বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টা : জিম্মি সংকটের অবসান গোলাগুলিতে ছিনতাইকারী নিহত

কক্সবাজার আলো ডেস্ক :
চট্টগ্রামের শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উড্ডয়নের পরপরই জরুরি অবতরণ করেছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট। প্লেনটি ছিনতাইয়ের চেষ্টার ঘটনায় ফ্লাইটটি জরুরি অবতরণ করেন পাইলট। ঘটনার পর শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ফ্লাইট ওঠা-নামা বন্ধ রয়েছে। অস্ত্রধারী ওই ব্যক্তি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে কথা বলতে চেয়েছেন। গতকাল রবিবার সন্ধ্যা ৬টার পর এ ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে একাধিক সূত্র বলছে, বিমানের বিজি-১৪৭ নম্বর ফ্লাইটটি চট্টগ্রাম থেকে দুবাই যাওয়ার কথা। কিন্তু উড্ডয়নের পরপরই এ ঘটনা ঘটে। পরে দ্রুত ফ্লাইটের সব যাত্রীকে নামিয়ে দেয়া হয়। বাংলাদেশ বিমান এয়ারলাইন্সের উড়োজাহাজ ছিনতাইয়ের চেষ্টাকারী গোলাগুলিতে নিহত হয়েছে বলে জানা গেছে। এর আগে সেনা কমান্ডোদের অভিযানে তাকে আহত অবস্থায় আটক করা হয় বলে জানিয়েছেন অভিযান পরিচালনাকারীরা। কমান্ডো অভিযানে জিম্মি সঙ্কটের অবসান ঘটে। চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের এডিসি (বন্দর ডিভিশন) আরেফিন জুয়েল এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, আমরা সন্দেহভাজন ব্যক্তিকে আটক করেছি। যাত্রীদের নিরাপদে নামানো হয়েছে। তবে সন্দেহভাজন ব্যক্তি অস্ত্রধারী কি না বিষয়টি তিনি নিশ্চিত করতে পারেননি। পরিস্থিতি স্বাভাবিক বলেও জানান আরেফিন জুয়েল। এদিকে ঘটনার পরপরই ঘটনাস্থলে ছুটে যায় ফায়ার সার্ভিসসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। আর রানওয়েতে অবস্থান করা প্লেনটি ঘিরে রেখেছে পুলিশ, র‌্যাব ও সেনা কমান্ডোর সদস্যরা। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক মো. জসীম উদ্দীন জানান, বিমানবন্দরে ফায়ার সার্ভিসের চারটি স্টেশনের ১০টি গাড়ি পৌঁছে গেছে। এ ছাড়া ২০টি দুই চাকার (টু হুইলার) বিশেষ অগ্নিনির্বাপক গাড়ি প্লেনটির চারপাশে রাখা হয়েছে। ক্রু বলেন, উড়োজাহাজটি আকাশের ১৫ হাজার ফুটের কিছু ওপরে উড্ডয়ন করছিল। এর মধ্যে পাইলট মো. শফি ও সহকারী পাইলট মো. জাহাঙ্গীর চট্টগ্রামগামী উড়োজাহাজটির ককপিটের দরজা বন্ধ করে দেন এবং কৌশলে জরুরি অবতরণের জন্য চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমানবন্দরে বার্তা পাঠান। উড়োজাহাজে থাকা একটি সুত্র জানিয়েছে, ককপিটের দরজা না খোলায় অস্ত্রধারী ব্যক্তিটি চিৎকার করছিলেন। একপর্যায়ে ওই অস্ত্রধারী উড়োজাহাজের ভেতরে ‘বিস্ফোরণের’ মতো ঘটান। ততক্ষণে উড়োজাহাজটি চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দরে অবতরণ করে। তবে ওই অস্ত্রধারী ফ্লাইট স্টুয়ার্ট সাগরকে আটকে রেখেছে। উড়োজাহাজ অবতরণের পর কৌশলে উড়োজাহাজের ডানার পলাশের চারটি ইমারজেন্সি গেট দিয়ে যাত্রীরা নেমে পড়েন। উড়োজাহাজে থাকা এক যাত্রী জানিয়েছেন, তিনি নেমে আসা পর্যন্ত ক্রু সাগর ছাড়া ককপিটের ভেতরে তখন পর্যন্ত দুজন বৈমানিক ছিলেন। এর আগে চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দরে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি উড়োজাহাজ ছিনতাইয়ের চেষ্টা করা হলে জরুরি অবতরণ করে ফ্লাইটটি। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাহায্যে উড়োজাহাজটি থেকে সব যাত্রীকে নিরাপদে নামিয়ে আনা হয়। বিজি-১৪৭ নং ফ্লাইটটি চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা হয়ে দুবাই যাওয়ার কথা ছিলো। চট্টগ্রামের সংসদ সদস্য (এমপি) ও জাসদ নেতা মাঈন উদ্দিন বাদলও ওই প্লেনের যাত্রী ছিলেন। তিনি প্লেন থেকে বেরিয়ে সাংবাদিকদের বলেন, প্লেনে সন্দেহভাজন একজনকে আটক করা হয়েছে। তার হাতে পিস্তল দিয়ে গুলি করে। তবে পাইলট ও যাত্রীরা নিরাপদে রয়েছেন। বাদল বলেন, অস্ত্রধারী ওই ব্যক্তি শেখ হাসিনার সঙ্গে কথা বলতে চেয়েছেন। তাকে আত্মসমর্পণের চেষ্টা চলছে। ময়ূরপঙ্খী উড়োজাহাজটি বোয়িং-৭৩৭ মডেলের। ১৪২ জন যাত্রী ও পাঁচজন ক্রু নিয়ে বিজি-১৪৭ ফ্লাইটটি ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম হয়ে দুবাই যাচ্ছিল। এদিকে আইএসপিআর জানিয়েছে, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

উপদেষ্টা সম্পাদক : হাসানুর রশীদ
সম্পাদক ও প্রকাশক : মুহাম্মদ শাহজাহান

নির্বাহী সম্পাদক : ছৈয়দ আলম

যোগাযোগ : ইয়াছির ভিলা, ২য় তলা শহিদ সরণী, কক্সবাজার। মোবাইল নং : ০১৮১৯-০৩৬৪৬০

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য অধিদপ্তরে নিবন্ধনের জন্য আবেদিত

Email:coxsbazaralo@gmail.com