1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :

শিলখালীর জারুলবুণিয়ায় সেনা বহর,এলাকায় নিরাপত্তাহীন মানূষের মাঝে আশার আলো

  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ২৫ আগস্ট, ২০১৫
  • ৬ দেখা হয়েছে

পেকুয়া সংবাদদাতা :
কক্সবাজারের পেকুয়ায় সশস্ত্র বাহিনীর প্রশিক্ষণ ক্যাম্প স্থাপনের সম্ভাব্যতা যাছাইয়ে শিলখালীর পাহাড়ি জনপদ জারুলবুণিয়ায় সেনা বহরের আকষ্মিক পরিদর্শনের খবর পাওয়া গেছে। ফলে, জেলার চকরিয়া-পেকুয়া দু’উপজেলার উত্তর জনপদের অংশের নিরাপত্তাহীন মানূষের মাঝে স্বস্তি ও শান্তির সু’বাতাস দেখা দিয়েছে। অভিলম্ভে দেশের প্রতিরক্ষা বাহিনীর স্বনামধন্য সেনা জওয়ানদের যূগোপযোগী পরিবেশ সম্মত প্রশিক্ষণ ব্যবস্থা নিশ্চিত করায় নয়নাভিরাম মোবারেকা এভিনিউ সড়কেই আর্মি প্রশিক্ষণ ক্যাম্পটি দ্রুত স্থাপনে সংশ্লিষ্ট সকলের সু’দৃষ্টি কামনা করেছেন এলাকাবাসী। জানা যায়, গত ২০আগষ্ট দুপুরের দিকে সেনা সদস্যবাহি ২/৩টি পাজেরো জিপ পেকুয়ায় প্রবেশ করে। সেনা সদস্য দলের এ বহরটি উপজেলার সদর ইউনিয়নের মেহেরনামা এলাকার উপর দিয়ে চড়াপাড়া নতুন বাজারের বারবাকিয়া সড়কে উপর দিয়ে পাড়ি দেয়। এক পর্যায়ে সেনা বাহিনীর এ বহরটি শিলখালী ইউনিয়নের এতিমখানা মোড় হয়ে পূর্ব দিকের পাহাড়ি মহল্লা হিসাবে পরিচিত বিশাল জনঅধ্যুষিত জারুলবুণিয়া এলাকায় যায়। সেখানে তারা উপজেলার সর্ব প্রথম সড়ক যোগাযোগ পথপরিক্রমা নয়নাভিরাম মোবারেকা এভিনিউ সড়কের ঢালার মুখ নামক এলাকা পর্যন্ত পরিদর্শন করেন। সেনা বহরের আকষ্মিক শিলখালীর পাহাড়ি এলাকা জারুলবুণিয়া সফর নিয়ে এলাকায় দেখা দিয়েছে নানা গুঞ্জন আকুতি। খবর পেয়ে এ প্রতিবেদক সরোজমিন ঘুরতে ঘটনাস্থল যান। সংবাদকর্মী কাছে পেয়ে স্থানীয় চায়ের দোকানদার নুরুল আবছার সওদাগর, ফার্মেসী দোকানদার ছাত্রদল নেতা মোঃ আবদুল জব্বার, পল্লী চিকিৎসক ডা. মৌলভী নুর মোহাম্মদ, শিলখালী ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ গিয়াসুদ্দিন, রিক্সা চালক মোঃ কাইছার, লাকড়ি ব্যবসায়ী মুখতার আহমদ কালু, কৃষক জাফর আলম, মুদি দোকানদার মোঃ ফারুক সওদাগর, কাঠুরিয়া মোঃ ইলিয়াছ, গৃহিনী নাছিমা আক্তার, মাঠিয়াল মাঝি মোঃ নুরুল কবির, মহিলা দর্জি মোছাম্মৎ পাখি বেগম, কৃষানী হাসিনা বেগম, পান চাষী ওসমান গণি, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী মোঃ হোছাইন প্রকাশ মনু সওদাগর জারুলবুণিয়ায় সেনা বাহিনীর ক্যাম্প স্থাপন প্রক্রিয়ায় সাধুবাদ ও সন্তোষ জানিয়ে বলেন, গুটিকয়েক চিহ্নিত বন ও ভুমিদূস্য এবং সমাজবিরোধী অসাধু লোকজন সেনা পরিদর্শকদলকে বিভ্রান্ত করার পাঁয়তারা চালালেও চকরিয়া-পেকুয়া দু’উপজেলার সীমান্ত মধ্যবর্তী ভৌগলিক সীমারেখায় অবস্থিত গ্রামের নাম শিলখালী। পর্যটন সম্ভাবনায় সমৃদ্ধ অবহেলিত এই শিলখালী ইউনিয়নের উল্লেখযোগ্য জনঅধ্যুষিত পাহাড়ি মহল্লা জারুলবুণিয়ার উপর দিয়েই ছিল কক্সবাজারের গোটা উপকুলীয় অঞ্চলের সমাজ সভ্যতার সর্ব প্রথম সড়ক যোগাযোগ পথ পরিক্রমা নয়নাভিরাম মোবারেকা এভিনিউ সড়ক। আর এ সড়কের মধ্যবর্তী