1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
  4. bblythe20172018@mail.ru : traceyhowes586 :

পেকুয়ায় বেড়িবাঁধের ধ্বস ঠেকাতে লড়ছেন ছিরাদিয়ার মানুষ : জরুরী পদক্ষেপ কামনা

  • আপডেটের সময় : বুধবার, ২২ জুলাই, ২০১৫
  • ৯৪ দেখা হয়েছে

এস.এম.ছগির আহমদ আজগরী, পেকুয়া :
কক্সবাজারের পেকুয়ায় বেড়িবাঁধের ধ্বস ঠেকাতে দিন রাত লড়ছেন ছিরাদিয়ার মনিূষ। ঘটনাটি ঘঠেছে, গত ১৮জুলাই শনিবার পবিত্র ঈদুল ফিতরের দিন উপজেলার সদর ইউনিয়নের খরশ্রোতা মাতামুহুরী নদী সংগ্লন্ন দূর্গম ছিরাদিয়া এলাকায়। জানা যায়, সম্প্রতি ছিরাদিয়া গ্রামের জেটিঘাট সংগ্লন্ন অবহেলিত খাসপাড়া এলাকার বেড়িবাঁধের ঝুঁকিপূর্ণ অংশে স্প্র্যা ও বালির বস্তায় সংষ্কারের পদক্ষেপ চেয়ে স্থানীয় ইউএন’র মাধ্যমে ডিসি বরাবরে আবেদন জানান। জেলা প্রশাসন উক্ত আবেদনের জনগুরুত্ব বিবেচনায় বিষয়টির অনুকুলে জরুরী বরাদ্ধের জন্য কক্সবাজার-১ (চকরিয়া-পেকুয়া) আসনের সংসদ সদস্য জাপা নেতা আলহাজ¦ মুহাম্মদ ইলিয়াছ এম.পি’র কাছে সুপারিশ প্রস্তাব করেন। এতে সাড়া দিয়ে কক্সবাজার-১ (চকরিয়া-পেকুয়া) আসনের সংসদ সদস্য জাপা নেতা আলহাজ¦ মুহাম্মদ ইলিয়াছ এম.পি পেকুয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের খরশ্রোতা মাতামুহুরী নদী সংগ্লন্ন দক্ষিণ ছিরাদিয়া খাসপাড়া জেটিঘাট এলাকার বেড়িবাঁধের ঝুঁকিপূর্ণ অংশে স্প্র্যা ও বালির বস্তা বসাতে আবেদনকারী সমাজকর্মী মোঃ নাজিরুল ইসলাম লালা মিয়া’র অনুকুলে ১লক্ষ ৮০হাজার টাকা নগদ সহায়তার বরাদ্ধ মঞ্জুর করেন। বিষয়টির অনুমোদন খবরে স্বস্তি, সন্তোষ ও সাধুবাদ জানিয়ে স্থানীয়রা তাদের সমাজ কমিটির কল্যাণ তহবিলে রক্ষিত অর্থকে ধার হিসাবে পুঁজি ঘোষনা করে আরম্ভ করেন প্রকল্পটির কাজ। প্রায় ১০/১৫দিন যাবত একটানা কাজ চালিয়ে সম্পন্নও করেন মাননীয় সংসদ সদস্যের বরাদ্ধের প্রকল্পের কাজ। কিন্তু সম্প্রতি টানা বর্ষন, উজানের ঢল আর সাগরের জোঁ’র জোয়ারের পানি বৃদ্ধির কারণে উপজেলার সদর ইউনিয়নের মাতামুহুরী নদী সংগ্লন্ন এলাকার বিস্তির্ণ বেড়িবাঁধের একাধিক পয়েন্টে ভাংগন ও ধ্বসের ফাটল দিয়ে লোকালয়ে অবাধে পানি প্রবেশের জের ধরে উপজেলার কয়েকটি গ্রামের নি¤œাঞ্চল হয় বন্যাক্রান্ত। ইতিমধ্যে পবিত্র ঈদুল ফিতরোপলক্ষে ওই এলাকায় বেড়াতে আসা অসংখ্য লোকজনের হাটাহাটির চাঁপ আর জো’র জোয়ার ভাটার পানির তোড়ে আক্রান্ত হয়ে মাননীয় এমপি’র বরাদ্ধে সদ্য মেরামতকৃত বেড়িবাঁধের ছিরাদিয়া খাসপাড়া এলাকার নতুন কয়েকটি অংশে ফের দেখা দেয় ভাংগন ও ধ্বস ফাটল। এক পর্যায়ে ঈদের দিন সকালের জোয়ারের সময় অতিরিক্ত জোঁর পানির তোড়ের আঘাতে মুহুর্তে বিলিন হতে শুরু করে বেড়িবাঁধের ছিরাদিয়া খাসপাড়া অংশের