1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. joaopinto@carloscostasilva.com : randaldymock :
  3. makaylabeaurepaire@1secmail.com : scotty7124 :
  4. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  5. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
  6. bblythe20172018@mail.ru : traceyhowes586 :
শিরোনাম :
মধ্যরাতে স্কুল শিক্ষককে হত্যার হুমকি : সহযোগিতা করলো না পুলিশ। রিপোর্টার্স ইউনিটি কক্সবাজার’র নির্বাচন কাল দুদকের মামলায় কারাগারে টেকনাফের সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান সিটি নির্বাচন বানচাল করতে আ’ লীগ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে ব্যবহার করছে: খসরু  ইসলামাবাদে মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত-১ নাপিতখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ফুটবল প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ দারোয়ান-গৃহকর্মী নিয়োগ দিলে পুলিশকে জানানোর আহ্বান বাগদাদের বুকে আত্মঘাতী বোমা হামলায় নিহত ২৮ ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আরও ১৬ মৃত্যু, শনাক্ত ৫৮৪ মুজিববর্ষে জমিসহ নতুন ঘর পাচ্ছে ৮৬৫ গৃহহীন, শনিবার হস্তান্তর করবেন প্রধানমন্ত্রী

২ দিনেও খোঁজ মিলেনি মোস্তাকের : আইন শৃংখলা বাহিনীর ভুমিকা নিয়ে জনমনে নানা প্রশ্ন, পরিবারে উৎকন্ঠা

  • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট, ২০১৫
  • ৩০ দেখা হয়েছে

কক্সবাজার আলো :
প্রশাসনের লোক পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া টেকনাফ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব জাফর আহমদের বড় ছেলে ও উপজেলা যুবলীগের যুগ্ন-সম্পাদক হাজী মোস্তাক আহাম্মদ’র ২ দিনেও খোঁজ  মিলেনি। এতে করে পরিবারের পক্ষে আইন প্রয়োগকারি সংস্থার লোকজন তাকে তুলে নিয়ে গেছে বলে দাবি করা হলেও অদ্য বৃহস্পতিবার পর্যন্ত তার সঠিক অবস্থান না পাওয়ায় পরিবারে চরম উদ্বেগ-উৎকন্ঠা বিরাজ করছে। ইতিমধ্যে তাকে জনসম্মুখে হাজির করার দাবি জানিয়ে বুধবার দুপুরে টেকনাফ পৌর যুবলীগের ব্যানারে এক প্রতিবাদ সভা করা হয়েছে। মোস্তাকের রহস্যজনক এ অপহরণের খোঁজ না মেলায় পুরো জেলাজুড়ে নানা আলোচনা সমালোচনা চলছে। অপরদিকে বিভিন্ন লোকজন তার খোজ-খবর নিতে জেলার বিভিন্ন থানার অফিসারদের সাথে টেকনাফ ও কক্সবাজার শহরের বিভিন্ন সাংবাদিকদের সাথে একাধিক যোগাযোগ করছে বলে জানা গেছে। সরেজমিনে টেকনাফে দেখা গেছে, চেয়ারম্যান পুত্র মোস্তাককে তুলে নিয়ে যাওয়ার পর থেকে তার বাড়ির সামনে পুলিশ অবস্থান করতেছে। সাধারন মানুষের মধ্যে চরম চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। সাধারন মানুষের একটাই দাবী, অভিলম্বে হাজী মোস্তাককে জনতার সামনে হাজির করা হউক অন্যথায় বৃহত্তর আন্দোলন ঘোষনা করারও কর্মসুচীও আসবেই বলে শোনা যাচ্ছে। এদিকে টেকনাফ উপজেলা চেয়ারম্যান মোস্তাকের সন্ধানের দাবীতে বৃহস্পতিবার তার পরিবারের পক্ষ থেকে কক্সবাজারে সাংবাদিক সম্মেলন করারও প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে।
সূত্র জানায়, গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে টেকনাফ পৌরসভার পুরানপল্ল­ান পাড়া এলাকায় চেয়ারম্যানের নিজ বাড়ির সামনে থেকে মোস্তাককে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার লোক পরিচয়ে অজ্ঞাত ব্যাক্তিরা মাইক্রো যোগে তুলে নিয়ে যায়।
তবে মুহুর্তের মধ্যে মোস্তাককে তুলে নেওয়ার খবরে জাফর চেয়ারম্যানের সমর্থকরা তাৎক্ষনিক বাস স্টেশন ঝর্না চত্তর ও হোয়াইক্যং বাস ষ্টেশন এলাকায়  বিক্ষোভ ও টায়ার জালিয়ে সড়ক অবরোধ করে। এতে করে সমস্ত দোকান পাঠ ও যানবাহন বন্ধ হয়ে যায়। এ সময় পুরো টেকনাফ ষ্টেশন ও বাজারে আতংক ছড়িয়ে পড়ে।
সাধারন মানুষের দাবী, একজন জলজ্যান্ত মানুষকে এভাবে উঠিয়ে নিয়ে যাওয়ার ২ দিন হলেও তাঁর অবস্থান বের করতে না পারা প্রশাসনের ব্যর্থতা বলে মনে করেন তারা। ঘটনার পর থেকে টেকনাফ এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।
টেকনাফ বাস ষ্টেশনের দোকানদার মোহাম্মদ আলম জানান, রহস্যজনক ‘অপহরণ’র শিকার মোস্তাককে প্রশাসন খুঁজে বের করুক এমনটি চান। তিনি বলেন, একজন সাধারন মানুষকে জনতার সামনে থেকে প্রশাসনের লোক পরিচয় দিয়ে তুলে নিয়ে যাওয়ার পর আবার তারা অস্বিকার করছে এতে করে আইন শৃংখলা বাহিনীর প্রতি জনগনের আস্তা হারিয়ে যাবে। তিনি অভিলম্বে মোস্তাককে ফিরে পেতে চান।
এ ব্যাপারে মোস্তাকের ছোট ভাই রাসেল কক্সবাজার আলোকে জানান, তার বড় ভাইকে তুলে নিয়ে যাওয়ার পর বাড়িতে কেউ ভাত খাইনি এমনকি তাদের মা বাবার কান্নায় আকাশ বাতাস ভারী হয়ে উঠেছে। তিনি আরো বলেন, মোস্তাক দোষি হোক বা নির্দোষ হোক তাকে থানায় বা আদালতে অন্তত হাজির করা হউক তাতেই সকলের আতœা শান্তি পাবে।
এদিকে টেকনাফে দেখা গেছে, আইন শৃংখলা অবনতির আশংকায় ঘটনার পর থেকে এলাকায় পুলিশ-বিজিবি টহল টহল বাড়ানোর পাশাপাশি পুলিশের কয়েকটি টিম বিভিন্ন মোড়ে অবস্থান করছে। এলাকার পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।
টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: আতাউর রহমান খোন্দকার জানান, এলাকায় আইন শৃংখলা অবনতির ঠেকাতে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। তাছাড়া বিজিবির টহল জোরদার রয়েছে।  তবে চেয়ারম্যান পুত্রের বিষয়টি তিনিও শুনেছেন এবং কারা নিয়ে গেছে তা খোঁজ নিচ্ছেন বলে জানান। এদিকে বৃহস্পতিবার দুপুরে কক্সবাজার র‌্যাব-৭ কর্তৃক সদর মডেল থানায় সোপর্দ করার গুজব শুনলে সাধারন মানুষ মডেল থানার আশপাশ এলাকায় খোঁজ নিতে ভিড় করছে বলে জানা গেছে।
এ ব্যাপারে কক্সবাজার সদর মডেল থানার অপারেশন অফিসার আবদুল কাইয়ুম চৌধুরী কক্সবাজার আলোকে জানান, এটা শ্রেফ গুজব থানায় এ রকম কাউকে সোপর্দ করেনি।

এই বিভাগের আরও খবর

  • © ২০১৪ - ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com