1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :

ভাঙছে বেড়িবাঁধ কাঁদছে মানুষ

  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
  • ১৯ দেখা হয়েছে

এফ এম সুমন, পেকুয়া :
ভাংছে বেড়িবাঁধ কাদঁছে মানুষ। এ যেন কক্সবাজার জেলার পেকুয়া উপজেলার নিত্য দিনের গল্প!পেকুয়ার মানুষের সাথে বন্যা ও বেড়িবাঁধ শব্দটি লেগেই আছে।এযেন পেকুয়ার মানুষের ভাগ্যের প্রতিচ্ছবি।একের পর এক বন্যা ও বেড়িবাঁধ ভাঙ্গন পেকুয়ার মানুষের ধর্য্য সীমাকে অতিক্রম করেছে।সাম্প্রতিক ৩ দফা বন্যায় মানুষ সর্বস্য হারিয়ে এখন মানবেতর জীবন যাপন করছে।টাঁবু টাকিয়ে,কেউ রাস্তায়,কেউ উঠানে,কেউবা আবার আত্মীয় স্বজনের বাড়িতে।তার পর আবার গত ২দিনের বর্ষন ও পূর্নিমার জোয়ারে বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে নতুন করে আবার প্লাবিত হচ্ছে পেকুয়া।ইতিমধ্যেই পেকুয়ার উজানটিয়ার বেড়িবাঁধ,কাকঁপাড়ার বেড়িবাঁধ এবং পেকুয়ার ছিরাদিয়ার বেড়িবাঁধের অংশ পানির নিচে তলিয়ে যাচ্ছে।আবার মানুষের বাড়িতে পানি ওঠা শুরু করেছে।মানুষ কান্নাকাটি শুরু করেছেন।গবাদী পশু ও হাঁস মুরগি সরাতে পড়েছেন বিপাকে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,পেকুয়ার নিম্মাঞল পানির নিছে তলিয়ে যাচ্ছে।মানুষ চরম দূর্ভোগে পড়েছেন।পেকুয়া ছিরাদিয়া রাস্তার উপরে ৩ফিট পানি।তারপর আবার থেমে থেমে অঝোর ধারায় বৃষ্টি হচ্ছে।সম্প্রতি মেরামত কৃত বেড়িবাঁধ বৃষ্টির কারনে ভেঙ্গে যাচ্ছে।ব্যাপক হারে পানি ডুকছে।মানুষের মাঝে এক ধরনের আতংক কাজ করছে।৩য় দফা বন্যার পর ৪র্থ দফা বন্যার লাগামহীন সংকেত মানুষের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি করেছে।বন্যা পেড়িত কয়েক জন জানান,আমরা আর সইতে পারছিনা,আমরা মুক্তি চাই।এবং এই বন্যার ফলে আমরা বাড়িঘর সবকিছু হায়িয়েছি।তবে তাদের কান্না কোন মতে থামানো যাচ্ছে না।বর্তমানে যাদের বাড়িতে পানি ওটেছে তারা ছোট ছোট ছেলে মেয়ে নিয়ে খুব বিপাকে পড়েছেন।ইতিমধ্যেই কিছু যায়গার মানুষ নিকটবর্তী আশ্রয় কেন্দ্রে আশ্রয় নিতে প্রস্তুতি নিচ্ছেন।এই ব্যাপারে পেকুয়া উপজেলা চেয়ারম্যান শাফায়েত আজিজ রাজুর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন,পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের অবহেলা ও দুর্নিতির কারনে আমরা এভাবে অনাকাংকিত ভাবে পানিতে ডুবছি।তিনি এক পর্যায়ে আবেগাপ্লুত হয়ে বলেন,আমরা আর কষ্ঠ সয্য করতে পারছিনা।আমরা এর থেকে মুক্তি চাই।কিন্ত অত্যান্ত পরিতাপের বিষয় যে রির্পোট লেখার সময় পর্যন্ত পানি ডুকতেছে।ভুক্তভুগিদের দাবি খুব তাড়াতাড়ি এর একটি আসু সামাধান করা হোক।না হয় পেকুয়ার মানুষ আজিবন বঙ্গোপসাগরের সাথে মিতালি হয়ে থাকবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com