1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
  4. bblythe20172018@mail.ru : traceyhowes586 :

মোস্তাক পরিবারের অপেক্ষার ৫ দিন : সংবাদ সম্মেলনে মা ও স্ত্রীর কান্নার রোল-অক্ষত অবস্থায় ফিরে পাওয়ার দাবী

  • আপডেটের সময় : রবিবার, ১৬ আগস্ট, ২০১৫
  • ৫৯ দেখা হয়েছে

ছৈয়দ আলম :
টেকনাফ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও যুবলীগনেতা মোস্তাক আহমদকে তুলে নিয়ে যাওয়ার ৫ দিন পূর্ণ হচ্ছে রবিবার। দেখতে-দেখতেই ৫ দিন পার হয়ে গেলেও, এখনো আশা ছাড়েনি তার পরিবার। মোস্তাকের মা আমিনা খাতুনের  কান্না এখনো থামেনি। ছেলে ফিরবে সেই অপেক্ষার আশায় বুক বেঁধে আছেন তিনি। প্রিয় স্ত্রী ও মা-বাবা-ভাই বোন অপেক্ষায় তাকিয়ে থাকেন, কখন তাদের প্রিয় মোস্তাক ফিরে আসবে। কোনো উত্তরই যেন নেই কারো কাছে। সব থেকে বিব্রত অবস্থায় পড়েছেন তার স্ত্রী জয়নব রাজিয়া শিমু। সবাইকে আগলে রাখার জন্য বুকের চাপাকান্না ছাড়া কিছুই করতে পারছেন না। তারপরও তাদের বিশ্বাস খুব দ্রুত প্রশাসনের সার্বিক সহযোগিতায় তাদের প্রিয়জন ফিরে আসবেই।
এক্ষেত্রে চেয়ারম্যান পুত্র ও যুবলীগনেতার স্ত্রী শিমু মনে করছেন, প্রশাসন আন্তরিকভাবে চাইলে এবং প্রতিশ্র“তি রক্ষা করলে মোস্তাক আহমদকে তুলে নিয়ে যাওয়ার পরপরই ফিরে পাওয়া যেত। তিনি বলেন, আমার স্বামীকে ফেরত দেয়ার বিষয়ে বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও কক্সবাজার জেলার সমস্ত প্রশাসনকে অবহিত করা হয়েছে। আমাকে ও পরিবারের সবাইকে তারা আশ্বাস দিয়ে বলেছেন, স্বজন হারানোর বেদনা সবাই বোঝেন। এসময় রাজনীতির ঊর্ধ্বে মানবতা উল্লেখ করে মোস্তাক আহমদকে খুঁজে বের করার আশ্বাস দিয়েছেন। আর এখনো প্রতিফলন ঘটছে না সেই মানবতার। এখনো সন্ধান মেলেনি মোস্তাকের। আজো সেই মানবতার দিকেই তাকিয়ে আছি। তবে এখন আমাদের একমাত্র আল্লাহই ভরসা। তিনি চাইলেই মোস্তাক ফিরে আসবেন আমাদের মাঝে।
মোস্তাক এর বিষয়ে কী ভাবেন, এ প্রশ্নের জবাবে তার স্ত্রী শিমু বলেন, আমার প্রানের স্বামীকে তুলে নিয়ে যাওয়ার পর থেকে মনে হয় পেট ভরে এখনো ভাত খাইনি। পরিারের সবাই যার যার মত দুশ্চিন্তায় দিনাতিপাত করছে। এমনিভাবে আর কতদিন এভাবেই থাকতেই হয় আল্লাহ ভাল জানেন।
মোস্তাক আহমদের অবর্তমানে কিভাবে চলছেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, চলা তো আর থেমে থাকে না। চলতেই হয়। তিনিসহ মা ও পরিবারের সবাইকে ব্যাকুল অবস্থায় বেঁচে থাকার প্রয়োজনে মানুষকে চলতে হয়। কিন্তু এই চলাটা স্বাভাবিক চলা না। আমাদের অনেক কষ্ট করে চলতে হচ্ছে। আজ আমার প্রিয় স্বামীর অভিভাবকহীন অবস্থায় চলার যা কষ্ট, তার সুখ-দুংখ কি কেউ বুঝবে? এমনটি জানালেন, টেকনাফ উপজেলা চেয়ারম্যান জাফর আহমদের বড় পুত্র ও উপজেলা যুবলীগ নেতা মোস্তাক আহমদকে অক্ষত অবস্থায় ফিরিয়ে দিতে বিশাল মানব প্রাচীর ও সংবাদ সম্মেলনে। ১৬ আগস্ট রবিবার সকাল সাড়ে ১০ থেকে একটানা সাড়ে ১২ টা পর্যন্ত টেকনাফ বাস স্টেশনের সড়কের উভয় পাশে নারী-পুরুষ মানব বন্ধনে অংশ গ্রহন করেন। এতে আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও তার সমর্থকরা উপস্থিত ছিলেন এবং নের্তৃবৃন্দরা বক্তব্য রাখেন।
১৬ আগস্ট রবিবার সকাল ১০ টায় মোস্তাকের নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে মোস্তাকের স্ত্রী জয়নব রাজিয়া শিমু ও আমিনা খাতুন ছাড়া চাচা জালাল আহমদ বক্তব্য রাখেন।
উল্লেখ্য, গত ১১ আগস্ট রাত সাড়ে ৮টার দিকে পৌরসভা এলাকার চেয়ারম্যান এর বাসার সামনে থেকে শার্ট, প্যান্ট ও গেন্জি পরা ১০/১২ জন যুবক প্রশাসনের লোক পরিচয় দিয়ে মোস্তাককে কালো গ্লাসের দুটি মাইক্রোবাসে অস্ত্রের মুখে জীম্মি করে তুলে নিয়ে যায়।
এ খবর ছড়িয়ে পড়লে সমর্থকরা বাস স্টেশন এলাকায় বিক্ষোভ প্রদর্শনের পর পুলিশ বিজিবি সদস্যরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।
এর পর থেকে তার সন্ধান পেতে দলীয়ভাবে ও স্থানীয় জনতা বিভিন্ন আন্দোলন কর্মসূচি পালন করে আসছে। বর্তমানে তার সন্ধানে উত্তাল হয়ে পড়েছে গোটা টেকনাফ। গঠন করা হয় মোস্তাক মুক্তি পরিষদ।
বর্তমানে নিখোঁজের রহস্য উদ্ঘাটন না হওয়ায় উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা আর অজানা আশঙ্কায় রয়েছেন তার নিজ উপজেলার মানুষ।

এই বিভাগের আরও খবর

  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com