বিস্তির্ণ পাহাড়ি এলাকায় রয়েছে দেশের প্রতিরক্ষা ও আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীগুলোর স্থায়ী অস্থায়ী প্রশিক্ষণ ক্যাম্প স্থাপনা গড়ে তোলার সু’পরিসর পরিবেশ। কেননা অর্ধশতক ধরে সংষ্কার উন্নয়ন বঞ্চিত পরিবেশ সম্মত নয়নাভিরাম জারুলবুণিয়া মোবারেকা এভিনিউ সড়কের মধ্যবর্তী স্পটের পূর্ব পশ্চিমের ২কিলোমিটারে রয়েছে সরকারের বিশাল সংরক্ষিত বনভুমি। যেখান থেকে পূর্বের অল্প দূরত্বে চকরিয়া উপজেলার উত্তর জনপদ হারবাং হয়ে আরকান সড়ক, আর পশ্চিমে কক্সবাজারের সাগরপাড়ের উপকুলীয় অঞ্চলের পেকুয়া মডেল উপজেলা। এছাড়া, জারুলবুণিয়া পাহাড়ি এলাকার উত্তর ও দক্ষিণাংশেও বিদ্যমান আছে বিস্তির্ণ পাহাড়ি এলাকা। যেখানে শুধু দেশের প্রতিরক্ষা ও আইন-শৃংখলা রক্ষা বাহিনীর অস্থায়ী স্থায়ী প্রশিক্ষণ ক্যাম্প স্থাপনের পাশাপাশি পর্যটন ও সুটিং স্পটও অল্প সময়ে স্বল্প ব্যায়ে গড়ে তোলা সম্ভব। এছাড়া, চকরিয়া-পেকুয়ার সীমান্তবর্তী শিলখালী ইউনিয়নের পাহাড়িগ্রাম জারুলবুণিয়া ও তার আশেপাশের এলাকাগুলো প্রায় সময় সরকার ও স্থানীয় প্রশাসনের নজরদারীর আওতার বাইরে থেকে যাওয়ায় সেখানে বিচ্ছিন্ন ভাবে নিরবে নিবৃত্তে সংঘঠিত হয়ে আসছে বন ও ভুমিদূস্যদের বিভিন্ন অপতৎপরতার পাশাপাশি নানা অপরাধ মূলক তৎপরতা। যা নিয়ে কারো মাথা ব্যাথা না থাকলেও উল্লেখযোগ্য জনঅধ্যুষিত জারুলবুণিয়া ও তার আশপাশের এলাকায় বসবাসকারী বিশাল জনগোষ্টির মধ্যে সবসময় বিরাজমান ছিল চরম নিরাপত্তাহীনতা। যা নিয়ে দীর্ঘদিন যাবত তারা রয়েছে  উদ্বেগ আতংকে। যার কারণে, স্থানীয়রা পেকুয়া উপজেলার শিলখালী ইউনিয়নের পাহাড়ি মহল্লা জারুলবুণিয়া ও তার আশপাশের পাহাড়ি এলাকাকে দেশের প্রতিরক্ষা বিভাগের সেনা, নৌ, বিমান বাহিনী, বিজিবি, আনসার ও আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের জন্য স্থায়ী অস্থায়ী প্রশিক্ষণ ক্যাম্প ও বিভিন্ন পর্যটন সুটিং স্পট গড়ে তোলার প্রচুর সম্ভাবনা রয়েছে মন্তব্য করে পেকুয়া উপজেলার শিলখালী ইউনিয়নের জারুলবুণিয়ার পাহাড়ি এলাকা তথা জেলার উপকুলীয় অঞ্চলের প্রথম সড়ক যোগাযোগ সভ্যতার পথ পরিক্রমা মোবারেকা এভিনিউ সড়ক কেন্দ্রিক পর্যটন শিল্পের বিকাশকে সময়ের দাবী উল্লেখ করে অভিলম্ভে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার শিলখালী ইউনিয়নের জারুলবুণিয়া ও তার আশপাশের বিস্তির্ন নির্জন নয়নাভিরাম পাহাড়ি এলাকায় দেশের সেনা বাহিনী ও আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীগুলোর প্রশিক্ষন ক্যাম্প স্থাপনের পাশাপাশি বিভিন্ন পর্যটন প্রতিষ্টান গড়ে তুলতে সরকার ও সংশ্লিষ্ট সকলের পদক্ষেপ চেয়ে দৃষ্টি আকর্ষন করেন। এতে তারা স্থানীয়দের পাশাপাশি দেশের উল্লেখযোগ্য বর্তমান ও ভবিষ্যত প্রজন্মের নিশ্চিদ্র নিরাপদ বসবাস নিশ্চিত সম্ভব হবে বলে জানান। এবং এবিষয়ে দ্রুত কার্যকর ব্যবস্থা নিতে সরকার ও সংশ্লিষ্ট বাহিনী বিভাগ সহ স্থানীয় প্রশাসনের আশু পদক্ষেপ গ্রহনে সু’দৃষ্টি কামনা করেন এলাকাবাসী।

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com