1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
শিরোনাম :
সাংবাদিক নেতা রুহুল আমিন গাজী গ্রেপ্তার লাইফ সাপোর্টে ব্যারিস্টার রফিক-উল হক টেকনাফে চার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে ৬৫ হাজার টাকা জরিমানা রঙ্গিখালী মিনি টমটম চালক সমিতির পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠিত নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তে বন্দুকযুদ্ধে রোহিঙ্গা মাদক পাচারকারী নিহত,ইয়াবা ও অস্ত্র উদ্ধার শিগগির জেলা ও মহানগর কমিটি ঘোষণা: কাদের করোনায় আরও ২৪ প্রাণহানি, নতুন শনাক্ত ১৫৪৫ স্বাস্থ্যবিধি মেনে কক্সবাজার জেলায় ২৯৯ মন্ডপে অনুষ্ঠিত হবে শারদীয় দুর্গোৎসব জলবায়ুর ন্যায্যতা ও লৈঙ্গিক ন্যায়বিচারের (Gender Justice) দাবিতে সমুদ্র সৈকতে পদযাত্রা (Walk for Survival) করেছে একশনএইড হচ্ছে না মাধ্যমিকের বার্ষিক পরীক্ষা, অ্যাসাইনমেন্টে মূল্যায়ন

বদরখালী নৌ-পুলিশের হাবিলদার নারায়ণের বেপরোয়া চাঁদাবাজি, অতিষ্ট সাধারণ মানুষ

  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ৪ আগস্ট, ২০১৫
  • ৬ দেখা হয়েছে

