1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :

সিলেটে রাজনৈতিক সহিসংতায় ২৯ খুন

  • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট, ২০১৫
  • ৮ দেখা হয়েছে

সিলেট প্রতিনিধি :
সিলেটে রাজনৈতিক গ্রুপিংয়ে একের পর এক হত্যাকান্ড ঘটছে। তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এক পক্ষ আরেক পক্ষের ওপর হামলে পড়ছে। অকালে ঝড়ে যাচ্ছে মা-বাবার আদরের প্রিয় সন্তান। রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় জরিয়ে পড়ছে ক্যাম্পাসের প্রিয় মুখ। এসব ঘটনায় মামলা হলেও যথাযথ তদন্তের অভাবে আড়ালে থেকে যায় মূল অপরাধিরা। কোন কোন সময় রাজনৈতিক নেতাদের আপোষ হস্তক্ষেপে পার পেয়ে যায় খুুনিরা। গতকাল বুধবার মদন মোহন কলেজ ছাত্রলীগের অভ্যান্তরীণ কোন্দলে নিজ দলের ক্যাডারদের ছুরিকাঘাতে ছাত্রলীগের এককর্মী খুন হয়েছেন। নিহত আবদুল আলীম (১৯) কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র ও দক্ষিণ সুরমা উপজেলার মোগলাবাজার থানার সিলাম তেলিপাড়া গ্রামের আকলিস মিয়া আরকানের ছেলে। বেলা আড়াইটায় সিওমেক হাসপাতালে তিনি মারা যান। সে ছাত্রলীগ বিধান সাহা গ্রুপের কর্মী।
২০১৪ সালে ছাত্রলীগের অভ্যান্তরীণ কোন্দলের কারণে শাবিতে খুন হন মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির মেধাবি ছাত্র সুমন, একই সালের ২৭ জুলাই নিজ দলের ক্যাডারদের হাতে খুন হন গোবিন্দগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ও সিলেট মহানগর ছাত্রদল নেতা জিল¬ুল হক জিলু। মিজান গ্রুপ থেকে জামান গ্রুপে যোগ দেয়ার কারণে এ খুনের ঘটনা ঘটেছে বলে জিলুর সহকর্মী অনেকেই জানিয়েছেন। এর আগে ৪ জুন চাঁদা না দেয়ায় সিলেট ওসমানি মেডিকেল কলেজেরে এমবিবিএস শেষ বর্ষের ছাত্র তাওহিদকে বেধড়ক পিঠিয়ে হত্যা করে ছাত্রলীগ ক্যাডাররা। মদন মোহন কলেজের মেধাবি ছাত্র সোহান হত্যা,ছাত্রলীগ নেতা জগৎজ্যোতি হত্যাসহ একের পর এক রাজনৈতিক খুনের ঘটনায় শান্ত জনপদ সিলেট পরিণত হচ্ছে অশান্তির জনপদে।
জানা যায় ,২০১২ সালে নিজ দলের ক্যডারদের হাতে শিবগঞ্জে খুন হন ছাত্রদল নেতা মেহরাব সিদ্দিকি সজিব। একই বছরের ২২ মার্চ ছাত্রদলের অভ্যন্তরীন কোন্দলের কারণে খুন হন ছাত্রদল নেতা মাহমুদ হোসন শওকত। শওকত হত্যা মাামলার জামিন নিতে গিয়ে গুম হন মহানগর ছাত্রদল নেতা ইফতেখার আহমদ দিনার ও জুনেল আহমদ।
২০১১ সালের ১৯ অক্টোবর ছাত্রদল কর্মীদের হাতে খুন হন মদন মোহন কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র ও ছাত্রলীগ কর্মী আল মামুন শিহাব। নগরীর কাজী ম্যানশনস্থ ব্যবসা প্রতিষ্টান থেকে নিজ বাসায় যাওয়ার পথে ছাত্রদল কর্মীদের সশস্ত্র হামলা খুন হন তিনি। ২০১০ সালের ১২ জুলাই ছাত্রলীগের অভ্যান্তরীণ কোন্দলের বলি হন এমসি কলেজ গণিত ৩য় বর্ষেরর ছাত্র ও ছাত্রলীগ কর্মী উদয়েন্দু সিংহ পলাশ। ২০০৩ সালের ৭ জানুয়ারি সিলেট সরকারি কলেজে ছাত্রদলের হাতে খুন হন ছাত্রলীগ কর্মী আকবর সুলতান, ১৯৯৮ সালের ২৩ মে শিবির কর্মী মহসিন খুন হন। ১৯৯৭ সালের ৪ জানুয়ারি রুহুল আমিন,১৯৯৬ সালের ৪ সেপ্টেম্বর বাবু আহমদ, ছাত্রলীগের সংঙ্গে সংঘর্ষেৃ ১৯৯১ সালের ১৬ ডিসেম্বর খুুন হন ছাত্রদল কর্মী মাহবুবুল আলম।
২০০৪ সালের ২ সেপেপ্টম্বর খুন হন ভেটেরিনারি কলেজ ছাত্রদল নেতা রফিকুুল হাসান সোহাগ, ২০০২ সালের ৯ সেপ্টেম্বর শিবিরের হাতে খুন হন মদন মোহন কলেজ ছাত্রদল নেতা হামিদ খান দুয়েল , ১৯৯৮ সালে ওসমানেেী মডিকেল কলেজ ছাত্র ও ছাত্র লীীগ নেতা সৌমিত্র বিশ্বাস খুন হন, ১৯৯৫ সালে মুরাদ চৌধুরী সিপার ও মোহিন খান, ১৯৯৪ সালে এনামুল হক মুন্না, ১৯৯৩ সালের ২৩ মে সসররকারি কলেজের দুলাল, ১৯৯১ সালে ছাত্রদলের অভ্য্যন্তরীন কোন্দলে বিশ্বনাথ ডিগ্রি কলেজের বিধান, একই বছরে ৬ মে নগরীতে ছাত্রদলের অভ্যন্তরীন কোন্দলে সাজু আহমদ, প্রতিপক্ষের হামলায় খুন হন ছাত্রদল কর্মী সৌরভ। ১৯৮৮ সালে শিবির ক্যাডারদের হাতে জাসদ ছাত্রলীগের নেতা মুনির-ই-কিবরিয়া চৌধুরী, তপন জ্যোতি ও এনামুল হক জুয়েল মূলত এখান থেকেই শুরু হয় রাজনৈতিক হত্যাকান্ড ।
এ ব্যাপারে সিলেট জেলা জজ আদালতের সিনিয়র আইনজীবি মোহাম্মদ লালা জানান,একের পর এক রাজনৈতিক হত্যাকান্ড ঘটছে এবং দুর্বল তদন্তের কারণে তা আবার নিষ্পত্তিও হচ্ছে এবং অপরাধিরা পার পেয়ে যাচ্ছে তাই সঠিক তদন্ত ও অপরাধিদের চিহ্নিত করে শাস্তির ব্যবস্থা করলে অন্য অপরাধিরা এ ধরনের জঘণ্য অপরাধ করতে সাহস পাবে না ।
এ ব্যাপারে এসএমপি কমিশনার কামরুল আহসান জানান, প্রত্যেকটি অপরাধের জড়িত অপরাধি যেই দলের হোকনা কেন তাকে আটক করে আইনরে আওতায় এনে শাস্থির ব্যাবস্থা করা হবে এবং যে কোন ধরণের অপরাধ মূলক কর্মকান্ড দমনে পুলিশ সক্রিয় রয়েছে ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com