কক্সবাজারলীড

শহরে বনফুলের বাহারি ইফতার আয়োজন

24views

এম.এ আজিজ রাসেল
সারাদিন রোজা রাখার পর ইফতার মেন্যুতে নানা মুখরোচক খাবার রোজাদারদের কাছে খুব প্রিয়। যার জন্য ইফতার আয়োজনে যোগ হয় বিভিন্ন বাহারি আইটেম। প্রতি বছরের ন্যায় এবারও কক্সবাজারে জমজমাট ইফতারির বাজার। তবে এবার অন্যান্যদের তুলনায় শহরের বাজারঘাটাস্থ বনফুল এন্ড কোং ব্যতিক্রম ও বাহারি ইফতার আয়োজন করেছে। প্রসিদ্ধ এই প্রতিষ্ঠানটি বাড়তি ঝামেলা এড়াতে দোকানের ভেতরেই ধুলোমুক্ত পরিবেশে পসরা সাজিয়েছে নানা রকম সুস্বাদু খাবারের। যা দেখলেই নিমিষেই লুপে নিতে ইচ্ছে করে। রবিবার বিকালে বনফুলের ইফতার আয়োজনে গিয়ে দেখা যায়, নান্দনিক পরিবেশ। চোখ জুড়ানো ডেকোরেশনের মাধ্যমে স্বাগত জানানো হয় ক্রেতাদের। দোকানে ঢুকতেই বাহারি হালিমের ঘ্রাণে প্রাণ জুড়িয়ে যায়। বিকাল হওয়ার সাথে সাথে এখানে ভীড় বাড়ে ক্রেতাদের। বিক্রয়কর্মীরা আগত ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী অমায়িক সেবা দিয়ে থাকে।
এবার প্রায় ৫০টি খাবার নিয়ে সমৃদ্ধ হয়েছে বনফুলের ইফতার মেন্যু। মেন্যুতে রয়েছে, শামী কাবাব, ভেজিটেবল রোল, বাকরখানি, মিনি কাবাব, আন্ডা মিঠাই, শ্রীমাই, টিক্কা কাবাব, ফিস কাবাব, এসপি ছমুচা, ট্রে বাকরখানি, মোগলাই, চিকেন ফ্রাই, চিকেন রোল, চিকেন টোষ্ট, চিকেন স্যান্ডুইচ, চিকেন শর্মা, মিট বল, চিকেন উইংস, বাকলোভা, পাটিসাপ্টা পিঠা, ভেজিটেবল চপ, চিকেন চিজ পপ, শাহী টুকরা, কুনাফা, নরমাল ছমুচা, অনথন, সিঙ্গারা, চিকেন কাবাব, জিলাপী, শাহী জিলাপী, ফিরনী, হাজারী জিলাপী, ভেজিটেবল পাকোড়া, ছোলা, পিয়াজু, মরিচা, আলুর চপ অন্যতম। রয়েছে চিকেন হালিম ও মাটন হালিম। এসব খাবারের দামও স্বাদ ও স্বাধ্যের মধ্যে রয়েছে।
এখানে ইফতার কিনতে আসা ব্যবসায়ী হাসান, ব্যাংকার সালাউদ্দিন ও আইনজীবী মোঃ শাহ আলম জানান, ঘরে ছোলা, পিয়াজু ও বেগুনী তৈরি করা হয়। এর বাইরে বাকি খাবার এখান থেকে নেয়া হয় প্রতিদিন। এখানকার সব খাবার স্বাদে অতুলনীয় ও স্বাস্থ্যসম্মত। তাই কোন কিছু না ভেবে বনফুলে চলে আসি।
জানা যায়, প্রতিষ্ঠার পর থেকে খাবার জগতে সুনামের সাথে প্রতিনিধিত্ব করে আসছে বনফুল। অল্প সময়ে ক্রেতাদের আস্থা ও ভালবাসা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে প্রসিদ্ধ এই প্রতিষ্ঠানটি।
কক্সবাজার বনফুলের জোন ম্যানেজার মোঃ আনোয়ার হোসেন, অফিসার হাছান, মোঃ হানিফ ও সাজ্জাদ জানান, ক্রেতাদের ভালবাসায় বনফুল অনেকদুর এগিয়ে এসেছে। ভালবাসার অটুট এই বন্ধন ধরে রাখতে বদ্ধ পরিকর কর্তৃপক্ষ। ক্রেতাদের চাহিদাকেই আমরা মূল্যায়ন করি অধিক। তাই এর জনপ্রিয়তা বাড়ছে দিনদিন।

Leave a Response