চকরিয়া প্রতিনিধি :
চকরিয়া উপজেলার বদরখালী নৌ- পুলিশ ফাঁড়ীর এ.টি এসআই (হাবিলদার) নারায়ণ চক্রবর্তীর বেপরোয়া চাঁদাবাজিতে অতিষ্ট হয়ে পড়েছে মহেশখালীর উপজেলার আগত লোকজন সহ এলাকার ব্যবসায়ী ও বদরখালী কেবি জালাল উদ্দিন সড়কে চলাচলরত গাড়ীর ড্রাইভার। বিগত ৫/৬ মাস পূর্বে বদরখালী নৌ- পুলিশ ফাঁড়িতে যোগদানের পর থেকে দায়িত্ব পালন কালিন সময়ে ঘুষ চাঁদাবাজির অভিযোগে বিগত সময়ে বেশ কয়েকবার উধর্বতন পুলিশ কর্তৃপক্ষ তাকে অন্যত্র বদলী করলে ও অবৈধ টাকার জোরে বদলী ঠেকিয়ে বহাল তবিয়তে রয়েছে বলে জানান নাম প্রকাশে অনেকে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক লোকজন জানান, নারায়ণ চক্রবর্তীর ডিউটির অবহেলার কারনে গত রমজান মাসে ঈদে ঘরমূখী মানুষ দরবেশকাটা সড়কে ডাকাতির শিকার হয়। হাবিলদারের ব্যাপক চাঁদাবাজিতে অতীষ্ট হয়ে পড়েছে ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে সাধারণ লোকজন। বেশামাল পাশ্ববর্তী দ্বীপ উপজেলার মহেশখালীর সহ বদরখালী ব্যবসায়ী ও সাধারন জনগন। সুত্রে জানা যায়, এ.টি এস আই (হাবিলদার) নারায়ন চক্রবর্তী বদরখালী নৌ- পুলিশ ফাঁড়িতে যোগদানের পর থেকে দীর্ঘদিন ধরে বদলী হয়নি অদৃশ্য কারনে। সে যে কোন ভাবে উর্ধবতন কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করে অন্যান্য হাবিলদার বেশ কয়েক বার বদলী হলেও সে বদলী ঠেকিয়ে তার চাঁদা বানিজ্য চালিয়ে যাচ্ছে অবাদে।
স্থানিয় লোকজন জানিয়েছেন, যেখানে অপরাধীদের নিয়ন্ত্রনে পুলিশ কাজ করে, সেখানে এই ক্ষমতাধর হাবিলদার ক্যাশিয়ার নামধারী নারায়ণ চক্রবর্তীর ক্ষেত্রে ব্যাতিক্রম। তার বেপরোয়া চাঁদাবাজি থামাবে কে? জনমনে একটি প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে। স্থানিয়রা জানিয়েছে, বদরখালী নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির হাবিলদার নারায়ন চক্রবর্তী ইউনিয়নে ইয়াবা গডফাদার বদরখালী বাজার পাড়ার মাহাবুল আলমের পুত্র জিয়াবুল, দেশিয় মাদক ব্যবসায়ী জেল ফেরৎ কালু, মো: বদয়কে মাদক ব্যবসার হাট স্থাপনের সুযোগ দিয়ে ফাঁড়ির হাবিলদার নারায়ন চক্রবর্তী নিজে প্রতিমাসে হাতিয়ে নিচ্ছে অর্ধ লক্ষ টাকা।
অনুসন্ধানে জানা যায় যে, বিভিন্ন থানায় মামলার আসামী, মাদক ব্যবসায়ী ও কারিগরদের কাছ থেকে মাসিক মাসোহারা নেওয়ার কারনে হাবিলদার নারায়ন চক্রবর্তী বদরখালী নৌ- পুলিশ ফাঁড়িতে পোষ্টিং নেওয়ার পর অদ্যবদি মাদকসহ বিভিন্ন অপরাধের তথ্য গোপন রেখে ও অভিযানের সময় ইয়াবা জিয়াবুল এবং অপরাধীদের সেলফোনসহ বিভিন মাধ্যমে অভিযানের তথ্য ফাঁস করে অপরাধিদের রক্ষা করে চলেছে । এ কারনে কোন সময় ফাঁড়ি কর্তৃক পরিচালিত অভিযানে মাদকসহ কোন অপরাধিকে আটক করতে পারেনা পুলিশ ।
অপরদিকে হাবিলদার নারয়ন চক্রবর্তীর অঘোষিত লাইন্সে বদরখালী বাজার পাড়া এলাকায় মাদকের ব্যবসা রমরমা হয়ে উঠেছে। এসব এলাকায় ৫/৬টি স্পটে হাত বাড়ালেই ইয়াবাসহ মরণনেশা মাদক পাওয়া যাচ্ছে। অনুসন্ধানে জানা গেছে, একটি প্রভাবশালী চক্র এখানে প্রতিদিন হাজার হাজার টাকার মাদক বাণিজ্যে জড়িত। চকরিয়া, মহেশখালী পেকুয়া, বাঁশখালী, আনোয়ারা, সাতকানিয়া, পটিয়া ,রাউজানসহ চট্টগ্রাম জেলার বিভিন্ন স্পটে তারা পাচার করছে মাদকদ্রব্য। অভিযোগ রয়েছে বদরখালী নৌ- পুলিশ ফাঁড়ির হাবিলদার নারায়ণ চক্রর্তীর যোগসাজসে মাদক পাচার অব্যাহত রয়েছে এখানে।
বর্তমানে ইয়াবা,হিরোইন,গাঁজা,আফিন, বার্মিজ মদ রাম, কান্ট্রি, বিয়ারসহ নানা মাদকদ্রব্যের আস্তানায় পরিণত হয়েছে বদরখালীর বাজার পাড়া সহ বাজার এলাকা। কিন্তু বর্তমানে হাবিলদারের নেতৃত্বে বদরখালী এ ব্যবসা সঠিকভাবে পরিচালনা করার জন্য পূর্বে বদরখালী পুলিশ ফাঁড়ি হাবিলদারকে মাসোহারা দিতো ৫ হাজার টাকা। বর্তমানে পদোন্নতি পেয়ে ইয়াবা ব্যবসার জন্য মাসিক মাসোহারা দিচ্ছেন ১০হাজার থেকে ১২হাজার টাকা পর্যন্ত জিয়াবুল। এমনকি ইয়াবা ব্যবসায়ী জিয়াবুল নারায়ণ চক্রবর্তীকে ম্যানেজ করে সাগর পথে কন্ট্রাক্টের মাধ্যমে বড় বড় ইয়াবার চালান পাচার করে আসছে। সরকার ও সংশ্লিষ্ট প্রশাসন মাদক ও মানবপাচার প্রতিরোধে এ্যাকশনে গেলেও বদরখালীর ইয়াবা ব্যবসায়ী জিয়াবুলকে গ্রেফতারে কোনরূপ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছেনা। তাই স্থানীয় সচেতন মহল জানিয়েছেন, বদরখালী বাজার সংলগ্ন ইয়াবা ব্যবসায়ী জিয়াবুলকে গ্রেফতার করলে ওই এলাকায় অনেকটা ইয়াবা ব্যবসা নির্মোল হবে।
বদরখালী নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির নবাগত এ.এস আই আবুল কালাম আজাদের সাথে যোগাযোগ করা তিনি জানান, আমি নতুন যোগদান করায় কোথায় মাদকের হাট স্থাপন করা হয়েছে তা আমার জানা নেই, তবে খোঁজ খবর নেওয়া হচ্ছে। হাবিলদার জড়িত কিনা ও জানি না জড়িত থাকলে উর্ধ্বতন কৃর্তপক্ষকে অবহিত করা হবে।
ফাঁড়ির আইসি এস. আই মোজাম্মেল হক চৌধুরীর সাথে গতকাল তার মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ইয়াবা মাদক ব্যবসায় যারা জড়িত তাদের ব্যাপারে কোন ছাড় নেই তিনি ইয়াবা জিয়াবুলকে গ্রেফতার করার জন্য পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে জানিয়েছেন। তবে হাবিলদারের অভিযোগের ব্যাপারে জানা নেই বলে জানান। চকরিয়া থানার ওসি প্রভাষ চন্দ্র ধরের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, মাদক দ্রব্যের ব্যাপারে কোন ছাড় নেই। তিনি ইয়াবা মাদক ব্যবসায়ীদের গ্রেফতার করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com