1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :

লাখো মুসল্লির অংশগ্রহণে গোলাম সাঈদীর জানাজা

  • আপডেটের সময় : রবিবার, ২২ নভেম্বর, ২০২০
  • ২৮ দেখা হয়েছে

কক্সবাজার আলো ডেস্ক :

লাখো মুসল্লির অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হলো ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা আড়াবাইড়ী দরবার শরীফের পীরজাদা ও আইড়াইবাড়ী ইসলামিয়া সাঈদীয়া আলিয়া মাদরাসার অধ্যক্ষ গোলাম সারোয়ার সাঈদীর জানাজা।

শনিবার বাদ আছর কসবার আড়াইবাড়ী দরবার শরীফ ময়দানে এ জানাজা হয়।

এর আগে সকালে তার মরদেহ কসবা আড়াবাইড়ী দরবার শরীফে আনা হয়। প্রখ্যাত এ আলেমের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে সকাল থেকেই জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে মুসল্লিরা ভিড় করতে থাকেন।

গতকাল শুক্রবার দিনগত রাত ৪টা ১৫ মিনিটে রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান গোলাম সারোয়ার সাঈদী।

জানাজা নামাজে ইমামতি করেন মরহুমের একমাত্র ছেলে গোলাম সোবহান সাঈদী। তার আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বক্তব্য রাখেন, কসবা-আখাউড়া আসনের সংসদ সদস্য ও আইন বিচার ও সংসদ বিষয়কমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক।

এসময় আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, গোলাম সারোয়ার সাঈদী আমার কাছের ছোট ভাই। তাকে আমি ছোট ভাইয়ের মতো মনে করতাম। তার অকাল মৃত্যুতে আমি অত্যন্ত মর্মাহত।’ তার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া করার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান মন্ত্রী।

জানাজায় উপস্থিত ছিলেন, কসবা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রাশেদুল কাউছার ভূঁইয়া জীবন, কসবা পৌরসভার মেয়র এমরান উদ্দিন জুয়েল, মরহুমের তালই বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ কামাল উদ্দিন জাফুরী, কসবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদ উল আলম, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা লোকমান।

করোনা সংক্রমণের মধ্যেও লাখো মুসল্লির অংশগ্রহণে জানাজায় স্বাস্থ্যবিধি মানা হয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে কসবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদ-উল-আলম বলেন, গোলাম সারোয়ার সাঈদীর অত্যন্ত জনপ্রিয় আলেম ছিলেন। আমরা আগে থেকে সচেতন ছিলাম। চেষ্টা করেছি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার। বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্য ৩ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হয়েছিল। আমাদের চেষ্টার কমতি ছিল। ত্রুটি ছিল না।

কসবা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা-ওসি লোকমান হোসেন বলেন, লাখ লাখ লোকের ঢল নামে জানাজার মাঠে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এবং স্বাস্থ্যবিধি মানতে সর্বাত্বম চেষ্ঠা করেছেন। আমিসহ পুরো ফোর্স শুধু সে কাজই করেছি। কিন্তু প্রচুর জনসমাগম হওয়ায় সেঠা কোখাও কোথাৗ বিগ্নিত হয়েছে।

উল্লেখ্য, এর আগে চলতি বছরের ১৮ এপ্রিল সরাইলের লাখো মানুষের অংশগ্রহণে বেড়তলা গ্রামে জুবায়ের আহমদ আনসারীর নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এর পরই করোনার ভয়াবহতার কথা ভেবে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সাতটি গ্রামে লকপাউন দেওয়া হয়।

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com