1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
  4. bblythe20172018@mail.ru : traceyhowes586 :

পেকুয়া সিরাদিয়ায় ব্যক্তিগত ভাবে বেড়িবাঁধ মেরামতের চেষ্টা!দেখার যেন কেউ নেই!

  • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ২ জুলাই, ২০১৫
  • ৬৫ দেখা হয়েছে

IMG_20150702_094956 (Mobile)এফ এম সুমন,পেকুয়া কক্সবাজার :
সম্প্রতি কক্সবাজারের পেকুয়ায় বেড়িবাঁধ ভেঙে ইতিহাসের জগন্যতম বন্যা আঘাত হানে।৬-৭ফিট জলোচ্ছাসে একাকার করে ফেলে পুরো পেকুয়াকে।গৃহহীন হয়ে পড়ে প্রায় ৩০ হাজার মানুষ।কিন্তু এই বেড়িবাঁধ গুলি মেরামত করতে কেউ কি এগিয়ে আসছে না?প্রশ্ন ভুক্তভোগী এই বন্যাপেড়িত মানুষ গুলির।এলাকার বাড়িঘরে জোয়ারে পানি আসে,ভাটায় নামে।তারপর ও দিন দিন বাড়ছে ভাংগার দৈর্ঘ্য।তবু বসে থাকা যায়না সরকার কখন বা বেসরকারি ভাবে কখন মেরামত করবে তা নিয়ে বসে থাকলে,অরণ্য রোধন ছাড়া বেশি কিছু নয়।কে ভাবে কার কথা?আসলে যে হারায় সে বুঝে হায় বিচ্ছেদের কি যন্ত্রণা।পেকুয়া সদর ইউনিয়নের সিরাদিয়া গ্রামের কিছু যুবক ও কিছু  সচেতন মানুষ মিলে সাঝ সকালে বের হয়েছেন বেড়িবাঁধ রক্ষা করতে।নিজেরা মাটি কেটে ও শ্রমিক দিয়ে চেষ্টা করে যাচ্ছেন বেড়িবাঁধ রক্ষা করতে।তবে তারা কি পারবেন?এই বেড়িবাঁধ রক্ষা করতে?তারা সাহায্য চান সরকার বা বেসরকারি কোন সংস্থার।কোন চ্যানেলের সাংবাদিক দেখলেই কেদে ওঠেন ওই অঞ্চলের মানুষগুলি।বলতে চান তাদের এই দুঃখ দুর্দশার কথা।সরকার আসে সরকার যায়।কেন মানুষ গুলির এই নির্মম ভাগ্যের পরিবর্তন হয় না,এই প্রশ্নের জবাব হয়তো কেউ দিতে পারবেনা।তারপর ও এক বুক আশা নিয়ে তাকিয়ে আছেন এই মানুষগুলি।ইতিমধ্যেই পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মারুফ রশীদ খান,পেকুয়া উপজেলা চেয়ারম্যান শাফায়েত আজিজ রাজু ও পেকুয়া সদরের চেয়ারম্যান বাহাদুর শাহ বেড়িবাঁধ পরিদর্শন করেছেন।তারা আশ্বাস দিয়েছেনও তাদের সাথে একাত্বতা ঘোষণা করেছেন।তবে কারা এই উদ্যোগ নিয়ে এখন কাজ করছেন?তারা হলেন, পেকুয়া সিরাদিয়ার মাইনুদ্দিন আহমদ,মমতাজ (সাবেক এম ইউ পি)আব্দুর রশীদ,হারুনুর রশীদ সহ এলাকার আরও অনেক বন্যা পেড়িত মানুষ।কয়েক জনের সাথে কথা বলে জানতে পারি তাদের ক্ষোভের কথা।কেন কেউ এগিয়ে আসছে না।তবে তাদের আশা অতীব তাড়াতাড়ি এই বাধ গুলি মেরামতের সরকারএগিয়ে আসবে।তাহলেই এই অঞ্চলের মানুষ গুলির বাড়িঘর অন্তত রক্ষা পাবে।না হয় জোয়ার ভাটায় তাদের বাড়িঘর বিলীন হয়ে যাবে।

এই বিভাগের আরও খবর

  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com