বৃহস্পতিবার , ৯ জুলাই ২০১৫ | ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আরো
  6. ইসলাম
  7. এক্সক্লুসিভ
  8. কক্সবাজার
  9. করোনাভাইরাস
  10. খেলাধুলা
  11. জাতীয়
  12. জেলা-উপজেলা
  13. পর্যটন
  14. প্রবাস
  15. বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি

ঈদগাঁও-ঈদগড়ে দীর্ঘকাল ধরে গজে উঠছে রোহিঙ্গারা : অভিযান দাবী

প্রতিবেদক
কক্সবাজার আলো
জুলাই ৯, ২০১৫ ৫:১৫ অপরাহ্ণ

আবুল কাশেম, ঈদগড় :
কক্সবাজার সদর উপজেলার বৃহত্তর ঈদগাঁও ও রামু উপজেলার পাহাড়ী জনপদ ঈদগড় এলাকায় দীর্ঘকাল ধরে সরকারী খাস জমি দখল করে বাড়ীঘর নির্মাণের মাধ্যমে বসবাস করছে হাজার হাজার রোহিঙ্গা। পৃথিবীর প্রত্যেক দেশে অবৈধ অনুপ্রবেশ রোধ করার জন্য সীমান্ত প্রহরী থাকে। এদেশে সীমান্ত প্রহরী থাকলেও বর্মী রোহিঙ্গারা নানা কৌশল অবলম্বন করে এদেশে অবৈধ অনুপ্রবেশ করে বংশ বিস্তারের শিকড় গেঁড়েছে। তারা এদেশে শুধু ডালপালা বিস্তার করে ক্লান্ত হয়নি, সারা দেশে ছড়িয়ে দিয়েছে নানা প্রকার অপরাধ প্রবণতা। সচেতন মহলের অভিমত- আজ দেশের শান্তিপুর্ণ পরিবেশ ধ্বংসের পথে ধাবিত হওয়ার অন্যতম কারণ হচ্ছে রোহিঙ্গা। এদেশে অবৈধ অনুপ্রবেশ করে লুণ্ঠন, রাহাজানী, ছিনতাই, চুরি, ডাকাতি, ধর্ষণ সহ নানা অপরাধে জড়িত রয়েছে। অপর দিকে এসব অপরাধ অপকর্ম করে সুযোগ বুঝে নির্বিঘেœ নিজ দেশে পালিয়ে যায়। এর প্রভাব কক্সবাজারের বৃহত্তর ঈদগাঁও ও রামুর ঈদগড়ের বিশাল এলাকায় ভাইরাস আকারে ঢুকে পড়েছে। এরই অংশ হিসাবে ছয় ইউনিয়নের বৃহত্তর ঈদগাঁও ও রামু উপজেলার পাহাড়ী অঞ্চল ঈদগড়ের বিভিন্ন গ্রামে-গঞ্জে হাজার হাজার রোহিঙ্গা বাস করছে দাপটের সাথে। সংখ্যা গরিষ্ট বার্মাইয়া পরিবার যেসব এলাকায় তন্মধ্যে ঈদগাঁও উত্তর শিয়াপাড়া, কোনা পাড়া, দরগাহপাড়া, ভাদিতলা, হাসিনা পাহাড়, তেলি পাড়া, মেহেরঘোনা, ইসলামাবাদের আওলিয়াবাদ, করাচি পাহাড়, বার্মাইয়া পাড়া, পূর্ব হাজী পাড়া, গজালিয়া এবং বাজারের আশেপাশের এলাকা। তাছাড়া ঈদগাঁও কলেজ গেইট সংলগ্ন কলোনীতে রোহিঙ্গাদের টাল রয়েছে। অন্যদিকে রামুর ঈদগড় ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে-গঞ্জে সর্বত্র ছড়িয়ে ছিটিয়ে সংখ্যা গরিষ্ট বার্মাইয়া পরিবার অবস্থান করছে বলে সচেতন মহলের জরীপ সূত্রে জানা যায়। অপর দিকে বৃহত্তর ঈদগাঁও ও ঈদগড়ের বিভিন্ন এলাকায় বহু মায়ানমার নাগরিক ভোটার হওয়ার অভিযোগ উঠেছে সচেতন মহলের পক্ষ থেকে। প্রাপ্ত তথ্য মতে, এলাকায় মায়ানমারের লোকজন বসবাস করে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। এসব নাগরিকরা সীমান্ত এলাকার বিভিন্ন ইউনিয়নের জাতীয়তা সনদপত্র এনে ভোটার হয়েছেন বলে একাধিক সুত্রে প্রকাশ। পাশাপাশি বিভিন্ন প্রিন্ট ব্যবসায়ীরা কালো টাকার বিনিময়ে রোহিঙ্গাদের আইডি কার্ড তৈরীর মত হীন কর্মকান্ডে মেতে উঠছে। নানা অপরাধ অপকর্মে জড়িত রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে বিশেষ অভিযান পরিচালনার জোর দাবী জানিয়েছেন সচেতন মহল।

সর্বশেষ - উপজেলা

আপনার জন্য নির্বাচিত