1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. joaopinto@carloscostasilva.com : randaldymock :
  3. makaylabeaurepaire@1secmail.com : scotty7124 :
  4. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  5. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
  6. bblythe20172018@mail.ru : traceyhowes586 :

মিডিয়ার মারেফতি কারবার >> শিরোনামে ‘ফিটফাট’, ভেতরে ‘সরদঘাট’!

  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ৩ জুলাই, ২০১৫
  • ৫৭ দেখা হয়েছে

137714_1

শিশির আব্দুল্লাহ

আওয়ামী লীগের সভানেত্রী এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ বৃহস্পতিবার সকালে বলেছেন, “মধ্যম আয়ের দেশ হতে ২০২১ লাগবে না। আগামী তিন বছরের মধ্যে বাংলাদেশ সেই লক্ষ্যে পৌঁছে যাবে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।” (সূত্র: প্রথম আলো, সংবাদের শিরোনাম- “মধ্যম আয়ের দেশ হতে ২০২১ লাগবে না: প্রধানমন্ত্রী”।

অর্থাৎ, আওয়ামী লীগ নেত্রী বাংলাদেশকে ‘মধ্যম আয়ের দেশ’ বানাতে আরো তিন বছর সময় চাচ্ছেন। তিনি এই কথা বলেছেন বিশ্বব্যাংক কর্তৃক বাংলাদেশকে ‘নিম্ন আয়ের দেশ’ থেকে প্রমোশন দিয়ে ‘নিম্নমধ্যম আয়ের দেশ’-এর তালিকায় স্থান দেয়ার ঘোষণার পর। হাসিনা মনে করছেন, বাংলাদেশ এখনো ‘মধ্যম আয়ের দেশ’ হয়নি। শুধু শেখ হাসিনা নন, তার অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, যিনি বিশ্বব্যাংকের এক সময়কার কর্মকর্তা, তিনিও বলছেন, ‘মধ্যম আয়ের দেশ’-এর স্বীকৃতি পেতে আরো তিন-চার বছর লাগবে।

দৈনিক ইত্তেফাক বৃহস্পতিবার (আজ ২ জুলাই) “স্বীকৃতি পেতে আরো তিন-চার বছর লাগবে” অর্থমন্ত্রী” শিরোনামের একটি খবরে লিখেছে–“অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, চূড়ান্তভাবে মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে স্বীকৃতি পেতে বাংলাদেশের আরো তিন-চার বছর সময় লাগবে। আর এ চূড়ান্ত স্বীকৃতি দেবে জাতিসংঘ।”

মোট কথা, সরকারের সর্বোচ্চ ব্যক্তিরা বিশ্বব্যাংকের দেয়া এই ‘প্রমোশন’কে ‘মধ্যম আয়ের দেশ’র স্বীকৃতি বলে চালিয়ে দিতে কুণ্ঠাবোধ করছেন। এবং বাস্তবতায়ও তাই। ‘মধ্যম আয়ের দেশ’ বলতে ‘উচ্চ মধ্যম আয়ের দেশ’কেই বুঝানো হয়, ‘নিম্ন মধ্যম আয়ের’টাকে বুঝানো হয় না।

কিন্তু, বাংলাদেশের ‘স্বাধীন’ মিডিয়ার একটি অংশ বিষয়টাকে ‘মধ্যম আয়ের দেশ’র স্বীকৃতি বলে প্রচার করেছে! দৈনিক প্রথম আলো এই প্রচারণার নেতৃত্বে ছিল। এতে উৎসাহ পেয়ে আরো কয়েকটি পত্রিকা এবং টিভি চ্যানেল একই রকমভাবে রিপোর্ট করেছে। যদিও বেশিরভাগ জাতীয় পত্রিকা ‘নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ’ হিসেবেই লিখেছে।

প্রথম আলোর বৃহস্পতিবারের লীড শিরোনাম ছিল- “বাংলাদেশ এখন মধ্যম আয়ের দেশ : প্রথম আলো”। খবরের ইন্ট্রো ছিল- “

নিম্ন আয়ের দেশ থেকে বেরিয়ে এসেছে বাংলাদেশ। আমরা এখন মধ্যম আয়ের দেশের তালিকায়। বিশ্বব্যাংক গতকাল বুধবার এ তালিকা প্রকাশ করেছে।”

প্রতিবেদনটির এক জায়গায় প্রথম আলো লিখেছে- “সরকারের ১০ বছরের প্রেক্ষিত পরিকল্পনায় ২০২১ সালের মধ্যে দেশকে মধ্যম আয়ের দেশ হওয়ার কথা বলা আছে। এর আগেই মধ্যম আয়ের দেশ হলো বাংলাদেশ।” এই প্যারার মাধ্যমে সরকারের লক্ষ্য পূরণ হয়ে গেছে বলে পত্রিকাটি নিশ্চিত করছে! কিন্তু সরকারের মূল ব্যক্তিরা বলছেন, তাদের লক্ষ্য পূরণ হতে এখনো তিন বছর সময় লাগবে!

