পেনশন পাবেন না অবৈধ প্রেসিডেন্টরা

অবৈধ ও অসাংবিধানিকভাবে রাষ্ট্রক্ষমতায় যাওয়া প্রেসিডেন্টদের অবসরভাতা এবং অন্যান্য সুবিধা বন্ধ করে নতুন একটি আইন করতে যাচ্ছে সরকার। গতকাল সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে ‘রাষ্ট্রপতির অবসরভাতা, আনুতোষিক ও অন্যান্য সুবিধা আইন, ২০১৫’ এর খসড়ার নীতিগত ও চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন। বৈঠক শেষে অনুষ্ঠিত সংবাদ ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ মোশাররাফ হোসাইন ভূঁইঞা বলেন, ১৯৭৯ সালে তৈরি ‘প্রেসিডেন্টস পেনশন অর্ডিনেন্স’-এ শুধু ছিল, যদি কোন প্রেসিডেন্ট নৈতিক স্খলন বা অন্য কোন অপরাধে আদালতে দণ্ডিত হন তাহলে অবসরভাতা পাবেন না। এখন নতুন আইনের বিধানে বলা হচ্ছে অসাংবিধানিক পন্থায় অবৈধ উপায়ে প্রেসিডেন্ট পদে অধিষ্ঠিত হয়েছেন বা হয়েছিলেন মর্মে আদালত কর্তৃক ঘোষণা হলে তিনি অবসরভাতা, আনুতোষিক ও অন্যান্য সুবিধা পাবেন না। সাবেক দুই প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান বা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ক্ষেত্রে এই নতুন আইন প্রযোজ্য হবে কিনা, এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, আইনে কারো নাম লেখা থাকে না। সাবেক প্রেসিডেন্ট হিসেবে এ দু’জন পেনশন ও গ্রাচ্যুইটি গ্রহণ করছেন না। প্রেসিডেন্ট হওয়ার আগে তারা যে প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ছিলেন সেখান থেকে তারা পেনশন পাচ্ছেন। সামরিক কর্মকর্তা হিসেবে তারা প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে পেনশন পান। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পরিবার পেনশন পাবেন কিনা জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, নতুন আইন অনুযায়ী কোন সাবেক প্রেসিডেন্ট পেনশন না নিলে তিনি তার যোগ্য হবেন। বঙ্গবন্ধু পেনশন গ্রহণ করেননি। তিনি পেনশন পাবেন। আমরা নতুন আইনে কিছু সংজ্ঞা যুক্ত করেছি। অবসরভাতা, গ্রাচ্যুইটি বলতে কি বুঝায়, এগুলো সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে। এ নতুন আইনের বিষয়ে আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক বলেন, অসাংবিধানিক পন্থায় ক্ষমতা দখলকারী হিসেবে জিয়াউর রহমান ও এরশাদ উচ্চ আদালতের রায়ে প্রমাণিত ব্যক্তি। তাই তারা অবসর সংক্রান্ত কোন সুবিধা পাবেন না। বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, জিয়াউর রহমান গণভোটের মাধ্যমে বৈধ প্রেসিডেন্ট হিসেবে প্রতিষ্ঠা পেয়েছেন। এখন বিনা ভোটে নির্বাচিত প্রতিনিধিদের পেনশন সুবিধা নিয়েও নতুন আইন করা প্রয়োজন। এর আগে হাইকোর্ট ২০১০ সালে সংবিধানের ৭ম সংশোধনী বাতিল করে দেয়া এক রায়ে খোন্দকার মোশ্‌তাক আহমাদ, আবু সা’দাত মোহাম্মদ সায়েম, জিয়াউর রহমান এবং এইচ এম এরশাদকে অবৈধ ক্ষমতা দখলকারী বলে বর্ণনা করে। এর মধ্যে জিয়াউর রহমান ১৯৭৭ সালের ২১শে এপ্রিল থেকে ১৯৮১ সালের ৩০শে মে পর্যন্ত ও হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ১৯৮৩ সালের ১১ই ডিসেম্বর থেকে ১৯৯০ সালের ৬ই ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করেন। প্রেসিডেন্টের পেনশন মূল বেতনের ৭৫ শতাংশ ধরা হয় জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, মূল অধ্যাদেশে এ বিষয়ে সর্বনিম্ন অ্যামাউন্ট ৭ হাজার ৫০০ টাকা। ১৯৭৯ সালে যখন এ অধ্যাদেশ করা হয়েছিল তখন প্রেসিডেন্টের বেতন ছিল ১০ হাজার টাকা। তখন এটার দরকার ছিল। এখন সর্বনিম্ন অ্যামাউন্টের আবশ্যকতা নেই। এখন প্রেসিডেন্টের ৬১ হাজার ২০০ টাকা বেতন হিসেবে অবসরভাতা হয় ৪৫ হাজার ৯০০ টাকা। তিনি বলেন, গ্রাচ্যুইটির ক্ষেত্রে নির্ধারিত অংকের সঙ্গে প্রেসিডেন্টরা যে ক’বছর দায়িত্ব পালন করেন তাকে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ৮ দিয়ে গুণ দেয়া হয়। কেউ যদি আট বছরের বেশি দায়িত্ব পালন করতেন তার ক্ষেত্রেও আট দিয়ে গুণ দেয়া হতো। নতুন আইনে আট বছরের সীমা তুলে দেয়া হয়েছে। এর আগে গত ১৫ই ডিসেম্বর আইনের খসড়াটি মন্ত্রিসভায় উঠলে এ দুটি বিষয় পর্যালোচনার নির্দেশ দিয়েছিল মন্ত্রিসভা। এখন এ বিষয়গুলো অন্তর্ভুক্ত করে খসড়াটি আবার নিয়ে এসেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। উল্লেখ্য, বাংলাদেশে প্রেসিডেন্টের পদ থেকে অবসরে যাওয়ার পর অবসরভাতা বা অন্যান্য সুবিধার বিষয়টি নির্ধারিত হয় ১৯৭৯ সালের ‘প্রেসিডেন্টস পেনশন অর্ডিনেন্স’ অনুযায়ী। ১৯৮৮ সালে অধ্যাদেশটি সংশোধন করা হয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পরিবার কখনো অবসরভাতা পায়নি, কারণ ওই আইনটি হয়েছিল ১৯৭৯ সালে। তবে জাতীয় সংসদে নতুন এই আইন পাস হলে বঙ্গবন্ধুর উত্তরাধিকারীরা তা পেতে পারেন। এদিনের সভায় বাংলাদেশ কয়েনেজ (অ্যামেন্ডমেন্ট) অ্যাক্ট-২০১৫ এবং বাংলাদেশ রেশম উন্নয়ন বোর্ড (সংশোধন) আইন-২০১৫ চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়েছে। উৎসঃ   মানবজমিন

উপদেষ্টা সম্পাদক : হাসানুর রশীদ
চেয়ারম্যান : মুহাম্মদ শাহজাহান

নির্বাহী সম্পাদক : ছৈয়দ আলম

যোগাযোগ : ইয়াছির ভিলা, ২য় তলা শহিদ সরণী, কক্সবাজার। মোবাইল নং : ০১৮১৯-০৩৬৪৬০

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য অধিদপ্তরে নিবন্ধনের জন্য আবেদিত

Email:coxsbazaralo@gmail.com

© 2016 allrights reserved to Sarabela24.Com | Desing & Development BY PopularITLtd.Com, Server Manneged BY PopularServer.Com