1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :

রামুর হাকিম রকিমা উচ্চ বিদ্যালয়ে মেধাবি ছাত্রকে পেটালেন শিক্ষক

  • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
  • ৯ দেখা হয়েছে
Exif_JPEG_420

নিজস্ব প্রতিবেদক :
রামু উপজেলার কাউয়ারখোপ হাকিম রকিমা উচ্চ বিদ্যালয়ে মাথার চুল না কাটার অজুহাতে হুমায়ন রশিদ নামের মেধাবি শিক্ষার্থী পিঠিয়ে আহত করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত বিদ্যালয়টির সহকারি শিক্ষক মোস্তফা কামালের বিরুদ্ধে রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে।
নির্যাতনের শিকার মেধাবি ছাত্র হুমায়ন রশিদ নবম শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র। তার রোল নাম্বার ৬। সে বিগত জেএসসি পরীক্ষায় সে এ প্লাস অর্জন করেছিলো। এছাড়া সম্প্রতি ঘোষিত এসএসসি পরীক্ষায় এ বিদ্যালয় থেকে তার বড় বোন জান্নাতুল বকেয়া এ প্লাস অর্জন করেছে।
আহত হুমায়ন রশিদ জানান, শিক্ষকের নির্দেশে মাথার চুল কেটে রবিবার (২২ সেপ্টেম্বর) বিদ্যালয়ে গিয়েছিলো সে। কিন্তু শিক্ষকের অভিযোগ চুল কাটা যথাযথ হয়নি। তাই পাঠদান করতে এসে ওই ছাত্রকে দেখে ক্ষেপে যান শিক্ষক মোস্তফা কামাল। এসময় তার পিঠে চলে ১২/১৩ টি কিল। মাথা তুলে মুখের দুই পাশে দেয়া হয় আরো কিল ঘুষি। শেষে চলে স্টীলের স্কেল দিয়ে মাথায় আঘাত। এসময় ক্ষমা প্রার্থনা আর অনুনয় বিনয় করেও শিক্ষকের নির্যাতনের রোষানল থেকে বাঁচতে পারেনি। এ ঘটনায় গুরুতর আহত ছাত্রের পিতা আবদুল হাকিম মঙ্গলবার (২২ সেপ্টেম্বর) রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, রবিবার ৬ষ্ঠ ঘন্টায় পাঠদান করতে যান বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক মোস্তফা কামাল। এসময় ভালোভাবে চুল না কাটার অজুহাতে শ্রেণিকক্ষে প্রায় ৭০ জন ছাত্রছাত্রীর উপস্থিতিতে শিক্ষক মোস্তফা কামাল ছাত্র হুমায়ন রশিদকে বেঞ্চে ফেলে কিল, ঘুষি সহ নানাভাবে মারধর শুরু করে। এতে তার পিঠ, মুখমন্ডল, চোখে রক্তজমাট হয়ে অসহনীয় জখম হয়েছে।
নির্যাতনের শিকার হুমায়ন রশিদ কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের পশ্চিম কাউয়ারখোপ এলাকার আবদুল হাকিমের ছেলে। তার বাবা জানিয়েছেন, বর্তমানে আহত ছেলের চিকিৎসা চলছে। এরই মধ্যে বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও পরিচালনা কমিটির সদস্য এবং এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিরা আমার ছেলেকে দেখে গেছেন। কিন্তু নির্যাতনকারি সেই শিক্ষক কোন খবর নেননি। তাই নিরুপায় হয়ে তিনি প্রশাসনের হস্তক্ষেপ চেয়েছেন।
স্থানীয় ইউপি সদস্য আবদুল গফুর জানিয়েছেন, ছাত্র হুমায়ন রশিদকে অমানুষিকভাবে মারধর করা হয়েছে। কোন চোর-ডাকাতকেও মানুষ এভাবে মারধর করে না। এরপরও স্থানীয়ভাবে বিষয়টি মিমাংসার চেষ্টা করা হয়েছিলো। কিন্তু নির্যাতনকারি শিক্ষক মোস্তফা কামাল কোন সাড়া দেয়নি। তিনি আরো জানান, মোস্তফা কামালের বিরুদ্ধে সহকারি প্রধান শিক্ষককে মারধরের চেষ্টা, প্রাইভেট না পড়লে শিক্ষার্থীদের খাতায় নম্বর কম দেয়া সহ নানা অনিয়ম ও অপকর্মের অভিযোগ রয়েছে।
এ ঘটনায় অভিযুক্ত সহকারি শিক্ষক মোস্তফা কামাল নির্যাতনের বিষয় অস্বীকার করেন। তিনি জানান, চুল না কাটায় তাকে কয়েকটি চড় দেয়া হয়েছে। তুচ্ছ এ বিষয় নিয়ে তার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।
কাউয়ারখোপ হাকিম রকিমা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কিশোর বড়–য়া জানিয়েছেন, তিনি ছুটিতে রয়েছেন। ছাত্রকে নির্যাতনের বিষয়টি তিনি শুনেছেন। এ ব্যাপারে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সাথে বৈঠক করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com