1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
  4. bblythe20172018@mail.ru : traceyhowes586 :

বিদেশি কূটনীতিকদের প্রশ্ন বিএনপি কি শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে থাকবে?

  • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ২৪ ডিসেম্বর, ২০১৫
  • ৩২ দেখা হয়েছে

পৌরসভা নির্বাচন নিয়ে নানা অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশে নিযুক্ত বিদেশি কূটনীতিকরা জানতে চেয়েছেন, বিএনপি কি শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে থাকবে?

গতকাল বুধবার বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে পৌর নির্বাচনের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে দলের জ্যেষ্ঠ নেতারা কূটনীতিকদের ব্রিফ করেন। এ সময় কূটনীতিকরা এ প্রশ্ন করেন বলে দলের একাধিক নেতা আমাদের সময়কে জানান। এর জবাবে বিএনপি জানায়, তারা এখনো নির্বাচনী মাঠে আছেন এবং শেষ পর্যন্ত থাকবেন।

বৈঠকে উপস্থিত এক নেতা বলেন, বিএনপির নানা অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে এক কূটনীতিক বলেন, আপনারা কী মনে করছেন, পৌরসভা নির্বাচন ৫ জানুয়ারির মতোই হবে? জবাবে বিএনপি নেতারা জানান, তারা সে রকমই মনে করছেন। পরিস্থিতি আরও ভয়াবহও হতে পারে। এরপরই আরেক কূটনীতিক প্রশ্ন করেন, পরিস্থিতি এ রকম থাকলে আপনারা নির্বাচনে শেষ পর্যন্ত থাকবেন কিনা?

দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খানের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল এই ব্রিফিং করে। এতে পৌর নির্বাচনের পরিস্থিতি, সরকারি দলের মন্ত্রী-সাংসদ-নেতাদের নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন, গণগ্রেপ্তার, নির্বাচন কমিশনের ‘আজ্ঞাবহ’ ভূমিকা, প্রশাসনের দলীয় ভূমিকা, বিরোধী দলের প্রার্থীদের প্রচারে বাধা প্রদান, বিরোধী দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের ওপর হামলার বিভিন্ন ঘটনাসহ সার্বিক পরিস্থিতি তুলে ধরা হয়।

সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে অস্ট্রেলিয়া, পাকিস্তান ও সিঙ্গাপুরের ভারপ্রাপ্ত হাইকমিশনার ছাড়াও যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ভারত, সুইডেন, জার্মানি, তুরস্ক, কানাডা, নেপাল, জাপান, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও জাতিসংঘের প্রতিনিধিরা অংশ নেন।

বৈঠকের পর আবদুল মঈন খান উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, আজ (বুধবার) আলোচনার বিষয়বস্তু ছিল আসন্ন পৌরসভা নির্বাচন ও দেশের সার্বিক পরিস্থিতি অর্থাৎ গণতন্ত্রের চিত্র। আজ দেশে গণতান্ত্রিক কোনো স্বাধীনতা নেই, যেখানে বিরোধী দল কোনো রাজনৈতিক কর্মকা- করতে পারে। তিনি বলেন, আপনারা দেখেছেন পৌরসভার ৭ মেয়র ও প্রায় দেড়শ কাউন্সিলর এরইমধ্যে নির্বাচিত হয়ে গেছেন। এটা কীভাবে সম্ভব? এটা সম্ভব হয়েছে এ কারণে যে, পৌরসভায় একতরফা নির্বাচন হয়ে গেছে, সেখানে কোনো বিরোধী দলের প্রার্থীকে মনোনয়নপত্র দাখিল করতে দেওয়া হয়নি।

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) বিষয়ে তিনি বলেন, ক্ষমতাসীন দলের এক এমপি হেলিকপ্টারে তার এলাকায় গিয়ে তার মনোনীত প্রার্থীর সঙ্গে কাগজ দাখিল করেছেনÑ এতে আমরা অবাক হয়েছি। যুক্তরাষ্ট্রেও কি একজন সিনেটর বা কংগ্রেসম্যান হেলিকপ্টারে গিয়ে লোকাল গভর্নমেন্ট নির্বাচনে তার প্রার্থীর সঙ্গে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন? এ হচ্ছে বাংলাদেশের একদলীয় গণতন্ত্রের ফল। এখানে বিরোধী দল নির্বাচন করতে পারছে না। শুধু তাই নয়, গণগ্রেপ্তার করা হচ্ছে।

গত দুই সাপ্তাহে এক হাজারের বেশি নেতাকর্মীর গ্রেপ্তারের বিষয়টি তুলে ধরে মঈন খান বলেন, নির্বাচনের সময় যদি আমাদের নেতাকর্মীরা মাঠে না থাকেন, তাহলে সমান সুযোগ কীভাবে সৃষ্টি হবে। অর্থাৎ আমি নির্বাচন দিলাম, বিরোধী দলকে নির্বাচন প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করতে দিলাম।

পৌর নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে করতে সরকারের প্রতি আহ্বান রেখে তিনি বলেন, আমরা বিশ্বাস করতে চাই, সরকার সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে পৌর নির্বাচন করবে এবং ভোটারা যাতে নির্বিঘেœ, নিঃসংকোচে ভোটকেন্দ্রে ভোট দিতে যেতে পারেন, সে ব্যবস্থা তারা নিশ্চিত করবেন; তাহলে সেটা দেশের জন্যই শুধু নয়, আওয়ামী লীগের জন্য মঙ্গল হবে, তাদের ভাবমূর্তিও বাড়বে।

বৈঠকে বিএনপির প্রতিনিধিদলে ছিলেন চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা রিয়াজ রহমান, ইনাম আহমেদ চৌধুরী, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সাবিহ উদ্দিন আহমেদ, আন্তর্জাতিক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন, যুব সম্পাদক সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল ও নির্বাহী কমিটির সদস্য জেবা আহমেদ খান।

উৎসঃ   আমাদের সময়

এই বিভাগের আরও খবর

  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com