1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
  4. bblythe20172018@mail.ru : traceyhowes586 :
শিরোনাম :
সবার প্রচেষ্টায় উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে যোগ্যতা অর্জন: প্রধানমন্ত্রী করোনাভাইরাসে একদিনে আরও ৫ মৃত্যু, শনাক্ত ৪০৭ কাউন্সিলর কাজী মোরশেদ আহম্মদ বাবুর মৃত্যুতে কক্সবাজার শহর জামায়াতের শোক কক্সবাজারে ৬ বছর ধরে ফুটবল ও ক্রিকেট লীগ হচ্ছে না কাউন্সিলর কাজী মোরশেদ আহমদ বাবু’র জানাজায় শোকাহত মানুষের ঢল চকরিয়ায় পিকআপ চাপায় দুই মোটর সাইকেল আরোহী নিহত, আহত ১ কাউন্সিলর কাজী মোরশেদ আহমদ বাবু’র মৃত্যুতে এমপি কমলের শোক প্রকাশ আমিরাতের শারজায় “মদিনা আল খাইর সুপার মার্কেটে”র শুভ উদ্বোধন বাম ছাত্র সংগঠনের মশাল মিছিলে পুলিশের লাঠিচার্জ, টিয়ারশেল তিনদিন মৃত্যুর সাথে লড়াই করে হেরে গেলেন কাউন্সিলর কাজী মোরশেদ আহমদ বাবু

টেকনাফ পৌর ষ্টেশন মাছ বাজার দালালদের দখলে

  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
  • ২৪ দেখা হয়েছে

সাইফুদ্দিন মোহাম্মদ মামুন, টেকনাফ :
টেকনাফ পৌরসভার ষ্টেশন মাছ বাজার দালালদের দখলে। দালালের দৌরাত্নার কারনে ভোক্তারা মাছ ক্রয় করতে পাচ্ছেনা। ভোক্তার চেয়ে দালালের সংখ্যা বেশী। নাফ-নদী ও সাগর থেকে জেলেরা মাছ আহরন করে বাজারে আসার পর এ মাছ ভোক্তাদের কাছে আসতে তিন বার হাত বদল করে আসে। ফলে মাছের দাম বৃদ্ধি হয়ে যায়। এছাড়া ও আহরিত মাছ জেলেরা বাজারে নিয়ে আসলে এ মাছ দালালের কারণে ভোক্তারা ক্রয় করতে পারেনা। দালালেরা মাছ বিক্রেতাকে মৃত গরুকে যেমন শুকুন আকড়ে ধরে টিক তেমনি দালালেরা ও মাছ ব্যবসায়ীকে আকড়ে ধরে। আর এ কারনে মাছ ব্যবসায়ী ও দালালের যোগসাজশে মাছের মূল্য বৃদ্ধি করে দেয়। ভোক্তা অধিকার আইন অনুযায়ী যে সব পণ্য বা মাছ সরকারীভাবে ইজারা দেয়া বাজারে পণ্য এবং মাছ বিক্রিত স্থানে ব্যবসায়ীরা নিয়ে আসে সে সব  পণ্য বা মাছ ভোক্তাদের। এ ভোক্তা অধিকার আইন অমান্য করে প্রতিনিয়তই দালালেরা ভোক্তাদের পণ্য বা মাছ মূল্য বৃদ্ধি পূর্বক বা অর্থ জোরে তাদের নিয়ন্ত্রনে নিয়ে যাচ্ছে। এ ক্রয়কৃত মাছ ডবলদামে বিক্রি করছে। মাছ বেছাকেনা মাছ ব্যবসায়ীদের মধ্যে প্রায় সময় হাতাহাতি এবং মারামারী করতে দেখা গেছে। এছাড়া মাছ ও তরিতকারী ব্যবসায়ীরা এ সুযোগকে কাজে, লাগিয়ে সিন্ডিকেট গঠন করে পণ্যের দাম বৃদ্ধি করে রাখে। ফলে ভোক্তাদের অতিরিক্ত দাম দিয়ে পণ্য বা মাছ ক্রয় করতে বাধ্য হয়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ব্যবসায়ীরা জানায় বাজার অতিরিক্ত নীলাম, টোল এবং প্রধান সড়ক দিয়ে আসা পণ্যের উপর সংশ্লিষ্ঠদের চাঁদা বা বখশিস দেয়ার কারনে পন্যের দাম বৃদ্ধি হয়ে যায়। যার খেশারত দিতে হচ্ছে, ভোক্তাদের এককথায় ভোক্তারা ব্যবসায়ী  ও দালালের কাছে জিম্মি। সরকারীভাবে বাজার মনিটরিং ব্যবস্থা থাকলেও এটি নামকাওয়াস্তে। এতেও ভোক্তারা তেমন সুফল পাচ্ছেনা। ভোক্তাদের অর্থ ওরা সুকৌশলে হাতিযে নিচ্ছে। দেখার কেউ নেই।

এই বিভাগের আরও খবর

  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com