1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. shahjahanauh@gmail.com : কক্সবাজার আলো : কক্সবাজার আলো
  3. syedalamtek@gmail.com : syedalam :
  4. bblythe20172018@mail.ru : traceyhowes586 :

সরকারী পৃষ্ঠপোষকতা পেলে টেকনাফের জইল্লারদ্বীপ হতে পারে আকর্ষণীয় পর্যটন স্পট

  • আপডেট : বুধবার, ২২ জুলাই, ২০১৫
  • ১৭৩ দেখা হয়েছে

সাইফুদ্দীন মোহাম্মদ মামুন, টেকনাফ :      
সরকারী ও বেসরকারীভাবে পৃষ্ঠপোষকতা পেলে টেকনাফের নাফ-নদীর বুকে জেগে উঠা জইল্লারদ্বীপ হতে পারে একটি আকর্ষণীয় পর্যটন স্পট। অপার সম্ভাবনা থাকা সতে¦ও এ দ্বীপটি পর্যটনের আওতায় আনা হচ্ছেনা। এটি টেকনাফ কেরুনতলী স্থল বন্দরের পূর্বে নাফ-নদীতে জেগে উঠা ভাসমান একটি দ্বীপ। এর পূর্বে মিয়ানমারের লালদ্বীয়ারদ্বীপ এবং পশ্চিমে টেকনাফ কক্সবাজার সড়ক। আনুমানিক ১৬ শত একর জায়গা নিয়ে গঠিত এ জালিয়ারদ্বীপ। এটি স্থানীয় ভাষায় জইল্লারদ্বীপ হিসাবে পরিচিত। দুর থেকে দেখলে মনে হয় এ দ্বীপটি একটি ডিমের মত। এ দ্বীপের বৈশিষ্ট চতুর্দিকে সবুজ বন বা কেউড়া বাগানদ্বারা আবৃত। পাখির কলকলানীতে প্রতিনিয়িত মুখরিত হয়ে উঠে এ দ্বীপ। এ আকর্ষণীয় দ্বীপটি রক্ষার্থে প্রয়োজন বেড়ীবাঁধ নির্মান। সমপ্্রতি পর্যটন মন্ত্রণালয়ের একটি প্রতিনিধিদল এ দ্বীপটি পরিভ্রমন করে গেছেন। শীঘ্রই এ দ্বীপটি পর্যটনের আওতায় নিয়ে আসার জন্য প্রাথমিক ভাবে জালিয়ারদ্বীপ হতে স্থল বন্দর পর্যন্ত একটি দীর্ঘ ব্রীজ নিমার্ণ করার প্রস্তাব দিয়েছে। টেকনাফ উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) ’র নকশাও প্রাক্কলন সংশ্লিষ্ঠ দপ্তরে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে। দ্বীপটি পর্যটনের আওতায় নিয়ে আসার ব্যবস্থা করা হলে দেশী ও বিদেশী প্রচুর পর্যটকদের সমাগম গঠবে এই দ্বীপে। তার পাশাপাশি বিপুল পরিমাণ রাজস্বও আয় করতে পারবে সরকার।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর
© ২০১৪ - ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত।
Site Customized By NewsTech.Com