আলমগীর কবির, টেকনাফ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রনজিত কুমার বড়–য়া, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর টেকনাফ সার্কেলের পরিদর্শক মোঃ মোশাররফ হোসেন, কমিটির সদস্য আলহাজ্ব জহির হোসেন এমএ, আলহাজ্ব সোনা আলী, বাংলাদেশ কোস্টগার্ড বাহিনীর প্রতিনিধি বক্তব্য রাখেন।
সভায় উপদেষ্টার বক্তব্যে উপজলো চেয়ারম্যান আলহাজ্ব জাফর আহমদ বলেন ‘বর্তমানে টেকনাফ সীমান্তে ইয়াবা ইস্যু ভয়াবহ এবং ব্যাপক আকার ধারণ করেছে। এটি এখন জাতীয় সমস্যায় পরিণত হয়েছে। ইয়াবা দুইভাবে প্রসার লাভ করছে। একটি হচ্ছে ইয়াবা গডফাদার। যারা ইয়াবার বড় বড় চালান এনে দেশের বিভিন্ন স্থানে সুকৌশলে সরবরাহ করছে। আরেকটি হচ্ছে স্থানীয় সিন্ডিকেট। এরা অপেক্ষাকৃত ছোট ছোট চালান এনে বিভিন্ন মাধ্যমে পাচারের পাশাপাশি খুচরা বিক্রি করছে। প্রথমটির বিরুদ্ধে সরকার অভিযান শুরু করলেও ২য় গ্রুপ তাদের ব্যবসা নির্বিঘেœই চালিয়ে যাচ্ছে। তাছাড়া তালিকায়ও গরমিল রয়েছে। অনেকেই ইয়াবা ব্যবসা করে, কিন্ত তালিকায় নাম না থাকায় অবাধে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। আবার অনেকে ব্যবসা করেনা, কিন্ত তালিকায় নাম আছে। নতুন করে তালিকা হালনাগাদ করা জরুরী হয়ে পড়েছে। স্থানীয় ইয়াবা সিন্ডিকেট, ব্যবসায়ী, খুচরা বিক্রেতা ও সেবনকারীদের তালিকা তৈরী করতে হবে। পাশাপাশি সকল প্রকার ক্রাইমের বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা জোরদার করতে হবে।
সহকারী কমিশণার (ভুমি) প্রণয় চাকমা বলেন ‘টেকনাফ সদর ইউনিয়নের রাজারছড়ায় সংরক্ষিত বনাঞ্চল থেকে ব্যাপক হারে অবৈধভাবে পাথর উত্তোলণ করা হচ্ছে। এতে স্থানীয় বাসিন্দা নুর মোহাম্মদ এবং কিছু অসাধু বনকর্মী জড়িত’।
হোয়াইক্যং মডেল ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ আলহাজ্ব মাওঃ নুর আহমদ আনোয়ারী বলেন ‘মাদক বিরোধী চলমান অভিযানের শুরুতে গা ঢাকা দিলেও বর্তমানে ইয়াবা ব্যবসায়ীরা আবারও এলাকায় ফিরে প্রকাশ্যে ঘুরছে। এদের অনেকের হাতেই অবৈধ অস্ত্র রয়েছে’।
হ্নীলা ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এইচকে আনোয়ার সিআইপি বলেন ‘চোরাচালন, ইয়াবা ব্যবসা,সন্ত্রাসীদের তৎপরতা বেড়েছে। রোহিঙ্গা ডাকাতসহ অবৈধ অস্ত্রধারীরা সংগঠিত হচ্ছে। কিন্ত কোন অভিযানই দেখা যাচ্ছেনা। প্রশাসনের নিষ্ক্রীয়তায় হ্নীলা স্টেশনের যানজটসহ সব মিলে মানুষ আমাদের ধিক্কার দিচ্ছে’।
সেন্টমার্টিনদ্বীপ ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব নুর আহমদ বলেন ‘দ্বীপে খুচরা ইয়াবা ব্যবসা ও সেবন বৃদ্ধি পেয়েছে। কিছু দুষ্কৃতিকারী পরিষদের সালিশ রায় মানছেনা। ইউপি সচিব না থাকায় নিয়মিত সভা করা সম্ভব হচ্ছেনা’।
টেকনাফ সদর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ শাহজাহান মিয়া বলেন ‘টেকনাফে নেতৃত্ব দিচ্ছে ৩টি পরিবার। অথচ বিশেষ মহল কালো টাকা ব্যবহার করে মাদকের বিরুদ্ধে সোচ্চার এই ৩টি পরিবারের নামে সুকৌশলে ষড়যন্ত্রমুলক ইয়াবা তালিকাভুক্ত করে সামাজিকভাবে হেয়-প্রতিপন্ন করছে। সরকারের মহৎ উদ্যোগ নস্যাৎ করার পাঁয়তারা করছে। যা খুবই দুঃখজনক। মরণ নেশা ইয়াবা চিরতরে বন্দ করতে সরকারের অভিযান সফল বাস্তবায়নে নিরপেক্ষ ও সচ্ছভাবে তালিকা করা হউক’।
কমিটির সদস্য আলহাজ্ব সোনা আলী বর্তমানে চলমান মাদক বিরোধী অভিযানের জন্য সরকারকে সাধুবাদ জানিয়ে বলেন ‘তালিকার বাইরে থাকা অকেকেই বেপরোয়াভাবে অবাধে ইয়াবা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। চলমান অভিযান সফল করতে যৌথ বাহিনী গঠন করা দরকার। এতে অন্ততঃ নির্মূল করা সম্ভব না হলেও নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে’।
কমিটির সদস্য আলহাজ্ব জহির হোসেন এমএ বলেন ‘নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি কতৃক তৈরী করা অপরাধীদের তালিকা অবশ্যই নিঃসন্দেহে গুরুত্বপুর্ণ। তাছাড়া পুলিশ, বিজিবি, কোস্টগার্ড, র‌্যাব সমন্বয় করে অভিযান পরিচালনা করা হলে ভুল হওয়ার সম্ভাবনা কম হবে। মানুষ হয়রানী থেকে বাঁচবে’।
সভাপতির বক্তব্যে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রবিউল হাসান তাঁর বক্তব্যে যানজট নিরসন, ইউনিয়ন পর্যায়ে নিয়মিতভাবে গুরুত্ব সহকারে সকলের অংশগ্রহণে আইনশৃংখলা ও মাদক বিরোধী সভা অনুষ্টান, রোহিঙ্গা বিয়ে কঠোরভাবে প্রতিরোধ, ঝুঁকিতে বসবাসরতদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে আনা, মসজিদ সমুহে মাদকের কুফল নিয়ে আলোচনা, পোনা নিধন, মোবাইল কোর্ট ইত্যাদি বিষয়ের উপর গুরুত্বারোপ করেন। আলোচনা শেষে বিভিন্ন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। ##

উপদেষ্টা সম্পাদক : হাসানুর রশীদ
চেয়ারম্যান : মুহাম্মদ শাহজাহান

নির্বাহী সম্পাদক : ছৈয়দ আলম

যোগাযোগ : ইয়াছির ভিলা, ২য় তলা শহিদ সরণী, কক্সবাজার। মোবাইল নং : ০১৮১৯-০৩৬৪৬০

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য অধিদপ্তরে নিবন্ধনের জন্য আবেদিত

Email:coxsbazaralo@gmail.com

© 2016 allrights reserved to Sarabela24.Com | Desing & Development BY PopularITLtd.Com, Server Manneged BY PopularServer.Com