1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :

শিক্ষাঙ্গণে অস্থিরতা, বিশৃঙ্খলার আশঙ্কা!

  • আপডেটের সময় : রবিবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
  • ১৪ দেখা হয়েছে

কক্সবাজার আলো ডেস্ক :
সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে চলছে অস্থিরতা। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে উচ্চশিক্ষা স্তরের শিক্ষা কার্যক্রমে নেমে এসেছে স্থবিরতা। পাশাপাশি সরকারি কলেজ এবং সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরাও রয়েছেন আন্দোলনে। উচ্চশিক্ষা স্তর এবং মাধ্যমিক শিক্ষাস্তরে শিক্ষকদের আন্দোলনে উচ্চশিক্ষার পাশাপাশি মাধ্যমিক স্তরেও বিশৃঙ্খলা তৈরির আশঙ্কা রয়েছে। ঘোষিত পে-স্কেলে বৈষম্য নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকরা এবং সাড়ে সাত শতাংশ ভ্যাট (মূল্য সংযোজন কর) আরোপ নিয়ে আন্দোলনে রয়েছেন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

এ মুহূর্তে সরকারি সফরে দেশের বাইরে রয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। আরও চার দিন পর দেশে ফেরার কথা রয়েছে তার। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যানও রয়েছেন শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে।

উচ্চশিক্ষা স্তরের শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীদের আন্দোলন নিয়ে মুখ খুলছেন না শিক্ষাসচিব। মধ্যস্থতাতেও দেখা যাচ্ছে না কোনো উদ্যোগ। এ অবস্থায় শিক্ষকদের মর্যাদা এবং ভ্যাট-ইস্যুতে শিক্ষার্থীদের এই আন্দোলনের শেষ কোথায়- তা বলতে পারছেন না কেউই।

‘শিক্ষাবান্ধব’ প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চান শিক্ষকরা
বেতন কাঠামো পুনর্নির্ধারণের দাবিতে রোববার পূর্ণদিবস কর্মবিরতির কর্মসূচি দিয়েছিলেন দেশের ৩৭টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা।

৭ সেপ্টেম্বর মন্ত্রিসভায় অনুমোদিত পে-স্কেলে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মর্যাদাহানি ও অবমূল্যায়ন করা হয়েছে- এমন দাবিতে আন্দোলন করছেন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর শিক্ষকরা।

আর আন্দোলনকে ‘যুক্তিহীন’ দাবি করে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের বক্তব্য আগুনে ঘি ঢেলে দেওয়ার উপক্রম হয়। ওই দিন অর্থমন্ত্রী বলেন, দেশের সবচেয়ে শিক্ষিত জনগোষ্ঠী জ্ঞানের অভাবে আন্দোলন করছে। অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠলে অবশ্য সিলেটে এক অনুষ্ঠানে বক্তব্য প্রত্যাহার করে নেন মুহিত।

এখন স্বতন্ত্র বেতন স্কেল ঘোষণার দাবি জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা।

রোববার (১৩ সেপ্টেম্বর) এক সংবাদ সম্মেলনে অবিলম্বে একটি নিরপেক্ষ কমিশন গঠনের দাবি জানিয়ে বলা হয়, যেখানে শিক্ষকরা তাদের ন্যায়সঙ্গত অধিকারের বিষয়গুলো তুলে ধরবেন। শিক্ষকদের চলমান আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে আলোচনার জন্য আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব চান শিক্ষকরা। তবে শিক্ষামন্ত্রী না থাকায় এই চাওয়ার ফল দেখা যাচ্ছে না সহসাই।

দাবি আদায়ে কর্মসূচি অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা, আগামী ১৭ সেপ্টেম্বর তাদের কর্মবিরতি রয়েছে। বাস্তবমূখি ও গঠনমূলক কোনো পদক্ষেপ না নিলে ঈদের পরে আরও কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে বলে জানান তারা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ভরসার শেষ আশ্রয়স্থল উল্লেখ করে শিক্ষকরা বলেন, শিক্ষকদের সব দাবি পূরণে শিক্ষাবান্ধব প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এদিকে শিক্ষকদের আন্দোলনে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে একাডেমিক কার্যক্রমে স্থবিরতা তৈরি হয়েছে। ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন শিক্ষার্থীরা।

তারাও প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপের প্রত্যাশায়
প্রথমবারের মত বড় ধরনের অস্থিরতা তৈরি হয়েছে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে। সাড়ে সাত শতাংশ ভ্যাট আরোপ নিয়ে আন্দোলনে রয়েছেন শিক্ষার্থীরা, শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে রাজধানী ঢাকাও স্থবিরতা নেমে এসেছে।

এদিকে ভ্যাট নিয়ে অর্থমন্ত্রী আলোচনার দরজা খোলা থাকার কথা জানালেও এরইমধ্যে তিনটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

রোববার নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় ও ইনডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি বন্ধ ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ। ২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি, ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি এবং সোমবার বন্ধ থাকবে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়।

ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ বলছে তারা শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ভ্যাট নেবে না। যাদের কাছ থেকে এরইমধ্যে ভ্যাট নেওয়া হয়েছে তা তাদের পরবর্তী সেমিস্টারে সমন্বয় করা হবে। আর নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি জানিয়েছে, ভ্যাটের ব্যাপারে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মালিকদের সংগঠন যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে সেই সিদ্ধান্তই তারা মেনে চলবে। ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ ভ্যাট নিজেরা পরিশোধরে সঙ্গে সঙ্গে আগামী তিন বছর বেতন বাড়াবে না বলেও জানিয়েছে।

বিকেলে উত্তরায় নয়টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের পক্ষে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরাসরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

তিন মন্ত্রী যা বললেন…
বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সুবিধা পর্যালোচনায় বেতন কমিশন কাজ শুরু করবে বলে সচিবালয়ে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী।

ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবিতে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের প্রসঙ্গে মুহিত বলেন, আলোচনার পথ রুদ্ধ নয়, ভ্যাট পুনর্বিবেচনা করতে সরকার অনমনীয় নয়। আমরা পুনর্বিবেচনা তো সব সময় করি। আমি আশা করি, তারা এ বিষয়ে আমার সঙ্গে আলোচনা করবে।

একই সময় বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের ভ্যাট নিয়ে আমরা বাস্তবসম্মত সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছি, এ বিষয়ে আলোচনা চলছে।

সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আন্দোলন প্রসঙ্গে বলেন, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ধৈর্যে সঙ্গে পরিস্থিতি মোকাবেলা করছে।

খবর রাখছেন শিক্ষামন্ত্রী
সপ্তাহব্যাপী সরকারি সফরে সুইডেন ও ফিনল্যান্ড গেছেন শিক্ষামন্ত্রী। ৮ সেপ্টেম্বর সুইডেনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেন নাহিদ। সুইডেনের রাজধানী স্টকহোমে তথ্যপ্রযুক্তি ও শিক্ষাদান পদ্ধতিগত উন্নয়ন শীর্ষক সম্মেলনে তিন সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন শিক্ষামন্ত্রী।
সুইডেন সফর শেষে ১২-১৬ সেপ্টেম্বর শিক্ষামন্ত্রীর নেতৃত্বে ইউজিসির উচ্চশিক্ষা মানোন্নয়ন প্রকল্পের সাত সদস্যের প্রতিনিধিদল ফিনল্যান্ড সফর করবেন।
হেলসিংকি ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান এডুক্লাস্টার ফিনল্যান্ডের আমন্ত্রণে ফিনল্যান্ড সফরে বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের সদস্য হিসেবে আছেন ইউজিসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক আব্দুল মান্নান, ইউজিসি সদস্য ড. আবুল হাসেম, উচ্চশিক্ষা মানোন্নয়ন প্রকল্প হেকেপ’র পরিচালক ড. গৌরঙ্গ চন্দ্র মহন্ত, প্রকল্পের কোয়ালিটি এসুরেন্স ইউনিট প্রধান ড. মেজবাহউদ্দিন আহমেদ, ইউজিসির সাবেক সদস্য ড. আতফুল হাই শিবলী এবং ইউজিসি সচিব ড. খালেদ।
শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা রোববার বলেন, শিক্ষামন্ত্রী সার্বক্ষণিক খোঁজ-খবর রাখছেন। শিক্ষামন্ত্রী আশা করছেন, দ্রুতই জটিলতা কেটে যাবে। সফর শেষে দেশে ফিরে তিনি পদক্ষেপ নিবেন।
চেয়ারম্যানসহ ইউজিসি কর্মকর্তারাও দেশের বাইরে থাকায় সহজেই কাঠছে না সংকট।
জটিলতা সরকারি কলেজ শিক্ষকদেরও
দেশের ৩০৫টি সরকারি কলেজের শিক্ষকরা ঘোষিত পে-স্কেলে অসন্তোষ প্রকাশ করে আন্দোলন করছেন। ১০ সেপ্টেম্বর পূর্ণদিবস কর্মসূচি পালনের পর ১৯ ও ২০ সেপ্টেম্বর একই কর্মসূচি রয়েছে।
বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির মহাসচিব আই কে সেলিম উল্লাহ খোন্দকার রোববার বলেন, সিলেকশন গ্রেড বাতিল করায় অন্য ক্যাডারের সঙ্গে শিক্ষা ক্যাডারের বৈষম্য সৃষ্টি হয়েছে, তা কোনো অবস্থায়ই মেনে নেওয়া যায় না। পূর্ব ঘোষণা মতে কর্মবিরতির আন্দোলন চলবে।
এদিকে সিলেকশন গ্রেড ও টাইম স্কেল বহালের দাবিতে সোমবারের কর্মবিরতি প্রত্যাহার করে নিয়েছেন বাংলাদেশ সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি কর্মসূচি প্রত্যাহার করে নেন। ৩৩২টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এ কর্মসূচি পালনের কথা ছিল।
মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ফাহিমা খাতুন বাংলানিউজকে বলেন, তারা বিষয়টি বুঝেছেন। দাবি বাস্তবায়নের বিষয়ে তিনি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলবেন।

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com