1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
  4. bblythe20172018@mail.ru : traceyhowes586 :

মহেশখালীতে মাদকাসক্ত স্বামী কর্তৃক স্ত্রীর চুলে খোপা রগ কর্তন

  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ২৪ জুলাই, ২০১৫
  • ১১৮ দেখা হয়েছে

মাতব্বরা আপোষ করতে মরিয়া
আবুল বশর পারভেজ, মহেশখালী :
মহেশখালীতে এক মাদকাসক্ত স্বামী কর্তন করে নিল স্ত্রীর চুলের খোপা ও হাতের রগ। ঘটনাটি ঘটেছে মহেশখালী পৌরসভার মখলেছুর রহমান পাড়া গ্রামে ২১ জুলাই মঙ্গলবার সকাল ৫টায়। নির্যাতিত কিশোরী স্ত্রীর পরিবারের বক্তব্য সুত্রে জানাযায়, মহেশখালী পৌরসভার মখলেচুর রহমান পাড়া এলাকার মৃত আলী আহাম্মদের কন্যা নাহিদার আকতারের সাথে বিয়ে হয় তার মায়ের মামাত বোনের ছেলে মৃত  নুর আহাম্মদ প্রকাশ বস্তির নুরু পুত্র দিলদারের সাথে । এ সম্পর্কে নুরু বস্তির ২য় পত্র রোম্মানের সাথে প্রেম পড়ে আপন তালত বোন সুফিয়া । সুফিয়া ৩ বছর পূর্বে  মহেশখালীর স্থানীয় একটি মাদ্রসায় পড়ালেখা অবস্থায় প্রায় ১২ বছর বয়সে মোঃ  রুম্মান সুফিয়াকে জোর পূর্বক উঠিয়ে  নিয়ে গিয়ে টেকনাফ শহরে নিয়ে যায়। সেখানে স্বামী স্ত্রী পরিচয়ে ২ বছর কাল অবস্থান করে গত ৯ মাস পূর্বে অন্তঃসত্তা অবস্থায় মহেশখালীতে চলে আসে। তাদের সংসারে ৭ মাসের একটি কন্যা সন্তান জন্ম হয় পরে সেই শিশুটি মারা যায়। এর পর শুরু করে স্বামী নামের মোঃ রুম্মান স্ত্রীর উপর বর্বর নির্যাতন । এ নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে রোম্মানের বাড়ী ছেড়ে সুফিয়া পালিয়ে অবস্থান নেয় বড় বোনের বাড়ীতে । পিতা আর স্বামীর বাড়ী একই সীমানায় যার কারনে সময়ে অসময়ে মাদকাসক্ত মোঃ রুম্মান সুফিয়ার পরিবারের সদস্যদেরকে ও বিভিন্ন ভাবে হুমকী দিয়ে থাকে। মাদক সেবক মোঃ রুমামানের হুমকী থেকে রেহায় পেতে সুফিয়ার ভাই আমান উল্লাহ বাবুর্চি বোনের সুখের আশায় স্থাণীয় এক প্রাক্তন কমিশনারের মধ্যস্ততায় মোঃ রুমানকে এক খন্ড জমি ক্রয় করে দেওয়া সিন্দান্ত   হয় ঈদের পরে। সুফিয়ার বড় বোন নাহিদা এক শিশু ছেলে নিয়ে  বর্তমানে  ভাইয়ের বাড়ীতে অবস্থান করে।  সুফিয়ার বাবার পরিবারে ২জন বাকঁ প্রতিবন্ধী ভাই রয়েছে। বিয়ে বাড়ীতে রান্নার কাজ  করে পরিবারটি সংসারে জীবিকা নির্বাহ চলে। গতকাল রাত্রে তাদের বাড়ীতে  চুলের খোপা কর্তনের বিষয়ে ঘটনার কাহিনী সরজমিন  শুনতে গেলে পর্যায় ক্রমে চলে আসে  বিনা কাবিন ও বিনা নোটারীতে বিয়ের নামে শারিরীক ও মানসিক নির্যাতনের কথা । ২১ জুলাই সকাল ৫টায়  সুফিয়া যখন স্থাণীয় মসজিদের টিউবওয়েলে খাবার পানি সংগ্রহ করতে যায় তখন পূর্ব থেকে প্রস্তুতি নেওয়া স্বামী মোঃ রুমান সুফিয়াকে মুখ চেপে ধরে পূর্নরায় অপহরণ করে নিয়ে যেতে চাইলে সুফিয়া চিৎকার দিতে চেষ্টা করে। তখন রুম্মান কুর দিয়ে স্ত্রী সুফিয়াকে মাথার চুলের খোপা কর্তন ও হাতের কব্জির রগ কেটে দিয়ে  রক্তক্ত জখম করে গলায় থাকা স্বর্নের চেইন চিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়। প্রত্যক্ষদর্শী লোকজন এগিয়ে এসে সুফিয়াকে মহেশখালী হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক সুফিয়াকে  কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। এঘটনায় এলাকায় উত্তেতজনা বিরাজ করছে ।    অপরদিকে মাদকাসক্ত রোম্মানের পরিবারের ভয়ে থানায় মামলা করতে সাহস পাচ্ছেনা  সুফিয়ার পরিবার । তাদের ভয়ে সুফিয়াকে স্বাধীন ভাবে সংবাদকর্মীদের সামনে কথা বলতে সাহস করছেনা পরিবারের সদস্যরা। যে কোন সময় আপোষ না করলে ফের হামলার আশংকা রয়েছে। স্থাণীয় একটি মাতাব্বরা অতি গোপন এ ঘটনাটি আপোষ করা চেষ্টা করছে ।এদিকে ২৩ জুলাই থেকে  সুফিয়া আকতার বাদী হয়ে  রুম্মান সহ ৭জনের বিরুদ্ধে একটি এজাহার লিপিবব্ধ করলে ও   মাতাব্বরদের চাপের কারনে এজাহারটি থানায় জমা দিতে অপারগতা প্রকাশ করছে ভাই আমান উল্লাহ বাবুর্চি।
এ ঘটনা যেন পত্রিকায় প্রকাশ না পায় সে জন্য বার বার হুমকী প্রদান করতে থাকে বলে স্থানীয় সুত্রে প্রকাশ ।  মহেশখালী থানা ও উপজেলা প্রশাসনের সন্নিকটে এমন ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা অব্যহত রয়েছে।
এলাকার শান্তি প্রিয় লোকজন এমন নারী নির্যাতন ঘটনার সুষ্ট বিচার দাবী করেন।

এই বিভাগের আরও খবর
  • ২০১৪ - ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ‌্য মন্ত্রণালয়ে আবেদিত ।
Site Customized By NewsTech.Com