1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :

সেন্টমার্টিন দ্বীপ রক্ষায় ৯ দফা দাবীতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি

  • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ১৯ দেখা হয়েছে

প্রেস বিজ্ঞপ্তি :
কক্সবাজারের প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিন রক্ষায় ৯ দফা ও উচ্চ আদালতের রায় বাস্তবায়নের দাবীতে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি দিয়েছে পরিবেশ বিষয়ক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘এনভায়রনমেন্ট পিপল’। আজ (বৃহস্পতিবার) দুপুরে কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো: কামাল হোসেন এর মাধ্যমে এ স্মারকলিপি দেয়া হয়। এ সময় চ্যানেল আই এর প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশন কক্সবাজারের উপদেষ্ঠা সরওয়ার আজম মানিক, এনভায়রনমেন্ট পিপল এর প্রধান নির্বাহী রাশেদুল মজিদ, রিপোর্টার্স ইউনিটি কক্সবাজারের সভাপতি এইচ এম নজরুল ইসলাম, পরিবেশ কর্মী সাইফুল ইসলাম ও সিরাজুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।
স্মারকলিপিতে ৯ দফা দাবীর মধ্যে রয়েছে যথাক্রমে বিদ্যমান প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকা (ইসিএ-তে ৯টি পয়েন্টের নিষিদ্ধ কার্যক্রম রোধ কল্পে) ‘ইসিএ’ আইন কঠোর ভাবে প্রয়োগ করা, দ্বীপে প্লাস্টিকের ব্যবহার বন্ধ করা, দ্বীপে পর্যটক ও পর্যটন সংশ্লিষ্ট যাবতীয় কর্মকান্ড এবং পর্যটকদের আচরণ নিয়ন্ত্রণ ও নির্ধারণ করা, ছেড়াদ্বীপে পর্যটক নিষিদ্ধ করা, দ্বীপ ও জাহাজের অপচনশীল বর্জ্য দ্বীপ থেকে সরিয়ে নেয়ার পাশাপাশি স্থায়ী বর্জ্য ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করা, দ্বীপে নিরাপদ খাবার পানির উৎস্য নিশ্চিত করা, পরিবেশ ছাড়পত্র ব্যতিত হোটেল ও রির্সোট তৈরী বন্ধ করা, উচ্চ আদালতের মামলার রায় বাস্তবায়ন করা এবং স্থানীয় মানুষের জীবন-জীবিকা (দ্বীপের বাসিন্দাদের মতামতসহ), জীববৈচিত্র্য ও দ্বীপ রক্ষায় সুষ্পষ্ঠ নীতিমালা তৈরী করা।
এনভায়রনমেন্ট পিপল এর প্রধান নির্বাহী রাশেদুল মজিদ বলেন, ‘দূষণের কারণে দেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিন এখন হুমকিতে। ৯ দফা ও উচ্চ আদালতের রায় বাস্তবায়ন করা না হলে ধীরে ধীরে দ্বীপটির অস্তিত্ব বিপন্ন হবে। এখনি এ বিষয়ে আমাদের পদক্ষেপ নেয়া জরুরী।’ এর আগে ২৭ ও ২৮ জানুয়ারি সংগঠনটির ৪৫ জন স্বেচ্ছাসেবী দ্বীপটিতে পরিচ্ছন্নতা অভিযান, দ্বীপের পরিবেশ রক্ষায় স্থানীয় বাসিন্দাদের সাথে সচেতনতামূলক মতবিনিময় সভা, পর্যটক ও স্থানীয়দের মধ্যে সচেতনতামূলক প্রচারপত্র বিলি, মানববন্ধন এবং দ্বীপের ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা পরিদর্শন করেন।

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com