1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
  4. bblythe20172018@mail.ru : traceyhowes586 :

টেকনাফ পৌরসভার পুরাতন পলানপাড়া ও নাইট্যংপাড়ার আইন শৃংখলা পরিস্থিতি ভেঙ্গে পড়েছে : জন নিরাপত্তা হুমকির মুখে

  • আপডেটের সময় : শনিবার, ৪ জুলাই, ২০১৫
  • ৭১ দেখা হয়েছে

indexবিশেষ প্রতিবেদন :
টেকনাফ পৌরসভার পুরাতন পলানপাড়া ও নাইট্যংপাড়ার আইন শৃংখলা পরিস্থিতি ভেঙ্গে পড়েছে। খুন, মারামারী, চুরি, চাঁদাবাজী, ইয়াবা ব্যবসা, দেহব্যবসা, রোহিঙ্গা নাগরিকদের আশ্রয়, অপহরণ, মুক্তিপনদাবী, সরকারী বনভূমি জবরদখল, বাণিজ্য, সন্ত্রাসী, ভাড়াটে কিলার, চোরাচালান সংক্রান্ত বিষয়ে প্রতিবেদন। টেকনাফ পৌরসভার ১ ও ২ নং ওয়ার্ড পুরাতন পুরাতন পলানপাড়া ও নাইট্যংপাড়া এ ২টি ওয়ার্ড উপজেলা প্রশাসন ও পাহাড় সংলগ্ন এলাকা হিসাবে এর গুরুত্ব অপরিসীম। অনুসন্ধান এবং জনশ্র“তি অনুযায়ী এ ২টি ওয়ার্ডে প্রায় রোহিঙ্গা নাগরিক। এরা বাংলাদেশী নাগরিক সেজে দীর্ঘদিন ধরে, বসবাস করে আসছে। অনেকের মতে এ ২টি ওয়ার্ডকে ভোট ব্যাংক হিসাবে পরিচিত। অতীত এবং বর্তমান পর্যালোচনা করে জানা যায়, গত সাত বছরে অর্থাৎ বর্তমান সরকারের সময়ে এ ২টি ওয়ার্ডের মানুষের রাতারাতী ভাগ্য পরিবর্তন ঘটেছে। এদের মধ্যে অনেকেই আলাদিনের ছেরাগ হাতে পেয়েছে। যাদের নির্ধারিত কোন পেশা আয়ের উৎস নেই তারাই হঠাৎ করে অর্থ বিত্তের মালিক বনে গেছেন। রংমিস্ত্রি, ড্রাইবার, কর্মচারী, চা-বিক্রেতা, ফল ব্যবসায়ী, মংগী ব্যবসায়ী ও ক্ষুদে ব্যবসায়ীরা কোটি কোটি টাকার মালিক বনে গেছেন। গাড়ী, অত্যাধুনিক পাকাভবন, দোকান জায়গার জমির ও পাটে বাড়ীর এখন মালিক। তাদের নির্ধারিত চোখে পড়ার মত কোন আয়ের উৎস নেই। তার পরও এরা হঠাৎ এ অর্থ পেলেন কোথায়? এমন প্রশ্ন সবার। এসব কিছুর পেছনে রয়েছে। মরণ নেশা ইয়াবা ব্যবসা এ ২টি ওয়ার্ডে যে, ক’জন শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী গডফাদার রয়েছে তারা কিন্তু ধরাছোয়ার বাইরে রয়েছে। ইয়াবা এবং মানবপাচারের কালো টাকার পেশি শক্তির দাপট এবং আধিপাত্য বিস্তার নিয়ে চলছে মলযুদ্ধ । ইয়াবা, মানবপাচার এবং চোরাচালানের অর্থ হচ্ছে, একমাত্র এরা অর্থের মালিক। চলতি বছর এ ২টি ওয়ার্ডে খুন, মারামারী অস্ত্র উদ্ধার ও অপহরন ঘঠনা ঘটেছে। গত মে মাসে পুলিশের সোর্স মংগী ছলিম নামে এক যুবক প্রতিপক্ষের ভাড়াটে কিলারের হাতে নির্ম্মভাবে খুন হয়েছে। এর পূর্বে সোলতানের পুত্র নাজমুল নামে এক যুবক প্রতিবেশী চাচাতো ভায়ের হাতে জায়গা জমি এবং ইয়াবা সংক্রান্ত বিষয়ে ধারালো অস্ত্রে আহত হয়। সে এখনো চট্টগ্রামে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এছাড়া লাল মোহাম্মদ ও নুরুল আমীন ইয়াবা সংক্রান্ত বিষয়ে পুলিশের হাতে আটক হয়েছে। বর্তমানে এরা জেলহাজতে থাকলেও এলাকায় শান্তি শৃংখলা এখনো ফিরে আসেনী। সাধারণ মানুষ নিরাপত্তার অভাবে ভোগছেন। এসব অপকর্মের জম্মদাতা হয়েছে, ইয়াবা ও বনভূমি ব্যবসা সংক্রান্ত বিষয়ে। পুরাতন পলান পাড়া মিয়ানমারের নাগরিক ও অষ্ট্রেলিয়ান প্রবাসীর পিতা মোঃ আলীর পুত্রকে স্থানীয় কয়েকজন যুবক অপহরন করে মুক্তিপনদাবীর উদ্দেশ্যে আতœগোপন করে। স্থানীয় কাজল ও মুছা নামে এ দুই যুবক হচ্ছে, অপহরনকারী। বর্তমানে এরা জেলহাজতে রয়েছে। অপহরনের নেপথ্যে স্থানীয় একজন প্রভাবশালী জড়িত থাকার অভিযোগ থাকলেও রহস্যজনক কারনে সে আটক হচ্ছেনা। এসব অপকর্মের পেছনে মূলে রয়েছে রোহিঙ্গা নাগরিক। সরকারীবনভূমিত রোহিঙ্গাদের দখলে এবং তারাই সকল অপকর্মের হোতা বলে স্থানীয়রা জানান। ভাড়াবাসা ও বাড়ীতে ইয়াবা ব্যবসা ওপেন সিক্রেট। পাশাপাশি বিভিন্ন অসমাজিক কার্যকলাপ। বিশেষ করে টেকনাফ পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে ইয়াবা ও কালোটাকার পেশিশক্তি কাজ করবে বলে এমন আশংখা সবার। এ নিয়ে চলছে আধিপাত্য ।

এই বিভাগের আরও খবর
  • © ২০১৪ - ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কক্সবাজার আলো .কম
Site Customized By NewsTech.Com