1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
শিরোনাম :
আমি মরে গেলে আমার সব সৃষ্টি ধ্বংস করো- কবীর সুমন রাত ৮টায় এল ক্লাসিকো যুদ্ধে বার্সা-রিয়াল করোনায় আরও ১৯ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১০৯৪ সাংবাদিকনেতা গাজীর মুক্তির দাবিতে কক্সবাজারে মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ কক্সবাজার প্রধান সড়ক বিএস মতে সড়ক বিভাগের অধিগ্রহণকৃত জমিতেই নির্মিত হবে ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও প্রধান বিচারপতির শোক দুঃসময়ে আইনি লড়াইয়ে এগিয়ে আসেন ব্যারিস্টার রফিক-উল হক: প্রধানমন্ত্রী সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার রফিক-উল হক আর নেই টেকনাফ পৌর-ছাত্রলীগের বিশেষ জরুরী সভা অনুষ্ঠিত দ্রুত সময়ের মধ্যে সিনহা হত্যা মামলার নিষ্পত্তি: র‌্যাব ডিজি

সাকিবের দাম ৫৫ লাখ টাকা!

  • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬
  • ১৮ দেখা হয়েছে

বিপিএল শুরুর আগে টুর্নামেন্টের নিয়ম নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠছে। এবার আইকন খেলোয়াড় নেই। তার বদলে এ-প্লাস। দেশের শীর্ষ ক্রিকেটারদের নিয়ে এ-প্লাস শ্রেণী করেও তিন ধাপে দাম নির্ধারণ করা হয়েছে তাদের। সাকিব আল হাসানের দাম ৫৫ লাখ, মাশরাফি

মুর্তজা, মাহমুদউল্লাহ, মুশফিকুর রহিম ও তামিম ইকবালের ৫০ লাখ টাকা করে। সাব্বির ও সৌম্য সরকারের দাম ৪০ লাখ টাকা। নামে প্লেয়ার্স বাই চয়েজ পদ্ধতি হলেও নির্ধারিত মূল্যের বেশি দিয়ে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো আইকন খেলোয়াড়দের দলে ভিড়িয়েছে। আয়োজক কমিটি বলছে, সাকিব নিশ্চয়ই দ্বিগুণ পারিশ্রমিক ছাড়া দলে যায়নি। অন্য ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো বলছে, সাকিবকে চাপ দিয়েই ঢাকায় ভিড়িয়েছে দলটি। বিদেশীদের ক্ষেত্রেও বিসিবির তালিকা থেকে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো খেলোয়াড় কিনে নিয়েছে। আগামীকাল বিপিএলের প্লেয়ার্স ড্রাফটস। দেশী ১৪৪ এবং বিদেশী খেলোয়াড় ১৬৮ জনের মধ্যে থেকে যাদের কেনা হয়েছে, তাদের বাদে বাকিদের নিয়ে নিলাম হবে। কাল মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে বিপিএল গভর্নিং কমিটির সংবাদ সম্মেলনে একথা বলা হয়।

আসন্ন বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগে (বিপিএল) দেশের খেলোয়াড়দের মধ্যে সবচেয়ে দামি খেলোয়াড় হলেন ঢাকা ডায়নামাইটসের সাকিব আল হাসান। এ-প্লাস ক্যাটাগরিতে সাতজন খেলোয়াড়দের অন্যতম তিনি। এই শ্রেণীতে ঠাঁই পেয়েছেন বাংলাদেশের শীর্ষ ক্রিকেটাররা। সাকিবের দাম ৫৫ লাখ টাকা। মুশফিকুর রহিম (বরিশাল বুলস), তামিম ইকবাল (চিটাগাং ভাইকিংস), মাশরাফি মর্তুজা (কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স) ও মাহমুদউল্লাহ (খুলনা টাইটানস) পাবেন ৫০ লাখ টাকা করে। এ-ক্যাটাগরি খেলোয়াড় হিসেবে সাব্বির রহমান ও সৌম্য সরকারের পারিশ্রমিক ৪০ লাখ টাকা করে। দু’জনই খেলবেন রাজশাহীর হয়ে।

গত বিপিএলে আইকন ক্রিকেটারদের পারিশ্রমিক ছিল সমান ৩৫ লাখ। এবার আর আইকন নেই। তার বদলে সমমর্যাদার এ-প্লাস গ্রেড করা হয়েছে। এই গ্রেডে রাখা হয়েছে সাত ক্রিকেটারকে।