অবশ্য, “নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ”- এই তথ্যটা ভেতরে দেয়া হয়েছে। কিন্তু শিরোনামে ‘নিম্ন’ শব্দটি এড়িয়ে যাওয়ায় এবং ভেতরে “এর আগেই (সরকারের ইপ্সিত সময়ের আগেই) মধ্যম আয়ের দেশ হলো বাংলাদেশ।” বাক্যটি বলে “মধ্যম আয়ের দেশ” হিসেবেই বিষয়টি পাঠককে বুঝাতে চেয়েছে প্রথম আলো।

কিন্তু শিরোনামে একরকম এবং প্রতিবেদনে আরেকরকম তথ্য থাকায় প্রথম আলোর রিপোর্টিং স্টাইলটা অনেকটা “শিরোনামে ‘ফিটফাট’, ভেতরে ‘সরদঘাট!- এর মতো হয়েছে!”

প্রথম আলোর এমন রিপোর্টিংয়ের প্রভাব পড়েছে অন্য কিছু পত্রিকার ওপর। এর উত্তম উদাহরণ দৈনিক কালের কণ্ঠ। এই পত্রিকাটি তাদের বৃহস্পতিবারের প্রিন্ট সংস্করণের শেষের পাতায় এ সংক্রান্ত খবরটি সিঙ্গেল কলামে ছাপিয়েছিল এই শিরোনাম- “বিশ্বব্যাংকের মূল্যায়ন: নিম্ন আয়ের দেশ থেকে নিম্ন-মধ্য আয়ে বাংলাদেশ”। বুধবার দিবাগত রাতে অনলাইনে আপলোড করা রিপোর্টটি আছে এই লিংকে- click here)।

এই রিপোর্টের ইন্ট্রো হচ্ছে এরকম- “বিশ্বব্যাংক জানিয়েছে, মাথাপিছু মোট জাতীয় আয়ের (জিএনআই) হিসাবে বাংলাদেশ নিম্ন আয়ের দেশ থেকে নিম্ন-মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছে। বিভিন্ন দেশের মোট মাথাপিছু আয়ের হিসাব নিয়ে গতকাল বুধবার বিশ্বব্যাংকের সর্বশেষ প্রতিবেদনে এ উন্নতির তথ্য পাওয়া গেছে।”

কিন্তু বৃহস্পতিবার সকালে প্রথম আলোর ধাঁচে (হুবহু শিরোনামে) একই খবরের ওপর আরেকটি রিপোর্ট আপলোড করেছে। “বাংলাদেশ এখন মধ্যম আয়ের দেশ” শিরোনামের রিপোর্টটি আছে এই লিংকে– (click here)

এটির ইন্ট্রো হচ্ছে এরকম– “চলতি নতুন অর্থবছরে নিম্ন আয়ের দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছে বাংলাদেশ। মাথাপিছু জাতীয় আয়ের (জিএনআই) ভিত্তিতে বাংলাদেশ এ শ্রেণিতে উন্নীত হয়েছে বলে বিশ্ব ব্যাংকের সদ্য প্রকাশিত মূল্যায়ন প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।”

প্রথম আলোর শিরোনাম কপি করে প্রচার করেছে আরো দ্য রিপোর্ট, দেশ টিভি অনলাইনসহ বেশ কয়েকটি পত্রিকা এবং টিভি চ্যানেল।

অন্যদিকে, বিবিসি বাংলার শিরোনাম ছিল- “বাংলাদেশ এখন নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ’: বিশ্বব্যাংক”। দৈনিক যুগান্তরের বৃহস্পতিবারের শেষের পাতার সিঙ্গেল কলাম খবরের শিরোনাম- “বাংলাদেশ এখন নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ : বিশ্বব্যাংক’। এছাড়া ডেইলি স্টার প্রথম পাতায় ডাবল কলামে ‘লোয়ার-মিডল ইনকাম কান্ট্রি’ হিসেবে উল্লেখ করেছে।

বাংলাদেশ টাইম বুধবার দিবাগত রাতের খবর হওয়ায় বেশিরভাগ জাতীয় পত্রিকাগুলো বৃহস্পতিবারের প্রিন্ট ভার্সনে এটি প্রকাশ করতে পারেনি। তাই একই দিন (বৃহস্পতিবার) সকালে অনলাইনে আপলোড করেছে। এদের মধ্যে, ইত্তেফাক, বাংলানিউজ, বাংলাদেশ প্রতিদিন, ইনকিলাব, মানবজমিন, বণিকবার্তা তাদের শিরোনাম ‘নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ’ হিসেবে করেছে।

অনলাইন পত্রিকা বিডিনিউজ-ও বুধবার রাতে এ সংকান্ত্র খবরটির শিরোনাম করেছে- “বাংলাদেশ এখন নিম্ন-মধ্য আয়ের দেশের কাতারে: বিশ্ব ব্যাংক”।

এই বিভাগের আরও খবর

  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com