1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :

টেকনাফে আবারো ইয়াবার বেপরোয়া অনুপ্রবেশ

  • আপডেটের সময় : শনিবার, ৮ আগস্ট, ২০১৫
  • ৫ দেখা হয়েছে

 সাদ্দাম হোসাইন, হ্নীলা ॥

টেকনাফে ইয়াবা ব্যবসায়ীরা আবারোindex বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। কয়েক মাস আগে আইন-শৃংখলা বাহিনীর ইয়াবা বিরোধী যৌথ অভিযানে পুরো এলাকায় গহীন বনের মতো নীরব-নিস্তব্ধ হয়ে উঠেছিল। জাতির প্রাণশক্তি বিনষ্টকারী ইয়াবা ব্যবসায়ীদের বেশীর ভাগই গা ঢাকা দেয়ায় স্বস্থি ফিরে আসে জন-জীবনে। কৌশলগত কারণে ইয়াবা ও মাদকবিরোধী অভিযান কিছুটা শিথিল হয়ে পড়ে। এই সুযোগে আবারো ইয়াবা ব্যবসায়ীরা সরকার এবং আইন-শৃংখলা বাহিনীর সঙ্গে চ্যালেঞ্জ ঘোষণা করার মতো করে ইয়াবা বিক্রি তুলনামুলক বাড়িয়ে দিয়েছে। ইয়াবা বহনকারীর সংখ্যা ক্রমশ বৃদ্ধি পাওয়ায় গত কয়েকদিনে আইন-শৃংখলা রক্ষী বাহিনীর হাতে ইয়াবার বড় বড় চালানসহ বেশ কয়েকজন আটক হওয়ায় সচেতনমহলে আবারো নতুন করে ইয়াবা আতংক দেখা দিয়েছে। গত কয়েকদিন ধরে টেকনাফের বিভিন্ন স্থান থেকে টেকনাফ ৪২ ব্যাটালিয়ন বিজিবির জওয়ানেরা অভিযান চালিয়ে বেশ কয়েকটি ইয়াবার বড় বড় চালান আটক করে এতে কোন অপরাধী আটক না হওয়ায় বিজিবির অভিযান নিয়েও প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।
অপরদিকে সচেতন মহল দীর্ঘদিন থেকে মাদকের বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের পক্ষে দৃঢ় অবস্থান নেয়ার আহ্বান জানালেও কার্যত কিছুই হচ্ছে না। বলার অপেক্ষা রাখে না, সংঘবদ্ধ প্রভাবশালী চক্র এবং অবৈধ অর্থের সম্পৃক্ততার কারণেই কোন সুরাহা হচ্ছে না। হাজারো ঘটনার মধ্যে ছিঁটে-ফোটা দুয়েকটি ঘটনায় যারা ধরা পড়ে তারা বাহক মাত্র। আইনের নানা ফাঁকফোকর গড়িয়ে গডফাদারদের পোষা এজেন্ডদের কারণে তারা আবার বেরিয়ে আসে। এ ক্ষেত্রে আইনগত দুর্বলতার প্রসঙ্গটিও এড়িয়ে যাওয়া যাবে না। এতে করে ইয়াবা বহনকারীর সংখ্যা ক্রমশ বৃদ্ধি পাওয়ায় গত কয়েকদিনে আইন-শৃংখলা রক্ষী বাহিনীর হাতে ইয়াবার বড় বড় চালানসহ বেশ কয়েকজন আটক হয়।
সূত্রমতে, ইয়াবা বিরোধী অভিযানে আইন শৃংঙলা বাহিনী ও ইয়াবা কারবারীদের মধ্যে একাধিক বন্দুক যুদ্ধে চিহ্নিত শীর্ষ ইয়াবা গডফাদার সহ বেশ কয়েক জন হতাহতের ঘটনা ঘটে। ফলে ক্রসফায়ার আতংকে ইয়াবা ব্যবসায় জড়িত টপ টু বটম সবাই এলাকা ছেড়ে দেশ বিদেশে পালিয়ে গেছে। পুরো উপজেলার সবখানে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের অবৈধ মোটর সাইকেলের জনজনানি উধাও এবং প্রভাব কমতে থাকে। এতে সাধারণ মানুষের কদরও সাথে সাথে বাড়তে থাকে। মানুষ স্বস্থির নিঃশ্বাস ফেলতে থাকে। সুকৌশলী মাদক ব্যবসায়ী নামের কিছু মানবতার শত্রুু রাতারাতি এলাকায় ফিরে আবারও সেই চিরচেনা অবৈধ ইয়াবা ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েছে। আগের মত অবৈধ মোটর সাইকেলের ছড়াছড়িতে সাধারণ মানুষের চলাচলে আবারও নাভিশ্বাস হয়ে উঠেছে। টেকনাফের জনজীবনে অস্বস্থিকর সেই পরিস্থিতি পুনরায় ফিরে এসেছে। মাদক ব্যবসায়ীদের কারণে টেকনাফবাসী তথা জাতি আজ কলংকিত হয়ে গেছে। যুব সমাজ ধ্বংসের কিনারায় পৌছে গেছে। জাতিকে ইয়াবার করাল গ্র্রস থেকে মুক্ত করতে ইয়াবা বিরোধী প্রশংসনীয় প্রশাসনিক চিরুনী অভিযান আবার জোরদার করে তা অব্যাহত রাখতে হবে। প্রয়োজনে ইয়াবা নির্মূলে নতুন আইন প্রনয়ণ, গণগ্রেফতারের মাধ্যমে জামিন অযোগ্য করে আগামী প্রজন্ম রায় যুগোপযোগী কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে হবে। অন্যথায়,টেকনাফের ভবিষ্যতের কান্ডারী তথা নতুন প্রজন্মের অস্তিত্ব হুমকির মুখে পড়বে বলে মনে করছেন সচেতন মহল। তাই টেকনাফের শিতি সমাজ জরুরী ভিত্তিতে ইয়াবা রোধে আবারও প্রশাসনের কঠোরতা কামনা করেছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com