এ-প্লাস গ্রেডে সবার পারিশ্রমিক এক না হওয়ার কারণ ব্যাখা করেন। তিনি বলেন, ‘ক্রিকেটারদের পারিশ্রমিক নির্ধারণ করা হয়েছে মেরিট অনুযায়ী। সাকিব আমাদের দেশের একমাত্র ক্রিকেটার যে বিশ্বজুড়ে বিভিন্ন টি ২০ লীগে খেলে। ওর দাম অন্যদের থেকে বেশি হওয়া স্বাভাবিক। নির্বাচকদের সঙ্গে কথা বলেই আমরা এটা ঠিক করেছি। সেরাকে তো সেরার মূল্য দিতে হবেই।’ সাব্বির ও সৌম্যকে তুলনামূলক কম পারিশ্রমিক দেয়ার কারণও জানালেন সদস্য সচিব। তার ব্যাখ্যা ‘সাকিবের পরে যারা আছে সিনিয়ররা, ওদের রাখা হয়েছে একটু কম। যদিও পার্থক্য খুব বেশি নয়, পাঁচ লাখ। সৌম্য ও সাব্বিরের ক্ষেত্রে জাতীয় দলে খেলার সময় এবং গত ক’বছরে ঢাকা প্রিমিয়ার লীগ ও বিপিএলে মূল্য বিবেচনায় নিয়ে মূল্য নির্ধারিত হয়েছে।’ নির্ধারিত পারিশ্রমিকই শেষ কথা নয়, দলগুলোর সঙ্গে দরকষাকষি করে পারিশ্রমিক আরও বাড়িয়ে নেয়ার সুযোগ এই গ্রেডের ক্রিকেটারদের দেয়া হয়েছে। তবে বাড়তি সেই টাকা পাওয়ার দায়িত্ব নিতে হবে ক্রিকেটারদেরই।

এবার বিপিএলের খেলোয়াড়দের নিরাপত্তা দেবে বিসিবি। কিন্তু সঙ্গে ফ্র্যাঞ্চাইদের জন্যও আলাদা নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। এই টি ২০ টুর্নামেন্ট শুরু হবে ৪ নভেম্বর। ঢাকা ও চট্টগ্রামের দুটি ভেন্যুতে সবগুলো ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। চট্টগ্রামে পাঁচদিন খেলা হবে। প্রথম ম্যাচ থেকে ফাইনাল পর্যন্ত মোট ৪৬টি ম্যাচ। লীগে ১০ জন দেশী ও তিনজন বিদেশীয় খেলোয়াড় রাখতে হবে প্রতিটি দলকে। বিদেশী খেলোয়াড় সর্বোচ্চ চারজন খেলানো যাবে। এছাড়া বিসিবির সঙ্গে জড়িত বিদেশী কোচ ছাড়া সবাই যে কোনো ফ্র্যাঞ্চাইজির সঙ্গে যুক্ত হতে পারবেন। তবে নির্বাচকরা ড্রেসিংরুমে থাকতে পারবেন না। এবারও প্রতিটি দল গ্র“প ম্যাচ খেলবে দু’বার করে। এবারও এলিমিনেটর পদ্ধতি থাকবে। নতুন দুটি দল যুক্ত হয়েছে খুলনা ও রাজশাহী। এছাড়া রংপুরের মালিকানা বদল হয়েছে। আগে ছিল আই স্পোর্টেস। এখন নিয়েছে সোহানা স্পোর্টস লি.।

বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের চেয়ারম্যান আফজালুর রহমান সিনহা বলেন, ‘আমরা প্রস্তুত। বাকি কাজ হলেই ৪ নভেম্বর মাঠে গড়াবে বিপিএল।’

বিপিএল গভর্নিং কমিটির সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক বলেন, ‘এক-দেড় বছরের মধ্যে যারা ওয়ানডে এবং টি ২০ ক্রিকেটে ভালো খেলেছে তারাই এ-প্লাস শ্রেণীতে সুযোগ পেয়েছে। মুস্তাফিজ এই তালিকায় থাকতে পারত, কিন্তু সে ইনজুরিতে।’ তিনি বলেন, ‘আইকন খেলোয়াড়দের মধ্যে সাকিব ঢাকায়, মুশফিক বরিশালে, তামিম ইকবাল চিটাগংয়ে, মাহমুদউল্লাহ খুলনায়, মাশরাফি কুমিল্লায়, সাব্বির রাজশাহী ও সৌম্য সরকার রংপুরে।’

পাঁচটি পুরনো দল দু’জন করে খেলোয়াড় রেখে দেয়ার সুযোগ পেয়েছে। তাই নতুন দুটি দল খুলনা এবং রাজশাহী প্রথম ডাকের সুযোগ পাবে। এই দুটি দলের মধ্যে লটারি হবে। এখন পর্যন্ত ঢাকা মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ও নাসির হোসেনকে, চট্টগ্রাম তাসকিন ও এনামুলকে, রংপুর আরাফাত সানি ও মোহাম্মদ মিঠুনকে, কুমিল্লা ইমরুল কায়েস ও লিটন দাসকে, বরিশাল আল-আমিন হোসেন ও তাইজুল ইসলামকে নিয়েছে। প্লেয়ার্স চয়েজে দুই রাউন্ডের জন্য একবার লটারি হবে। এক থেকে সাত, এরপর সাত থেকে এক।

উৎসঃ   যুগান্তর

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com