1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
  4. bblythe20172018@mail.ru : traceyhowes586 :

বদরখালী উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে চিকিৎসা সেবা পাচ্ছেনা রোগীরা

  • আপডেটের সময় : বুধবার, ২৩ ডিসেম্বর, ২০১৫
  • ৩৯ দেখা হয়েছে

এ.এম হোবাইব সজীব :
চকরিয়া উপজেলার উপকূলীয় ইউনিয়ন বদরখালী স্বাস্থ্য উপ-কেন্দ্রে চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম ভেঙ্গে পড়েছে। দায়িত্বরত ডাক্তারের অনিয়ম, রোগীদের সাথে র্দুব্যবহার ও  প্রাইভেট চিকিৎসা বাণিজ্যের কারণে গ্রামঞ্চলের দরিদ্র রোগীরা স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। বর্তমানে উক্ত স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি মেডিকেল অফিসার ডাক্তার ছোটন কান্তি চৌধুরীর প্রাইভেট ক্লিনিকে পরিনত হয়েছে এমন অভিযোগ সচেতন লোকজনের। তিনি জড়িয়ে পড়েছেন চেম্বার বানিজ্যেও। সরকারী নিয়ম নীতিকে তোয়াক্কা না করে  প্রতিদিন হাসপাতালে সময় না দিয়ে উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের পাশ্ববর্তী একটি ফার্মেসীতে চেম্বার বানিজ্যে বেশি সময় দিচ্ছেন বলে জানা গেছে।
জানা যায়, সাগরও নদীবেষ্টিত সমুদ্র উপকূলীয় বদরখালী ইউনিয়নের অর্ধলক্ষ মানুষের এক মাত্র চিকিৎসা সেবা প্রতিষ্ঠান হচ্ছে বদরখালী স্বাস্থ্য উপ-কেন্দ্র। উপকূলীয় অঞ্চলের প্রতিদিন শত শত গরীব রোগীরা চিকিৎসা সেবা নিতে এসে বিড়াম্বনার শিকার হতে হচ্ছে। যারা ডাক্তারকে ফিঃ দিতে পারবে কেবল তিনি তাদেরকে চিকিৎসা সেবা ও ঔষুধ প্রদান করে। স্থানিয় জনগণ অভিযোগ করে বলেন, রোগীদের চিকিৎসা সেবা ও বিনা মূল্যে সরবরাহর কথা থাকলেও বদরখালী উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে তা মানা হচ্ছেনা। টাকা না দিলে চিকিৎসা করে না ডাক্তারা। এমন কি উক্ত স্বাস্থ্য উপ-কেন্দ্রটি প্রাইভেট চেম্বারে পরিণত করছে মেডিকেল অফিসার ডাক্তার ছোটন কান্তি চৌধুরী। অভিযোগ রয়েছে ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে যোগদানের এক বছর পূর্ণ না হতেই উক্ত উপ-কেন্দ্রে ব্যাপক অনিয়ম দুর্নীতির জড়িয়ে পড়ে। চিকিৎসা নিতে এসে অনেক অসহায় রোগী নাজেহালের শিকার হয়েছে। তার চেয়ে উপ-সহকারী মেডিকেল অফিসার ডাঃ তামিম আগত রোগিদের সাধ্যমত চিকিৎসা সেবা  দিয়ে থাকেন বলে জানা গেছে। বদরখালী ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী হামিদুল্লাহ বলেন, চিকিৎসা নিতে এসে টাকা না দিলে ডাক্তার ছোটন  আগত রোগিদের সাথে র্দুব্যবহার করে হাসপাতাল থেকে তাড়িয়ে দেয়। তিনি জড়িয়ে পড়েছেন চেম্বার বাণিজ্যে। তাকে টাকা দিলে চিকিৎসা হয় না দিলে হয়না।
বদরখালী  সাতডালিয়া পাড়া থেকে চিকিৎসা নিতে আসা কাউছার অভিযোগ করে বলেন, সরকারী ভাবে রোগীদের জন্য প্রচুর পরিমান ঔষুধ সরবরাহ করলেও দায়িত্বরত ডাক্তার গরীব রোগীদের না দিয়ে পরিচিত লোকজনদের এবং বিভিন্ন ফার্মেসীতে বিক্রি করে প্রতিনিয়ত হাতিয়ে নিচ্ছে মোটা অংকের টাকা। দায়িত্বশীল সূত্রে জানা যায়, বিগত ৪/৫ মাস আগে শাস্তিমুলক বদলীকৃত এল.এম.এস নাজেম সিভিল সার্জন অফিস থেকে সরকারী বরাদ্দ প্রাপ্ত ঔষুধ বদরখালী স্বাস্থ্য উপ-কেন্দ্রে না এনে কালো বাজারে বিক্রির করার দায়ে এবং মেডিকেল অফিসার ছোটনের অনুপস্থিতির কারনে আগত রোগিকে নিজেকে ডাক্তার পরিচয় দিয়ে ইনজেকশন পুশ করায় ভূল চিকিৎসা দেওয়ায় এক গৃহবধুর গর্ভপাত হয়ে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়েছিল বলে সে সময় ব্যাপক রব উঠে। এল.এমএস নাজেম মেডিকেল অফিসার ডাঃ ছোটনের কাছের লোক হওয়ায় এখানে কর্মরর্ত থেকে আগত রোগিদের চিকিৎসা প্রদান করে কাড়ি কাড়ি টাকা কামিয়ে জড়িয়ে পড়েন দুর্নীতিতে । দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়ায় এলাকার সচেতন লোকজন ফুঁসে উঠায় মেডিকেল অফিসার ডাঃ ছোটনের আস্থাভাজন নাজেম উদ্দিনকে উর্ধ্বতন কৃর্তপক্ষ এখান থেকে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স’ এ নিয়ে আসে।
এ ব্যাপারে বদরখালী উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের মেডিকেল অফিসার ডাক্তার ছোটন কান্তি চৌধুরী’র সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, চেম্বার বাণিজ্যের আনিত অভিযোগ সঠিক নই, তিনি তার সাধ্য মত রোগিদের চিকিৎসা দিয়ে থাকে বলেন।
চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ আব্দু সালাম বলেন, ডাঃ ছোটনের ব্যাপারে আমাকে কোউ অভিযোগ করে নাই, তবে তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সঠিক হলে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা নেওয়া  হবে বলে এ প্রতিবেদকে আশ্বাস দেন। সচেতন স্থানীয় জনগণ গ্রামঞ্চলের অসহায় ও গরীব রোগীদের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করার লক্ষে অবিলম্বে বদরখালী উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে অব্যবস্থপনা ও অনিয়ম দুর্নীতি বন্ধ করার জন্য সিভিল সার্জনের নিকট জোর দাবী জানিয়েছেন।

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com