1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
  4. bblythe20172018@mail.ru : traceyhowes586 :

যে আমলে ইমান বাড়ে

  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ৮ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৭০ দেখা হয়েছে

কক্সবাজার আলো ডেস্ক :

ইমান মুমিনের জীবনের সর্বশ্রেষ্ঠ সম্পদ। একজন মুমিন ইমানের বদলে দুনিয়ার জীবনে যেমন মহান আল্লাহর রহমত ও বরকত লাভ করেন, তেমনিভাবে মৃত্যুর পরবর্তী জীবনেও চির সুখের জান্নাত লাভ করবেন।

কিন্তু বড়োই পরিতাপের বিষয় এই যে, আমাদের ব্যক্তিগত, পারিবারিক জীবনে আমরা ইসলামের অন্যান্য আমলের বিষয়ে যতটা সচেতন ইমানের বিষয়ে ততটাই অসচেতন।

আমাদের শিক্ষাব্যবস্থায়ও ইমান শিক্ষার বিষয়টি একেবারেই অবহেলিত। আমাদের গোটা জীবনটাই হয়ে গেছে দুনিয়ামুখী।

আমরা একমাত্র আল্লাহকে রাজি খুশি করার জন্য আমল করব যা আল্লাহর কাছে আমল কবুলের পূর্বশর্ত এবং এটা আমাদের ইমান বৃদ্ধিতে মুখ্য ভূমিকা পালন করবে। আমাদের ইমান বৃদ্ধির জন্য ইসলামের ফরজ বিধান যথাযথভাবে পালন করতে হবে। পাশাপাশি কবিরাগুনাহ পরিত্যাগ করতে হবে।

কেনোনা রাসূল (সা.) বলেছেন- ‘কোনো জিনাকারী যখন জিনা করে তখন তার ইমান থাকে না’ (সহিহ বুখারি ২৪৭৫)।

আমাদের বেশি বেশি নেককার লোকদের সাহচর্য গ্রহণ করতে হবে। যা আমাদের বেশি বেশি নেক আমলের দিকে ধাবিত করবে ও গুনাহ থেকে বিরত রাখতে সহায়তা করবে।

এ বিষয়ে পবিত্র কুরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘হে ইমানদাগণ, আল্লাহকে ভয় করো এবং সত্যবাদীদের সঙ্গে থাকো’ (সূরা : তাওবা, আয়াত : ১১৯)। আমাদের বেশি বেশি নেক আমলের অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে। যে যত বেশি নেক আমল করবেন তার ইমান তত বেশি বৃদ্ধি পাবে। আল্লাহ পবিত্র কুরআনের ইমানের সঙ্গে সঙ্গে আমলে সালেহ (অর্থাৎ নেক আমল) করার পরামর্শ দিয়েছেন।

আল্লাহর গুণবাচক নাম ও গুণাবলি সম্পর্কে বেশি জ্ঞান অর্জন করতে হবে। আল্লাহর গুণবাচক নাম, গুণাবলি, বড়ত্ব, মহত্ত্ব সম্বন্ধে আমাদের জ্ঞান যত বৃদ্ধি পাবে ইমানও তত বাড়বে। বেশি বেশি অর্থ বুঝে ধীরস্থিরভাবে কুরআনের তিলাওয়াত করতে হবে।

আল্লাহ বলেন, ‘মুমিন তো তারা, যাদের অন্তরসমূহ কেঁপে ওঠে যখন আল্লাহকে স্মরণ করা হয়। আর যখন তাদের ওপর তাঁর আয়াতসমূহ পাঠ করা হয় তখন তা তাদের ইমান বৃদ্ধি করে এবং যারা তাদের রবের ওপরই ভরসা করে (সূরা আনফাল, আয়াত-২)।

আমাদের বেশি বেশি প্রিয় নবীজির বিশুদ্ধ জীবনী ও সাহাবিদের জীবনী পাঠ করতে হবে। আল্লাহতায়ালা বলেন, …মানুষ যেভাবে ইমান এনেছে তোমরাও সেভাবে ইমান আনো…’ (সূরা : বাকারা, আয়াত : ১৩)।

এ আয়াতের তাফসিরে আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) বলেন, মুহাম্মদ (সা.)-এর সাহাবারা যেভাবে ইমান এনেছে, তোমরাও সেভাবে ইমান আনো’ (তাফসিরে তাবারি, সংশ্লিষ্ট আয়াত)।

আল্লাহর জন্য মানুষকে ভালোবাসা ও আল্লাহর জন্যই ঘৃণা করার আমলের বেশি বেশি প্রাকটিস করতে হবে। রাসূলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘যে আল্লাহর জন্য ভালোবাসে, আল্লাহর জন্য ঘৃণা করে, আল্লাহর জন্য প্রদান করে এবং আল্লাহর জন্য প্রদান থেকে বিরত থাকে, সে ইমান পরিপূর্ণ করেছে’ (আবু দাউদ, হাদিস : ৪৬৮১)।

এই বিভাগের আরও খবর

  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com