রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বিশ্ব মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ উপলক্ষ্যে শেড’র উদ্যোগে আলোচনা সভা ও র‌্যালী

প্রেস বিজ্ঞপ্তি :
“শিশুকে মাতৃদুগ্ধ পান করাতে মাতা-পিতাকে উৎসাহিত করুন” এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে সারা বিশ্ব সপ্তাহব্যাপী (০১-০৭)আগস্ট পালিত হয়েছে বিশ্ব মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ-২০১৯। তারই ধারাবাহিকতায় ডব্লিউএফফির এর আর্থিক ও কারিগরি সহায়তায় বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা সোসাইটি ফর হেলথ্ এক্সটেনশন এন্ড ডেভেলপমেন্ট (শেড) কর্তৃক পরিচালিত BSFP & TSFP Programme এর ক্যাম-২৩ শামলাপুর কর্তৃক আয়োজিত “বিশ্ব মার্তৃদুগ্ধ সপ্তাহ-২০১৯’’ বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সপ্তাহব্যাপী যথাযথ মর্যাদায় এবং অত্যন্ত জাঁকজমকপূর্ণভাবে উদযাপিত হয়। এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ছিল “শিশুকে মাতৃদুগ্ধ পান করাতে মাতা-পিতাকে উৎসাহিত করুন”। সপ্তাহব্যাপী অনুষ্ঠানের অংশ হিসেবে ৭ আগস্ট ২০১৯ ক্যাম্প-২৩ (শামলাপুর) শেড BSFP & TSFP Intervention এর প্রোজেক্ট ম্যানেজার শোভন আল-ফুয়াদ এর নেতৃত্বে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালী ক্যাম্প-২৩ এর BSFP & TSFP সেন্টার থেকে শুরু হয়ে GFD পয়েন্ট, সিআইসি অফিস, থানা রোডসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ও এলাকা প্রদক্ষিন শেষে ক্যাম্প-২৩ এর গোল চত্বরে এসে শেষ হয়। এ র‌্যালীতে উপস্থিত ছিলেন-World Food Programme এর প্রতিনিধি ইমরান বিন কায়েস, UNICEF এর প্রতিনিধি মাহবুবুর রহমান, শেড এর MIS অফিসার আক্তারুজ্জামান রনি, লজিস্টিক অফিসার কায়সার উদ্দিন, ক্যাম্প-২৩ এর টেকনিক্যাল অফিসার আশরাফুল ইসলাম ও তাহরিফা খাতুন, স্টোরকিপার রাহেদুল ইসলাম, আউটিরস সুপারভাইজার রোজিনা আক্তার ও সাইফুল ইসলাম মুরাদ এবং ব্র্যাক এর বিভিন্ন কর্মকর্তা বৃন্দ।
র‌্যালী শেষে ক্যাম্প-২৩ এর টেকনিক্যাল অফিসার আশরাফুল ইসলাম এর সঞ্চালনায় এবং প্রোজেক্ট ম্যনেজার শোভন আল-ফুয়াদ এর সভাপতিত্বে এক মনোমুগ্ধকর আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় মাতৃদুগ্ধ পান সম্পর্কে বক্তব্য রাখেন মাহবুবুর রহমান, তাহরিফা খাতুন, আক্তারুজ্জামান রনি, কায়সার উদ্দিন। উক্ত সভায় দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয় তুলে ধরে World Food Programme এর প্রতিনিধি ইমরান বিন কায়েস বলেন-শিশুর জন্য মায়ের দুধের কোন বিকল্প নেই এবং শিশুকে মায়ের দুধ খাওয়ালে মায়ের প্রসব পরবর্তী রক্তক্ষরণ ও পরবর্তীতে ওজনাধিক্য, স্তন ও জরায়ু ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি কমে যায় এবং মা ও বাচ্চা দুজনেই সুস্থ্য থাকে।
শিশুকে মাতৃদুগ্ধ পানের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে প্রোজেক্ট ম্যনেজার শোভন আল-ফুয়াদ বলেন, জন্মের পর পরপরই (১ ঘন্টার মধ্যে) শিশুকে শাল দুধ খাওয়াতে হবে কারণ শাল দুধ শিশুর জীবনের প্রথম টিকা হিসেবে কাজ করে। মায়ের দুধ খেলে শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়, অসুস্থতা ও মৃত্যুর ঝুঁকি কমে এবং মায়ের সাথে সন্তানের গভীর মমত্ববোধ তৈরি হয়। তিনি আরও বলেন-শিশুর অপুষ্টি দুর করতে এবং বয়স অনুযায়ী সঠিক বৃদ্ধি নিশ্চিত করতে শিশুর ৬ মাস বয়সের পর থেকে ২ বছর পর্যন্ত মায়ের দুধের পাশাপাশি ঘরে তৈরি বিভিন্ন ধরনের পরিপূরক খাবার খাওয়াতে হবে। পরিশেষে সবার সু-স্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে ও ডেঙ্গু বিষয়ে সচেতনতা তৈরিতে সকলকে একসাথে কাজ করার আহবান জানিয়ে সভার সমাপ্তি ঘোষনা করেন।

উপদেষ্টা সম্পাদক : হাসানুর রশীদ
সম্পাদক ও প্রকাশক : মুহাম্মদ শাহজাহান

নির্বাহী সম্পাদক : ছৈয়দ আলম

যোগাযোগ : ইয়াছির ভিলা, ২য় তলা শহিদ সরণী, কক্সবাজার। মোবাইল নং : ০১৮১৯-০৩৬৪৬০

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য অধিদপ্তরে নিবন্ধনের জন্য আবেদিত

Email:coxsbazaralo@gmail.com