বাঁধ ও মাটি। এমনকি চড়তে শুরু করে বেড়িবাঁধের উপর দিয়ে পানি। যার ফলে, তাৎক্ষনিক সেখান দিয়ে বন্ধ হয়ে যায় যান ও জন চলাচল। খবর পেয়ে স্থানীয় সমাজকর্মী মোঃ নাজিরুল ইসলাম(লালা মিয়া) ও ছিরাদিয়া সমাজকল্যাণ সমিতির নেতৃস্থানীয় মোঃ পেচুঁ মিয়ার নেতৃত্বে একদল লোক ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। পরে, তারা স্থানীয়দের পাশাপাশি শতাধিক ভাড়াটিয়া মাটিয়াল শ্রমিক লাগিয়ে নেমে পড়েন বেড়িবাঁধের ভয়াবহ ধ্বস ও ভাংগন ঠেকানোর কাজে। পবিত্র ঈদুল ফিতরের দিনের এ দূর্যোগ মুহুর্তে তাদের সমাজ কল্যাণ সমিতির প্রায় ২লক্ষাধিক টাকা ব্যয়ে প্রায় ২দিন যাবত রাতদিন কাজ চালিয়ে শেষাবধি ঠেকান ছিরাদিয়া জেটিঘাট এলাকার বেড়িবাঁধের ভাংগন ও ধ্বস। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মাননীয় সংসদ সদস্যের বরাদ্ধের প্রকল্পটির কাজ যথাসময়ে শেষ করা হলেও সম্প্রতি টানা বৃষ্টি, উজানের ঢল আর সাগরের জোয়ার ভাটায় জোঁ’র পানি বৃদ্ধির জের ধরে উপজেলার সদর ইউনিয়ন সংগ্লন্ন খরশ্রোতা মাতামুহুরী নদী সংগ্লন্ন এলাকার বিস্তির্ণ বেড়িবাঁধের একাধিক ঝুকিপূর্ণ পয়েন্টে ভাংগন ও ধ্বসের ঘটনায় ওই মহল্লায় নতুন করে দেখা দেয় স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যা। এসময় ছিরাদিয়া খাসপাড়া এলাকার সংষ্কারকৃত বেড়িবাঁধের ৩-৩টি স্থানে ফের দেখা দেয় ভয়াবহ ফাটল ও ধ্বস। এসময়ও সমাজকর্মী মোঃ নাজিরুল ইসলাম লালা ও পেচুঁ মিয়ার নেতৃত্বাধীন লোকজন তাদের সমাজ কল্যাণ সমিতির ফান্ডে জমা থাকা আরো ৩লক্ষাধিক টাকা ধার হিসাবে নিয়ে সেখানে বেড়িবাঁধের ফাটল ও ধ্বস ঠেকাতে ব্যয় করেন। কিন্তু ওই এলাকার বেড়িবাঁধের ভাংগন কবলিত পূর্ব পাশের্^র বেড়িবাঁধের একাধিক অংশে কোন ধরনের সংষ্কার বা মেরামতের কাজ না করায় সেখান দিয়ে জোয়ার ভাটার পানি অবাধে আসা যাওয়া অব্যাহত থাকায় ছিরাদিয়া খাসপাড়া এলাকার সংষ্কারকৃত এলাকাটি হয়ে থাকে ফের ঝুঁকিপূর্ণ। আর এ কারণে কক্সবাজারের পেকুয়ায় বেড়িবাঁধের ধ্বস ঠেকাতে দিন রাত লড়ছেন ছিরাদিয়ার মনিূষ। এনিয়ে স্থানীয়দের দাবী পেকুয়ার বিস্তির্ণ বেড়িবাঁধের টেকসই সংষ্কার উন্নয়ন নিশ্চিত করার পাশাপাশি ভাংগা ও ধ্বসাক্রান্ত ভেড়িবাঁধের মেরামতে জরুরী ব্যবস্থা গ্রহনে সরকার ও স্থানীয় প্রশাসনের আশু পদক্ষেপ কামনা করেছেন। ইউএনও-পেকুয়া মোঃ মারুফুর রশিদ খানের কাছে জানতে চাইলে তিনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বিষয়টি স্থানীয় পর্যায়ের মনিটরিংয়ে রয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর
  • ২০১৪ - ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ‌্য মন্ত্রণালয়ে আবেদিত ।
Site Customized By NewsTech.Com