শুক্রবার , ২৪ জুলাই ২০১৫ | ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আরো
  6. ইসলাম
  7. এক্সক্লুসিভ
  8. কক্সবাজার
  9. করোনাভাইরাস
  10. খেলাধুলা
  11. জাতীয়
  12. জেলা-উপজেলা
  13. পর্যটন
  14. প্রবাস
  15. বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি

বাড়ি ফিরলো আরও ১৪৬ অভিবাসী

প্রতিবেদক
কক্সবাজার আলো
জুলাই ২৪, ২০১৫ ১০:০৩ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক :
কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে রাখা ১৫৫ জন অভিবাসির মধ্যে বাকি ১শ ৪৬ জনকেও যাচাই-বাচাই প্রক্রিয়া শেষ করে নিজ জিম্মায় বাড়ি পাঠিয়ে দিয়েছে কক্সবাজার পুলিশ। এর আগে গত বৃহস্পতিবার ১৫৫ জনের মধ্যে ৯জন শিশু-কিশোর হওয়ায় ওইদিন দুপুরে তাদেরকে আদালতে হাজির করে স্থানীয় রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির জিম্মায় বিকালে তাদেরকে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় স্ব স্ব বাড়ি পাঠিয়ে দেয়।
কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তা মেজবাহ উদ্দিন জানায়,শুক্রবার বেলা ১২টার দিকে ৪টি বাস করে এই ১শ ৪৬ জনকে নিজ জিম্মায় পরিবারের কাছে পাঠানো হয়। এর আগে বৃহস্পতিবার দিনভর পুলিশ তাদের জিজ্ঞাসাবাদে ১৪ জেলার ৭০ জন দালালের নাম জানতে পারে।এদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান।
অভিবাসী যাত্রীর মধ্যে সর্বোচ্চ নারায়ণগঞ্জের ৪০ জন, ঝীনাইদহের ১৩জন,মাদারী পুরের ১৪ জন, কুষ্টিয়ার ৪ জন, মাগুরার ৬ জন, পাবনার ১২ জন,যশোরের ৮ জন, সিরাজগঞ্জের ২৬ জন, চুয়াডাঙ্গার ১১ জন, কুমিল্লর ৬ জন, জয়পুরহাটের ৫ জন, সুনামগঞ্জের ৮ জন এবং সাতক্ষীরার ২ জন রয়েছেন।
সাগরে উদ্ধার মায়ানমার ফেরত মো:সাইফুল ইসলাম জানান, ৫ মাস ধরে আমরা ঘরের বাইরে। আমাদের কুমিল্লার এক দালাল ফুসলিয়ে আমিসহ আরো পাঁচজনকে টেকনাফে নিয়ে আসে। প্রায় একমাস সাগরে ভাসমান ছিলাম। সাগর থেকে আমাদের উদ্ধার করে মায়ানমারে নিয়ে যাওয়া হয়।
মো;ইদ্রিস নামে আরেক যাত্রী শপথ করে বলেন, জীবনেও আর কখনো ভুল করবনা। পাড়ার সকলকে আমাদের করুণ কাহিনী বলে সচেতন করব। একই কথা বলেন, আবু বক্কর ও নুরুল ইসলাম নামে আরো দুই যাত্রী। তাদের ভাষ্য হলো, আমরা মরণের পর আবার জীবন ফিরে পাওয়ার অবস্থা। প্রায় দেড় মাস খাবার পায়নি। একলাখ টাকা নিয়ে আমাদের মালয়েশিয়া পাঠানোর কথায় সাগরে আটকিয়ে রাখে।
আর্ন্তজাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম) কক্সবাজারের প্রোগ্রাম অফিসার আসিফ মনির বলেন,উদ্ধার হওয়া সকল অভিবাসীকে অবৈধ পথে মালয়েশিয়া যাওয়ার বিষয়ে সচেতন করা হচ্ছে। উদ্ধার হওয়া লোকজনও ভুল পথে পা দিবেনা বলে শপথ করছে।  তিনি বলেন, এ পর্যন্ত উদ্ধারকৃত সকল অভিবাসীকে নিয়ে একটা অনুষ্ঠান করার পরিকল্পনা আমাদের রয়েছে। ঢাকা কিংবা নিজ জেলা ভিত্তিক অনুষ্ঠানটি হতে পারে। উদ্ধারপ্রাপ্তদের কর্মসংস্থানের বিষয়ই অনুষ্ঠানে প্রাধান্য পাবে।তিনি আরও জানান, গত বুধবার ১৫৫ জনকে স্বদেশে ফেরত আনা ছাড়াও ৭২৭ অভিবাসী থেকে আরও ৩৭৩ জনকে বাংলাদেশী হিসেবে শনাক্ত করাদেরকে আগামি সপ্তাহে দেশে ফিরে আনা হবে।এদের আগামী ২৯ অথবা ৩০ জুলাই আরো ১শ ৫৯ বাংলাদেশিকে মিয়ানমার থেকে পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে ফেরত আনা হবে।
এব্যাপারে প্রেস ব্রিফিংকালে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তোফায়েল আহমদ জানান, যথাযথ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে মিয়ামনার থেকে ফেরত আনা ১৫৫ বাংলাদেশীকে নিজ ঠিকানায় পৌঁছে দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, ওই ১৫৫ জন দেশের ১৪ জেলার বাসিন্দা রয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদকালে ফেরত বাংলাদেশিরা ৭০ জন দালালের নাম উল্লেখ করেছেন। মানবপাচারের অভিযোগে ওই ৭০ দালালের ১৪ টি জেলায় একটি করে মামলা দায়ের করা হবে।
উল্লেখ্য গত ২১ মে সমুদ্র উপকূলে ভাসমান অবস্থায় ২০৮ অভিবাসীকে উদ্ধার করে মিয়ানমার। এদের মধ্যে যাচাই-বাছাই শেষে বাংলাদেশী হিসেবে শনাক্ত ১৫০ জনকে ৮ জুন এবং ৩৭ জনকে ১৯ জুন সর্বশেষ ১৫৫ জনকে ২২ জুলাই ফেরত আনা হয়।

সর্বশেষ - উপজেলা

আপনার জন্য নির্বাচিত

ইতিহাসের দুয়ারে কড়া নাড়ছেন হিলারি

ঈদগাঁও-ঈদগড় সড়কে ফের ডাকাত ও অপহরণ আতঙ্ক : উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় লোকজন

বাহারছড়ার চেয়ারম্যান আজিজ উদ্দিন ও সচিবকে আটক করেছে দুদক

কক্সবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ২০তম বার্ষিক সদস্য সভা

বিএনপির হাল ধরছেন ডা. জোবাইদা!

এবার ইসি জানাল, চার আসনে উপনির্বাচনের তফসিল ২ জুন

সেন্টমার্টিনে বিপুল পরিমাণ ইয়াবা ও বিদেশী অস্ত্র উদ্ধার

মালয়েশিয়ায় মাহসা ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্টদের রি-ইউনিয়ন অনুষ্ঠিত

করোনা ভাইরাসের কারণে হ্নীলায় গুলফরাজ-হাশেম ফাউন্ডেশনের বার্ষিক চিকিৎসা শিবির স্থগিত

টেকনাফে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের পুষ্পমাল্য অর্পণ