1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. joaopinto@carloscostasilva.com : randaldymock :
  3. makaylabeaurepaire@1secmail.com : scotty7124 :
  4. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  5. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
  6. bblythe20172018@mail.ru : traceyhowes586 :
শিরোনাম :
মধ্যরাতে স্কুল শিক্ষককে হত্যার হুমকি : সহযোগিতা করলো না পুলিশ। রিপোর্টার্স ইউনিটি কক্সবাজার’র নির্বাচন কাল দুদকের মামলায় কারাগারে টেকনাফের সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান সিটি নির্বাচন বানচাল করতে আ’ লীগ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে ব্যবহার করছে: খসরু  ইসলামাবাদে মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত-১ নাপিতখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ফুটবল প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ দারোয়ান-গৃহকর্মী নিয়োগ দিলে পুলিশকে জানানোর আহ্বান বাগদাদের বুকে আত্মঘাতী বোমা হামলায় নিহত ২৮ ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আরও ১৬ মৃত্যু, শনাক্ত ৫৮৪ মুজিববর্ষে জমিসহ নতুন ঘর পাচ্ছে ৮৬৫ গৃহহীন, শনিবার হস্তান্তর করবেন প্রধানমন্ত্রী

স্কুল ভবন ঝুকিপূর্ণ, তাই খোলাকাশে চার শতাধিক শিক্ষার্থীর পাঠদান

  • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট, ২০১৫
  • ১৫ দেখা হয়েছে

এম আবু হেনা সাগর, ঈদগাঁও :
স্কুল ভবন ঝুকিপূর্ণ, তাই পাঠদান করা হচ্ছে খোলাকাশে। এমনকি পরীক্ষাও নিতে হচ্ছে স্কুল মাঠে। বেকায়দায় পড়েছে ৪’শ কোমলমতি শিক্ষার্থী, শিক্ষক, এসএমসি ও অভিভাবক। কক্সবাজার সদরের ইসলামাবাদ সাতঝোলাকাটা ঐতিহ্যবাহী ইছাখালী সরকারী প্রাইমারী স্কুলের এ দৃশ্য সকলেরই নজর কাড়ছে। জরুরী ভিত্তিতে একটি স্কুল গৃহ নির্মানের জন্য সরকারী বেসরকারীভাবে এগিয়ে আসার আহবান এলাকাবাসীর। ইছাখালী সরকারী প্রাইমারী স্কুলটি অতি প্রাচীনতম একটি প্রতিষ্টান। ১৯৩২ সালে স্থাপিত এ স্কুলটি একটি পুরাতন কমিউনিটি কাম সাইক্লোন সেল্টারে দীর্ঘদিন ধরে চলছিল। কালেক্রমে এটি পরিত্যক্ত ঘোষনা করার পর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ টেন্ডারের মাধ্যমে নিলামে নিয়ে আসে। এরপর আরেকটি একতলা ভবন নির্মিত হয়। প্রায় ২ যুগ চলার পর এটিও পরিত্যক্ত হয়ে পড়ে। সবশেষে ১৯৯৪ সালে নির্মিত হয় আরেকটি একতলা ভবন। গত প্রায় ২ সপ্তাহ পূর্বে উক্ত ভবনের অংশবিশেষ ফাটল ধরে ঝরে পড়ে যাওয়ায় বিষয়টি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সহ উর্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করার পর একটি বেঠক হয়। বৈঠকে সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো: আবু শামীম, উপ-সহকারী প্রকৌশলী আমিনুল হক মজুমদার, বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি গিয়াস উদ্দিন, ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক রাবিয়া বেগম, ইউপি সদস্য ওমর মিয়া. আরফা আক্তার ও ফাইজা আকতার উপস্থিত ছিলেন। সভায় বিদ্যালয় ভবনের অংশবিশেষ ভেঙ্গে পড়ার দৃশ্যটি ইঞ্জিনিয়ারের নের্তৃত্বে স্বচক্ষে দেখার পর ভবনটি ঝুকিপূর্ণ ঘোষনা করা হয়। উক্ত ভবনটির স্থলে একটি নতুন ভবন নির্মানে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার জন্য সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এদিকে ১ তলা ভবনটি ঝুকিপূর্ণ হওয়াতে স্কুল ভবনের সামনে মাঠে শিক্ষার্থীরা খোলাকাশে ক্লাস করছ্।ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রাবিয়া বেগমের মতে, বিদ্যালয়ের করুণ অবস্থার ঘটনা লিখিতভাবে সদর ইউএনও এবং উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে জানিয়েছি। বাইরে ক্লাস করা খুবই কষ্টকর। একদিকে খোলা , অন্যদিকে রোদ-বৃষ্টি তাছাড়া শিক্ষার্থীদের মনোযোগ আকর্ষন নিয়ে সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। এছাড়া বেঞ্চ বাইরে রাখা কিংবা ভেতরে প্রতিদিন ঢুকানোও আরেক সমস্যা। নতুন ভবন নির্মাণ খুবই জরুরী বলে তিনি জানান। তবে স্থানীয় অভিভাবকমহলের মতে, অতি প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী এ বিদ্যালয়ে একটি শক্তিশালী সাইক্লোন সেল্টার দরকার। কেননা এলাকাটি উপকূলীয় ও জলোচ্ছাসপ্রবণ। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতির মতে, আমি নিজ খরছে বেড়া বিহীন ছাউনীযুক্ত ছোট্ট একটি কক্ষ নির্মাণ করেছি। অতি জরুরী ভিত্তিতে ৫/৬ টি কক্ষ নির্মান করা না হলে কোমলমতি শিশুরা তাদের প্রাপ্য শিক্ষা হতে বঞ্চিত হবে। এলাকার ওয়ার্ড মেম্বার ওমর আলীর মতে, শিশুরা যাতে সুশিক্ষা হতে বঞ্চিত না হয় সেজন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সু-দৃষ্টি প্রয়োজন।

এই বিভাগের আরও খবর

  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com