রবিবার , ৩০ আগস্ট ২০১৫ | ১৫ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আরো
  6. ইসলাম
  7. এক্সক্লুসিভ
  8. কক্সবাজার
  9. করোনাভাইরাস
  10. খেলাধুলা
  11. জাতীয়
  12. জেলা-উপজেলা
  13. পর্যটন
  14. প্রবাস
  15. বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি

চলাচল অযোগ্য হয়ে পড়েছে শহরের নিউ সার্কিট হাউজ রোড

প্রতিবেদক
কক্সবাজার আলো
আগস্ট ৩০, ২০১৫ ৭:৪৩ অপরাহ্ণ

ছৈয়দ আলম, কক্সবাজার আলো :
পর্যটন রাজধানী খ্যাত কক্সবাজার শহরের সড়ক-উপ সড়কের অবস্থা অত্যান্ত শোচনীয় পর্যায়ে পৌঁছেছে। তার মধ্যে সবচেয়ে ভিআইপি সড়ক তথা নিউ সার্কিট রোড বর্তমানে খানা খন্দকে একদম চলাচল অনুপযোগি হয়ে পড়েছে। এই সড়কের মাঝে রয়েছে হিলটপ সার্কিট হাউজ রোড ও নিউ সার্কিট হাউজ রোড। সেখানে প্রতিদিন সরকারের মন্ত্রী, এমপি ও জেলা প্রসাশনের কোন না কোন কর্মকর্তা এই রোড দিয়ে যাতায়াত করে। আর কক্সবাজারে বেড়াতে আসা হাজার হাজার পর্যটক এই সড়ক দিয়ে নিয়মিত হোটেল মোটেল জোন ও সমুদ্র সৈকতে আসা যাওয়া করে। সম্প্রতি গেল মাসে কংক্রিট ও বালু দিয়ে গষামাজা করে লোকদেখানো কিছু নির্মান কাজ সম্পন্ন করে। কিন্তু তা ১ সপ্তাহও কাজ হয়নি। এই সড়কটি দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না হওয়া এবং সংস্কার হলেও তা নিন্মমানের সরঞ্জামাদি দিয়ে করার কারণে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে দাবি করছেন অনেকেই। সড়কের এ দশার কারণে স্থানীয়দের পাশাপাশি বিরুপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে বাইরে থেকে আসা লোকজনের মাঝেও। শহরের বিশেষ করে ভিআইপি সড়ক নামে পরিচিত সার্কিট হাউসের জলিলের দোকান থেকে থেকে জাম্বুর মোড় পর্যন্ত সড়কের প্রায় এক কিলোমিটারের মধ্যে কয়েকশত বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হওয়ায় ওই সড়ক দিয়ে যান ও লোক চলাচলে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। এগুলো দেখেও নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। অথচ ওই ভিআইপি সড়ক দিয়ে প্রতিনিয়ত যাতায়াত করে থাকেন জেলা প্রশাসক থেকে শুরু করে জেলার সবোর্চ্চ পর্যায়ের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তারা। এমনকি ওই সড়কের পাশেই রয়েছে সিভিল সার্জন, ভূমি অফিসসহ একাধিক সরকারি অফিস। বর্তমানে ওই সার্কিট হাউস সড়কটির এমন অবস্থা হয়েছে যাতে করে ওই সড়ক দিয়ে যানবাহনেতো দূরের কথা পায়ে হেঁটে চলা পর্যন্ত অসম্ভব হয়ে পড়েছে। ২৯ আগস্ট সকালে সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সড়কটির কয়েক হাত পরপর ছোট-বড় অসংখ্য গর্ত। রিক্সা, টমটম, সিএনজি, মোটর সাইকেলসহ যেকোনো যানবাহনে করে ওই সড়ক দিয়ে যাতায়াত করার সময় ওই গর্তে পড়ে শরীরের মধ্যে মারাত্মক ঝাঁকুনী দিয়ে উঠে। এতে করে একদিকে মানুষের শরীরের মধ্যে আঘাত হচ্ছে অন্যদিকে গর্তের মধ্যে পড়ে প্রতিনিয়ত ছোট-বড় দুর্ঘটনার সৃষ্টি হচ্ছে।
ঢাকা থেকে আসা হেলাল নামের এক পর্যটক ক্ষোভের সাথে কক্সবাজার আলো ডটকম কে জানান-কক্সবাজার পর্যটন শহর হলেও পর্যটন এলাকার গুরুত্বপূর্ণ সড়কের এ দশা তা কখনো মেনে নেওয়া যায় না।
কক্সবাজার শহরের ১২ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলিগের সাধারন সম্পাদক কাজী মোরশেদ আহমদ বাবু জানান, সার্কিট হাউস সড়কসহ শহরের যেসব সড়কের বেহাল দশা সৃষ্টি হয়েছে সেসব সড়ক শীঘ্রই সংস্কার না করলে কক্সবাজার থেকে অনেক পর্যটক বিমুখ হয়ে যাবে পাশাপাশি স্থানীয়রা এই সড়ক দিয়ে একদম চলাচল করতে পারবেনা এমনকি হাটাহাটিও করতে পারবেনা।
কক্সবাজার শহরবাসী ও আগত পর্যটকরা জেলা প্রশাসকের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, সড়কটি জরুরী ভিক্তিতে সংস্কার করে সাধারন মানুষের দুর্লোভ লাগব কমিয়ে আনতে পৌর কর্তৃপক্ষকে একটু বলে দিলে তো হয় অথচ বর্তমানে এই সড়কের ব্যাপারে কারও মাথা ব্যথা নেই। সবাই খেয়াল রাখে টেন্ডারের টাকা কিভাবে ভাগবাটোয়ার করে পেট মোটা করা যায়।
এ ব্যাপারে কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র সরওয়ার কামাল জানান, এই সড়কের অর্ধেক কাজ ইতিমধ্যে সম্পন্ন করা হয়েছে বৃষ্টি কমলে বাকী কাজ করার পরিকল্পনা রয়েছে। তিনি আরো বলেন, যে কোন মাধ্যমে এই সড়কের কাজ দ্রুত সম্পন্ন করা হবে।

সর্বশেষ - অপরাধ