1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
  4. bblythe20172018@mail.ru : traceyhowes586 :
শিরোনাম :

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা বরাবর ছাত্রলীগ নেতা আব্দুল বাসেদ’র খোলা চিঠি

  • আপডেট : শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
  • ৭০ দেখা হয়েছে

প্রিয় মমতাময়ী নেত্রী শুরুতে সশ্রদ্ধ সালাম আস্সালামুআলাইকুম অরাহমাতুল্লাহি অবরকাতু।আশা করি আল্লাহ্ অশেষ রহমতে ও বাংলার ১৬ কোটি মানুষের দোয়ায় ভালো আছেন।জাতিসংঘের পরিবেশ বিষয়ক সর্বোচ্চ পুরুষ্কার “চ্যাম্পিয়ন অব দ্যা আর্থ” অর্জন করায় আপনাকে জানায় প্রাণঢালা অভিনন্দন।সত্যি আমাদের আপনাকে নিয়ে গর্বের সীমা নেই। হে মমতাময়ী মা আমার এই খোলা চিঠি আপনার বরাবর অথবা আপনার কোনো কর্মচারী বরাবর যায় কিনা জানিনা।তবুও অনেক আশা নিয়ে আজ অনেক দুঃখভরা মনে এই লেখাটি লিখতে বাধ্য হয়েছি। আমরা কক্সবাজার জেলার অন্তর্গত টেকনাফ উপজেলার সর্বদক্ষিণের জনপদ শাহ্ পরীর দ্বীপের অসহায় বাসিন্দা। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এক অপূর্ব লীলাভূমি আমাদের এই জনপদ।আমাদের এই জনপদ দিয়ে মায়ানমার থেকে প্রতিদিন শতশত গরু-মহিষ আসে যা থেকে কোটি কোটি টাকা রাজস্ব অর্জন করে আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখজনক হলেও সত্য যে আমাদের এই সম্ভাবনাময় জনপদটি আজ প্রায় সাগরগর্বে তলিয়ে যাচ্ছে।২০১২ সালের ২২ শে জুলায় বঙ্গোপসাগরের প্রবল জোয়ারের তাবায় আমাদের এই জনপদের বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে যায়। কিন্তু গত চার বছরে একাদিক বার বেড়িবাঁধ মেরামতের জন্য সরকারি ভাবে কোটি কোটি টাকা বরাদ্দ হলেও দূর্নীতিবাজ টিকাদারের কারণে এর কোনো সুফল আমাদের শাহ্ পরীর দ্বীপবাসী পায়নি।বরং তারা বেড়িবাঁধ সংস্কারের নামে কোটি কোটি টাকা লুটপাট করেছে।পরিনামে শাহ্ পরীর দ্বীপের সীমান্তবর্তী অনেক এলাকা সাগরের অতলগর্বে তলিয়ে গেছে। হাজার হাজার অসহায় পরিবার মাথাগোঁজার শেষ সম্ভল ভিটেমাটি হারিয়ে শরণার্থীর মতো উদাস্তো হয়ে অন্যত্র পাড়ি জমিয়ে অনাহারে, অর্ধাহারে দিনাতিপাত করছে।বাংলাদেশের মূলভূখন্ড থেকে আজ বিচ্ছিন্ন আমাদের এই জনপদ। যোগাযোগব্যবস্থার অভাবে আমাদের একালাকার কোনো ছাত্রছাত্রী মাধ্যমিকের গন্ডি পার হয়ে উচ্চ মাধ্যমিকে ভর্তি হতে পারেনা।আমাদের এলাকার ছাত্রছাত্রীর জন্য উচ্চ শিক্ষা আজ প্রায় অসম্ভব।আমাদের এলাকার জনগনের প্রধান পেশা কৃষি কাজ কিন্তু জোয়ারের পানিতে সব কৃষি জমি তলিয়ে যাওয়াতে আজ সকলে অসহায়।আমাদের এলাকায় নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম দ্বিগুণ। এই বছর ঘুর্ণিঝড় #কোমেন# এর আঘাতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে আমাদের শাহ্ পরীর দ্বীপে।এলাকার প্রায় প্রতিটি পরিবার জোয়ারে পানিতে ভাসছে এবং ভাটায় শুকাচ্ছে।জনজীবনে নেমে এসেছে এক অসহনীয় দূর্ভোগ। আমাদের এলাকার প্রতিটি জনগনের আপনার প্রতি রয়েছে অঘাত আস্থা ও বিশ্বাস। প্রায় সকলকে বলতে শোনা যায় “আমাদের এই দূর্ভোগের কথা যদি স্বচিত্রে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেখত অথবা জানত তাহলে অবশ্যই এর একটা ব্যবস্থা তিনি করতেন।” হে মমতাময়ী মা, যোগাযোগের অভাবে আমাদের এলাকার লোকজন বিনাচিকিৎসায় গড়াগড়ি করে, গর্ভবতি মহিলা চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ডাক্তারের কাছে যেতে পারে না। জোয়ারের সময় নৌকা নিয়ে কোনোমতে যাওয়া যায় কিন্তু ভাটার সময় কাঁদা মাটির উপর দিয়ে ৩-৪ কিলোমিটার রাস্তা পায়ে হেটে পাড়ি দেওয়া অসম্ভব। এমতাবস্থায় বিনা চিকিৎসায় মারা যাচ্ছে অনেক অসহায় বৃদ্ধ নারী-পুরুষ ও গর্ভবতি মা। কিন্তু আশার কথা হচ্ছে গত ২৮ শে আগস্ট মাননীয় পানিসম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ কক্সবাজার এসে আমাদের শাহ্ পরীর দ্বীপের বেড়িবাঁধ মেরামত ও রাস্তা মেরামতের জন্য ১০৬ কোটি টাকার একটি প্রকল্প দেওয়ার ঘোষনা দিয়েছেন।এবং খুব দ্রুত একনেকের সভায় তা বাস্তবায়ন করার কথাও মাননীয় মন্ত্রী মহোদয় বলেন। হে প্রিয় নেত্রী, আপনার নিকট আমাদের আকূল আবেদন, মন্ত্রীর ঘোষিত বাজেট খুব দ্রুত বাস্তবায়ন করে শীত মৌসুমে কাজ করা এবং সেই বাজেট যাতে কোনো দূর্নীতিবাজ টিকাদারের হাতে নাদিয়ে সেনাবাহিনীর মাধ্যমে কাজ বাস্তবায়ন করা হয়, তাহলে আমাদের এলাকাবাসীর দীর্ঘ চার বছরের দুঃখ দূর্দশা লাগব হবে। আমাদের বিশ্বাস আপনার মাধ্যমে আমাদের এই দূর্দশার লাগব হবেই ইনশাআল্লাহ্।

নিবেদক :
আব্দুল বাসেদ
ছাত্র টেকনাফ ডিগ্রী কলেজ।
সভাপতি
বাংলাদেশ ছাত্রলীগ
শাহ্ পরীর দ্বীপ সাংগঠনিক ইউনিট শাখা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর
© ২০১৪ - ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত।
Site Customized By NewsTech.Com