1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
  4. bblythe20172018@mail.ru : traceyhowes586 :

মিয়ানমার থেকে ফিরছে আরো ৫০০ বাংলাদেশি

  • আপডেটের সময় : রবিবার, ২৬ জুলাই, ২০১৫
  • ৬৫ দেখা হয়েছে

কক্সবাজার আলো ডেস্ক :
মিয়ানমার থেকে শীঘ্রই ফিরছে আরো ৫’শ বাংলাদেশি। তারমধ্যে প্রায় ৪’শ জন বাংলাদেশিকে আগামী সপ্তাহের মধ্যে দেশে ফিরিয়ে আনা হবে। এছাড়াও নতুন করে আরো শতাধিক বাংলাদেশি মিয়ানমারের কোন একটি দ্বীপে উদ্ধার হয়েছে। তাদের ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে দু’একদিনের মধ্যে প্রক্রিয়া শুরু হবে বলে জানায় আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম)।
আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার ন্যাশনাল প্রোগ্রাম অফিসার আসিফ মুনীর বলেন, প্রায় ৪শ’র কাছাকাছি বাংলাদেশি মিয়ানমারের ক্যাম্পে রয়েছে। তাদের কে সহায়তা করছে আইওএম, ইউএনএইচসিআর ও মিয়ানমার সরকার।
সম্প্রতি জানতে পেরেছি, মিয়ানমারের কোন একটি দ্বীপ থেকে আরো শতাধিক বাংলাদেশিকে উদ্ধার করা হয়েছে। কিন্তু এখনো সরকারি কোন তৎপরতা শুরু হয়নি। তবে মিয়ানমার সরকারি তাদের তালিকাটি বাংলাদেশ মিশনের কাছে দিবেন, তারপরই তাদের ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়াটি শুরু হবে।
তবে ৪’শ কাছাকাছি যে বলছি, এর বাইরে হয়তো নতুন আরো এক’শো বাংলাদেশি রয়েছে। তাদের ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে দু’এদিনের মধ্যে প্রক্রিয়া শুরু হবে।
এদিকে মিয়ানমার থেকে ফেরত আনা ১৫৫ জন বাংলাদেশীর মধ্যে অপ্রাপ্ত বয়স্ক ৯ জনকে নিরাপদে বাড়ীতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার দুপুর ২টার দিকে এ ৯ জন শিশু-কিশোরকে কক্সবাজার আদালতে হাজির করা হলে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট সুশান্ত প্রসাদ চাকমা এ নির্দেশ প্রদান করেন। এদেরকে রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি কক্সবাজার জেলা শাখার মাধ্যমে নিরাপদ হেফাজতে বাড়ী পৌঁছানোর জন্যও আদেশে বলা হয়েছে। এদের ৯ জনের মধ্যে ৬ জন নারায়নগঞ্জের, ২ জন ঝিনাইদহের ও ১ জন মাদারীপুর জেলার বাসিন্দা।
বৃহস্পতিবার রাতের মধ্যেই এদের বাড়ী পাঠানোর কথা জানিয়ে রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি কক্সবাজারের সভাপতি নুরুল আবছার বলেন, ইতিমধ্যে অপ্রাপ্ত বয়স্ক হিসেবে চিহ্নিত ৯ জনের ইমিগ্রেশন ও তথ্য সংগ্রহ জনিত জিজ্ঞাসাবাদের কার্যাদি সম্পন্ন করেছে প্রশাসন। রেডক্রিসেন্টের সার্বিক তত্ত্বাবধানে এদের বাড়ী পৌঁছানো হবে।
এছাড়া বুধবার মিয়ানমার থেকে ফেরত আনা ১৫৫ জনের মধ্যে অপর ১৪৬ জনের ইতিমধ্যে ইমিগ্রেশন সংক্রান্ত কার্যাদি সম্পন্ন হয়েছে। কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে এদেরকে জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে তথ্য সংগ্রহের কাজ করছেন পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থার লোকজন। এসব প্রক্রিয়া শেষ হলেই তাদেরকে শুক্রবার বাড়ী পাঠানো হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ ও আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম) এর কর্মকর্তারা। ফেরত আনা এসব লোকজনকে মানবিক সাহায্য প্রদান করছে আইওএম ও ইউএনএইচসিআর।
কক্সবাজার পুলিশ লাইনে কর্মরত ওসি মেজবাহ উদ্দিন জানান, বুধবার রাতে ফেরত আনাদের ইমিগ্রেশন সংক্রান্ত কার্যাদি শেষ করা হয়েছে। এখন চলছে জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে তথ্য সংগ্রহের কাজ। এদের মধ্যে ৯ জন অপ্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ায় নির্দেশনা জানতে বৃহস্পতিবার দুপুরে আদালতে পাঠানো হয়। রেডক্রিসেন্টের জিন্মায় এদের বাড়ী পাঠানো হবে। অপর ১৪৬ জনের জিজ্ঞাসাবাদের কাজ শেষ হলে শুক্রবার বাড়ী পাঠানো হবে।
আইওএম’র ন্যাশনাল প্রোগ্রাম অফিসার আসিফ মুনীর বলেন, ফেরত আনা লোকজনকে বাড়ী পৌঁছানো পর্যন্ত আইওএম মানবিক সাহায্য প্রদান করবে। এদের মধ্যে যে সব জেলার লোকজনের সংখ্যা বেশী তাদের জন্য বাসের ব্যবস্থা করে এবং অন্যদের নিজ জিন্মায় বাড়ী পৌঁছানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তিনি জানান, ফেরত আনা ১৫৫ জনের মধ্যে ৯ শিশু-কিশোরকে আদালতের সিদ্ধান্তে রেডক্রিসেন্টের মাধ্যমে অভিভাবকের কাছে পৌঁছানো হবে। অন্যান্যদের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে নিজ জিম্মিয় বাড়িতে পাঠানো হবে। উল্লেখ্য, গত ২১ মে মিয়ানমারের জলসীমা থেকে সাগরে ভাসমান অবস্থায় উদ্ধার হওয়া ২০৮ জন অভিবাসীকে উদ্ধার করে মিয়ানমার। এদের মধ্যে যাচাই-বাছাই শেষে প্রথম দফায় বাংলাদেশী হিসেবে শনাক্ত ১৫০ জনকে ৮ জুন এবং দ্বিতীয় দফায় ৩৭ জনকে ১৯ জুন ফেরত আনা হয়। এর মধ্যে ২৯ মে মিয়ানমারের জলসীমা থেকে দেশটির নৌ-বাহিনী আরো ৭২৭ জন অভিবাসী প্রত্যাশীদের উদ্ধার করে। এদের মধ্যে বাংলাদেশী হিসেবে শনাক্ত ১৫৫ জনকে ফেরত আনা হয় বুধবার।

এই বিভাগের আরও খবর
  • ২০১৪ - ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ‌্য মন্ত্রণালয়ে আবেদিত ।
Site Customized By NewsTech.Com