1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. joaopinto@carloscostasilva.com : randaldymock :
  3. makaylabeaurepaire@1secmail.com : scotty7124 :
  4. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  5. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
  6. bblythe20172018@mail.ru : traceyhowes586 :
শিরোনাম :
পরিবার নিয়ে দেখা যায় এমন চলচ্চিত্র বানাতে হবে : প্রধানমন্ত্রী টেকনাফে নাফনদীতে গোলাগুলি ; ৫ লক্ষাধিক ইয়াবাসহ অস্ত্র-কার্তুজ ও কিরিচ উদ্ধার ঈদগাঁও ছাত্রলীগের কমিটিতে আসতে নেতাদের লবিং তৎপরতা ইন্দোনেশিয়ায় ভূমিকম্পে নিহত বেড়ে ৫৬, জেগে উঠেছে আগ্নেয়গিরি ঈদগাঁওতে লবনের মাঠে পুরোদমে নেমেছে চাষীরা মেসেজ নয়, সম্পর্ক মজবুত করতে কল করুন বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল : মহেশখালীকে ৩-২ গোলে হারিয়ে সেমিফাইনালে টেকনাফ প্রফেসর মোশতাক আহমদ নাগরিক শোকসভার প্রস্তুতি কমিটি গঠিত চট্রগ্রাম বিভাগের (স্বাস্থ্য) সহকারী পরিচালক হলেন ঈদগাঁও সন্তান ডা: কামরুল ভোট দিতে ‘সহযোগিতা’ করতে গোপন বুথে নৌকার এজেন্ট

বাংলাদেশকে বাদ দিয়ে ‘ভারত-মিয়ানমার-থাইল্যান্ড’ এশিয়ান হাইওয়ে হচ্ছে

  • আপডেটের সময় : বুধবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
  • ২০ দেখা হয়েছে

কক্সবাজার আলো ডেস্ক :
ভারত-মিয়ানমার-থাইল্যান্ডে সড়ক ভারত-মিয়ানমার-থাইল্যান্ডের এই তিন দেশ মিলে ৩২শ কিলোমিটার দীর্ঘ এশিয়ান হাইওয়ে নির্মাণ করতে যাচ্ছে।
আগামী নভেম্বরে নয়াদিল্লি সরকার এ সংক্রান্ত একটি চুক্তিতে সই করবে বলে ‘ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস’ পত্রিকাটি জানিয়েছে। এশিয়ান হাইওয়েকে পাস কাটিয়ে এ সড়ক নির্মাণের পরিকল্পনা করছে ভারত যেখানে বাংলাদেশেরও যোগ দেয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু এখন ওই তিন দেশ মিলে আগেই চুক্তি করতে যাচ্ছে।
সম্প্রতি বাংলাদেশের সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, এশিয়ান হাইওয়ের অংশ হিসেবে বাংলাদেশ থেকে মিয়ানমার হয়ে থাইল্যান্ড দিয়ে চীনসহ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর সঙ্গে যাতায়াতব্যবস্থা সহজ করতে একটি সড়ক নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার বালুখালি থেকে মিয়ানমারের ঘুনধুম সীমান্ত পর্যন্ত দুই কিলোমিটার দীর্ঘ ওই সড়ক নির্মাণে ৫৫ কোটি টাকা ব্যয় হবে বলেও জানা গিয়েছিল। এই সংযোগ সড়ক নির্মাণকাজ শেষ হলে ভারত-বাংলাদেশ-মিয়ানমার-থাইল্যান্ডের মধ্যে সরাসরি যাতায়াত করা যাবে বলে আশা করছেন কর্মকর্তারা।
কিন্তু ভারতীয় পত্রিকাটি বলছে, ত্রিদেশীয় ওই সড়কটি ভারতের মোরেহ থেকে থ্যাইল্যান্ডের মায় সোট এলাকা পর্যন্ত যাবে। এছাড়া অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এই সড়ক নির্মাণ পরিকল্পনা গ্রহণ করতে যাচ্ছেন বলেও জানিয়েছে একসপ্রেস।
এ সম্পর্কে ভারতের সড়ক, পরিবহন ও হাইওয়ে মন্ত্রণালয় সংক্ষেপে মোরথ জানিয়েছে,‘প্রোটোকলের সমস্ত কাজ সম্পন্ন হয়েছে। কেবল শুল্ক বিভাগের কিছু কাজ বাকি আছে। সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠেয় বৈঠকে এ নিয়ে আলোচনা করা হবে। তবে এই সড়ক নির্মাণের জন্য আনুষঙ্গিক অনুমোদন পেতে মিয়ানমারের চার মাস সময় লাগবে। তবে নভেম্বরের মধ্যেই চুক্তিটিতে স্বাক্ষর করবে তিন দেশের সরকার।’
দক্ষিণ এশিয়া এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মধ্যে আঞ্চলিক সহযোগিতার স্বার্থে অবকাঠামো গড়ে তোলার বিষয়টিকে বরাবরই অগ্রাধিকার দিয়ে থাকেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। ওই মন্ত্রণালয়ে এক উর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ত্রিদেশীয় এ সড়কটি মেকং অঞ্চলের সঙ্গে ভারতের উত্তর অংশকে সংযুক্ত করবে। তাই মোদী সরকারের ‘পূবে তাকাও’ প্রচারণার একটি গুরুত্বপূর্ণ অনুষঙ্গ হচ্ছে এই সড়ক।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই কর্মকর্তা আরো বলেছেন,‘ভারত-মিয়ানমার-থাইল্যান্ডের মধ্যে এই মহাসড়কটি নির্মিত হলে তা আসিয়ান জোটভুক্ত দেশগুলোর সঙ্গে সার্কের অর্থনৈতিক সম্পর্ককে জোরদার করবে। অল্প কিছু দিনের মধ্যে এটির নির্মাণ কাজ শুরু হবে। এ সংক্রান্ত চুক্তি স্বাক্ষরের পর ২০১৬ সালের মার্চ মাসের আগেই এ উপলক্ষে একটি মোটর শোভাযাত্রার আয়োজন করা হবে।’
এই সড়ক উপমহাদেশ ও আসিয়ানের মধ্যে যাত্রী ও মালামাল পরিবহনে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলেও আশা করছে ভারত ।
সুত্র- কালের কন্ঠ

এই বিভাগের আরও খবর

  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com